চুরির গাছ পুলিশ জব্দ করার পর আবার চুরি!
jugantor
চুরির গাছ পুলিশ জব্দ করার পর আবার চুরি!

  আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি  

২৪ নভেম্বর ২০২০, ১৯:১৪:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনার আমতলী উপজেলায় চুরি করা গাছ পুলিশ জব্দ করার পর আবারও সেসব গাছ চুরির ঘটনা ঘটেছে। চুরি হওয়া গাছ মঙ্গলবার দুপুরে পৌর শহরের ফায়ার সার্ভিস এলাকার পাহলান স-মিল থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আমতলী পৌর শহরের বাসিন্দা সাংবাদিক পরিতোষ কুমার কর্মকার ২০০২ সালে ৪ শতাংশ জমি ক্রয় করে চাম্বল, মেহগনি, আকাশমণি ও রেইন্ট্রিসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করেন। গত বৃহস্পতিবার ভোররাতে ওই জমির ১৪টি গাছ একাধিক মামলার আসামি এলাকার চিহ্নিত চোর শহীদ ফকির ও তার লোকজন কেটে নেয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ১৪টি গাছ জব্দ করে। পুলিশের ওই জব্দকৃত গাছ শহীদ ফকির সোমবার রাতে আবারও চুরি করে ফায়ার সার্ভিস এলাকার পাহলান স-মিলে রেখে আসে। মঙ্গলবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমতলী থানার এসআই মো. শহীদুল আলম স-মিল থেকে গাছ উদ্ধার করেন। পরে গাছের মালিক পরিতোষ কর্মকারের জিম্মায় উদ্ধার হওয়া গাছ রেখে দেন।

স-মিল মালিক মো. হাবিবুর রহমান ফকির বলেন, শহীদ ফকির এলাকার একটি চিহ্নিত চোর। ওই গাছ চুরি করে আমার স-মিলে রেখে গেছে। আমার শ্রমিকরা গাছ রাখতে চায়নি।

আমতলী থানার এসআই মো. শহীদুল আলম বলেন, ওসির নির্দেশে গাছ উদ্ধার করে গাছের মালিক পরিতোষ কুমার কর্মকারের জিম্মায় রাখা হয়েছে।

গাছের মালিক পরিতোষ কুমার কর্মকার বলেন, গাছ উদ্ধার করে পুলিশ আমার জিম্মায় দিয়েছে।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, জব্দকৃত চুরি হওয়া গাছ উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

চুরির গাছ পুলিশ জব্দ করার পর আবার চুরি!

 আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি 
২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৭:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বরগুনার আমতলী উপজেলায় চুরি করা গাছ পুলিশ জব্দ করার পর আবারও সেসব গাছ চুরির ঘটনা ঘটেছে। চুরি হওয়া গাছ মঙ্গলবার দুপুরে পৌর শহরের ফায়ার সার্ভিস এলাকার পাহলান স-মিল থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আমতলী পৌর শহরের বাসিন্দা সাংবাদিক পরিতোষ কুমার কর্মকার ২০০২ সালে ৪ শতাংশ জমি ক্রয় করে চাম্বল, মেহগনি, আকাশমণি ও রেইন্ট্রিসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রোপণ করেন। গত বৃহস্পতিবার ভোররাতে ওই জমির ১৪টি গাছ একাধিক মামলার আসামি এলাকার চিহ্নিত চোর শহীদ ফকির ও তার লোকজন কেটে নেয়। 

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ১৪টি গাছ জব্দ করে। পুলিশের ওই জব্দকৃত গাছ শহীদ ফকির সোমবার রাতে আবারও চুরি করে ফায়ার সার্ভিস এলাকার পাহলান স-মিলে রেখে আসে। মঙ্গলবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমতলী থানার এসআই মো. শহীদুল আলম স-মিল থেকে গাছ উদ্ধার করেন। পরে গাছের মালিক পরিতোষ কর্মকারের জিম্মায় উদ্ধার হওয়া গাছ রেখে দেন।

স-মিল মালিক মো. হাবিবুর রহমান ফকির বলেন, শহীদ ফকির এলাকার একটি চিহ্নিত চোর। ওই গাছ চুরি করে আমার স-মিলে রেখে গেছে। আমার শ্রমিকরা গাছ রাখতে চায়নি।

আমতলী থানার এসআই মো. শহীদুল আলম বলেন, ওসির নির্দেশে গাছ উদ্ধার করে গাছের মালিক পরিতোষ কুমার কর্মকারের জিম্মায় রাখা হয়েছে।

গাছের মালিক পরিতোষ কুমার কর্মকার বলেন, গাছ উদ্ধার করে পুলিশ আমার জিম্মায় দিয়েছে।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, জব্দকৃত চুরি হওয়া গাছ উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন