চাল আত্মসাতের দায়ে কারাগারে ইউপি চেয়ারম্যান
jugantor
চাল আত্মসাতের দায়ে কারাগারে ইউপি চেয়ারম্যান

  ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি  

২৪ নভেম্বর ২০২০, ২২:৫৩:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় জাল ভিজিডি কার্ডের মাধ্যমে চাল আত্মসাৎ মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

অভিযুক্ত জামিরুল ইসলাম বাবু উপজেলার রিফাইয়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল আমলী আদালতের (দৌলতপুর) হাকিম এনামুল হক এই আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৭ নভেম্বর দুপুরে কুষ্টিয়ার আদালতের বিচারক এনামুল হক মামলাটি আমলে নিয়ে এজাহারভুক্ত করার জন্য দৌলতপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। আদেশের পরে আজ (মঙ্গলবার) ওই মামলায় জামিনের জন্য আবেদন করেন জামিরুল ইসলাম।

আদালত সূত্রে জানা যায়, দৌলতপুর উপজেলার রিফাইয়েতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবু ওই ইউনিয়নের বাসিন্দা রুবিনা খাতুনের ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহার করে তার (রুবিনা) নামে একটি ভিজিডি কার্ড তৈরি করেন।

ওই চেয়ারম্যান রুবিনার ভিজিডি কার্ডের বিপরীতে ২০১৯-২০ বরাদ্দ হওয়ায় সরকারি চাল আত্মসাৎ করেন। রুবিনা এ ব্যাপারে কিছুই জানতেন না। সম্প্রতি বিষয়টি জানাজানি হলে রুবিনা খাতুন সংশ্লিষ্ট অফিসে গিয়ে জানতে পারেন তার নামে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের ভিজিডি কার্ড রয়েছে। সেই কার্ডে নিয়মিত চাল উত্তোলন হয়ে আসছে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারীর পক্ষে তার ভাই মুন্না মঙ্গলবার চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবুর বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা করেন। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে এজাহারভুক্ত করার জন্য দৌলতপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

চাল আত্মসাতের দায়ে কারাগারে ইউপি চেয়ারম্যান

 ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি 
২৪ নভেম্বর ২০২০, ১০:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় জাল ভিজিডি কার্ডের মাধ্যমে চাল আত্মসাৎ মামলায় ইউপি চেয়ারম্যানকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। 

অভিযুক্ত জামিরুল ইসলাম বাবু উপজেলার রিফাইয়েতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান। মঙ্গলবার দুপুরে কুষ্টিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল আমলী আদালতের (দৌলতপুর) হাকিম এনামুল হক এই আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৭ নভেম্বর দুপুরে কুষ্টিয়ার আদালতের বিচারক এনামুল হক মামলাটি আমলে নিয়ে এজাহারভুক্ত করার জন্য দৌলতপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন। আদেশের পরে আজ (মঙ্গলবার) ওই মামলায় জামিনের জন্য আবেদন করেন জামিরুল ইসলাম। 

আদালত সূত্রে জানা যায়, দৌলতপুর উপজেলার রিফাইয়েতপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবু ওই ইউনিয়নের বাসিন্দা রুবিনা খাতুনের ভোটার আইডি কার্ড ব্যবহার করে তার (রুবিনা) নামে একটি ভিজিডি কার্ড তৈরি করেন। 

ওই চেয়ারম্যান রুবিনার ভিজিডি কার্ডের বিপরীতে ২০১৯-২০ বরাদ্দ হওয়ায় সরকারি চাল আত্মসাৎ করেন। রুবিনা এ ব্যাপারে কিছুই জানতেন না। সম্প্রতি বিষয়টি জানাজানি হলে রুবিনা খাতুন সংশ্লিষ্ট অফিসে গিয়ে জানতে পারেন তার নামে ২০১৯-২০ অর্থ বছরের ভিজিডি কার্ড রয়েছে। সেই কার্ডে নিয়মিত চাল উত্তোলন হয়ে আসছে। 

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী ওই নারীর পক্ষে তার ভাই মুন্না মঙ্গলবার চেয়ারম্যান জামিরুল ইসলাম বাবুর বিরুদ্ধে আদালতে একটি মামলা করেন। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে এজাহারভুক্ত করার জন্য দৌলতপুর থানার ওসিকে নির্দেশ দেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন