হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়: বাবুনগরী
jugantor
হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়: বাবুনগরী

  আবু তালেব, হাটহাজারী থেকে  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৩:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়: বাবুনগরী

হেফাজতে ইসলামের আমীর, হাটহাজারী মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের কোনো ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়। আমরা সরকার বা দেশবিরোধী নই।

ইসলাম, মুসলমান, দেশ ও স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী আমরা। আমরা বাতিল ও নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী, কোন দল বা পার্টির বিরুদ্ধে নই। ইসলাম বিরোধী অপশক্তি এবং রাসুলের দুশমন নাস্তিক মুরতাদের বিরুদ্ধে হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা ছিলো, আছে থাকবেই থাকবে।

শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) হাটহাজারী পার্বতী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বৃহত্তর চট্টলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি ও সেবামূলক সংগঠন ‘আল-আমিন সংস্থা’র ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত তাফসীরুল কোরআন মাহফিলে সমাপনী দিনের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, হেফাজতে ইসলাম তথা কওমী আলেমদের কারো সঙ্গে শত্রুতা নেই। হক্কানি ওলামায়ে কেরাম যা বলেন একমাত্র ইসলামের জন্যই বলেন, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব শান্তিশৃঙ্খলার জন্য বলেন।

ইসলাম শান্তির ধর্ম, আমরা দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা চাই। প্রায় ৯০ ভাগ মুসলমানের এই দেশে যারা ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে দেশের শান্তিশৃঙ্খলা বিনষ্ট করতে চায় তাদের ব্যাপারে সরকারকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে।

আমীরে হেফাজত আরো বলেন, বর্তমানে পুরো বিশ্বে আস্তিক আর নাস্তিকের লড়াই চলছে। আওয়ামীলীগ-বিএনপির মধ্যে কোন লড়াই নেই, শুক্রবারের জুমার নামাজে তারাও পাশাপাশি দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে। আওয়ামীলীগ-বিএনপি পরস্পরের মধ্যে আত্মীয়তার বন্ধন হয়, মুসলমান হিসেবে সবাই ভাইভাই। কিন্তু আস্তিক আর নাস্তিক কখনো এক হতে পারে না। বিশ্বজুড়ে চলা আস্তিক আর নাস্তিকের এ লড়াইয়ে নাস্তিকদেরকে দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন মদীনার সনদে দেশ চলবে এমনটা জানিয়ে বাবুনগরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ কথার সঙ্গে সহমত পোষণ করছি। আমরাও চাই মদীনার সনদে দেশ চলুক। এই দেশ আমেরিকার সনদে চলতে পারে না, রাশিয়ার সনদে পারে না, ভারতের সনদে চলতে পারে না, ফ্রান্সের সনদে চলতে পারে না।

প্রায় ৯০ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত এই বাংলাদেশ মদীনার সনদেই চলবে। মদীনার সনদে দেশ চললে দেশে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে, সামাজিক শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে, সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে ওঠবে।

এ সনদের আলোকেই পৃথিবীতে আদর্শ ইসলামি সমাজ ও আন্তর্জাতিক শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত হবে।

সরকারের উদ্দেশ্যে আমীরে হেফাজত আল্লামা বাবুনগরী বলেন, আমরা আপনার দুশমন নই, আপনার আশপাশে ঘাপটি মেরে থাকা রাম-বাম আর নাস্তিক মুরতাদরাই আপনার প্রকৃত দুশমন। তারা আপনাকে ইসলামের বিপক্ষে দাঁড় করিয়ে তৌহিদি জনতা ও আপনার মধ্যে দূরত্ব তৈরী করতে চায়। ওদেরকে চিহ্নিত করুন।

এর আগে জুমার নামাজের পর আল-আমিন সংস্থার নেতবৃন্দ মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা হাফেজ রিজওয়ান আরমানের যৌথ সঞ্চালনায় হাটহাজারী মাদ্রাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা মুফতী জসীমুদ্দীনের উদ্বোধনী আলোচনার মাধ্যমে সমাপনী দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

আল-আমিন সংস্থার সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসান ফতেপুরী, মাওলানা নোমান ফয়জী, মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলাম, মাওলানা জাফর আহমদ এর ধারাবাহিক সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত তাফসীর মাহফিলে আরও আলোচনা করেন, মাওলানা মুফতী মুস্তাকুন্নবী, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, মাওলানা আব্দুল বাসেত খান সিরাজি, মাওলানা ইয়াকুব ওসমানী, মাওলানা মুফতী রাশেদ, মাওলানা ইসমাঈল খান এবং মাওলানা আনিসুর রহমান প্রমুখ।

এদিকে, শাইখুল হাদীস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমীরে হেফাজত নির্বাচিত করায় এবং করোনা মহামারীতে আর্তমানবতার সেবায় অসামান্য অবদান রাখায় আল মানাহিল ওয়ালফেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মাওলানা হেলাল উদ্দীন নানুপুরীকে আল আমিন সংস্থার পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়: বাবুনগরী

 আবু তালেব, হাটহাজারী থেকে 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ০১:০৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়: বাবুনগরী
ছবি: যুগান্তর

হেফাজতে ইসলামের আমীর, হাটহাজারী মাদ্রাসার শায়খুল হাদীস ও শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের কোনো ভূমিকা সরকারের বিরুদ্ধে নয়। আমরা সরকার বা দেশবিরোধী নই। 

ইসলাম, মুসলমান, দেশ ও স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের অতন্দ্র প্রহরী আমরা। আমরা বাতিল ও নাস্তিক মুরতাদ বিরোধী, কোন দল বা পার্টির বিরুদ্ধে নই। ইসলাম বিরোধী অপশক্তি এবং রাসুলের দুশমন নাস্তিক মুরতাদের বিরুদ্ধে হেফাজতে ইসলামের ভূমিকা ছিলো, আছে থাকবেই থাকবে। 

শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) হাটহাজারী পার্বতী মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বৃহত্তর চট্টলার ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি ও সেবামূলক সংগঠন ‘আল-আমিন সংস্থা’র ব্যবস্থাপনায় আয়োজিত তাফসীরুল কোরআন মাহফিলে সমাপনী দিনের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আল্লামা বাবুনগরী বলেন, হেফাজতে ইসলাম তথা কওমী আলেমদের কারো সঙ্গে শত্রুতা নেই। হক্কানি ওলামায়ে কেরাম যা বলেন একমাত্র ইসলামের জন্যই বলেন, দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব শান্তিশৃঙ্খলার জন্য বলেন। 

ইসলাম শান্তির ধর্ম, আমরা দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা চাই। প্রায় ৯০ ভাগ মুসলমানের এই দেশে যারা ইসলামের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে দেশের শান্তিশৃঙ্খলা বিনষ্ট করতে চায় তাদের ব্যাপারে সরকারকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। 

আমীরে হেফাজত আরো বলেন, বর্তমানে পুরো বিশ্বে আস্তিক আর নাস্তিকের লড়াই চলছে। আওয়ামীলীগ-বিএনপির মধ্যে কোন লড়াই নেই, শুক্রবারের জুমার নামাজে তারাও পাশাপাশি দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে। আওয়ামীলীগ-বিএনপি পরস্পরের মধ্যে আত্মীয়তার বন্ধন হয়, মুসলমান হিসেবে সবাই ভাইভাই। কিন্তু আস্তিক আর নাস্তিক কখনো এক হতে পারে না। বিশ্বজুড়ে চলা আস্তিক আর নাস্তিকের এ লড়াইয়ে নাস্তিকদেরকে দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন মদীনার সনদে দেশ চলবে এমনটা জানিয়ে বাবুনগরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এ কথার সঙ্গে সহমত পোষণ করছি। আমরাও চাই মদীনার সনদে দেশ চলুক। এই দেশ আমেরিকার সনদে চলতে পারে না, রাশিয়ার সনদে পারে না, ভারতের সনদে চলতে পারে না, ফ্রান্সের সনদে চলতে পারে না। 

প্রায় ৯০ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত এই বাংলাদেশ মদীনার সনদেই চলবে। মদীনার সনদে দেশ চললে দেশে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে, সামাজিক শান্তি প্রতিষ্ঠিত হবে, সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি গড়ে ওঠবে। 

এ সনদের আলোকেই পৃথিবীতে আদর্শ ইসলামি সমাজ ও আন্তর্জাতিক শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের ভিত্তি প্রতিষ্ঠিত হবে। 

সরকারের উদ্দেশ্যে আমীরে হেফাজত আল্লামা বাবুনগরী বলেন, আমরা আপনার দুশমন নই, আপনার আশপাশে ঘাপটি মেরে থাকা রাম-বাম আর নাস্তিক মুরতাদরাই আপনার প্রকৃত দুশমন। তারা আপনাকে ইসলামের বিপক্ষে দাঁড় করিয়ে তৌহিদি জনতা ও আপনার মধ্যে দূরত্ব তৈরী করতে চায়। ওদেরকে চিহ্নিত করুন। 

এর আগে জুমার নামাজের পর আল-আমিন সংস্থার নেতবৃন্দ মুহাম্মদ আহসান উল্লাহ, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা হাফেজ রিজওয়ান আরমানের যৌথ সঞ্চালনায় হাটহাজারী মাদ্রাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা মুফতী জসীমুদ্দীনের উদ্বোধনী আলোচনার মাধ্যমে সমাপনী দিনের কার্যক্রম শুরু হয়।

আল-আমিন সংস্থার সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসান ফতেপুরী, মাওলানা নোমান ফয়জী, মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলাম, মাওলানা জাফর আহমদ এর ধারাবাহিক সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত তাফসীর মাহফিলে আরও আলোচনা করেন, মাওলানা মুফতী মুস্তাকুন্নবী, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ুবী, মাওলানা আব্দুল বাসেত খান সিরাজি, মাওলানা ইয়াকুব ওসমানী, মাওলানা মুফতী রাশেদ, মাওলানা ইসমাঈল খান এবং মাওলানা আনিসুর রহমান প্রমুখ। 

এদিকে, শাইখুল হাদীস আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমীরে হেফাজত নির্বাচিত করায় এবং করোনা মহামারীতে আর্তমানবতার সেবায় অসামান্য অবদান রাখায় আল মানাহিল ওয়ালফেয়ার ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মাওলানা হেলাল উদ্দীন নানুপুরীকে আল আমিন সংস্থার পক্ষ থেকে বিশেষ সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন