দলাদলির কারণে আ’লীগের ভরাডুবি
jugantor
বগুড়া বার সমিতির নির্বাচন
দলাদলির কারণে আ’লীগের ভরাডুবি

  বগুড়া ব্যুরো  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ২১:১৭:২৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সভাপতি-সম্পাদক

বগুড়া জেলা অ্যাডভোকেটস বার সমিতির নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের ভরাডুবির জন্য দলীয় দলাদলিকে দায়ী করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয়ের কারণে সমর্থিত আইনজীবীরা হতাশ হয়েছেন।

তারা এ পরাজয়ের নেপথ্যের কারিগরদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

রিটার্নিং অফিসার অ্যাডভোকেট বিনয় কুমার ঘোষ রজত জানান, সমিতির গওহর আলী ভবনে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৭২০ জন ভোটারের মধ্যে ৬৯৫ জন ভোট দেন। ভোটগ্রহণ শেষে রাতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে।

১৩টি পদের মধ্যে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ আটটি পদে এবং বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেল একটি সহ-সভাপতি, ম্যাগাজিন সম্পাদক ও তিনটি সদস্য পদে জয়লাভ করে। অপর প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির কেউ বিজয়ী হননি।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের শফিকুল ইসলাম টুকু ৩৬৩ ভোট পেয়ে সভাপতি হয়েছেন। তার নিকটতম বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের গোলাম ফারুক পেয়েছেন ২৮২ ভোট। অপর প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সাইফুল ইসলাম পল্টু পেয়েছেন ৩৩ ভোট।

৩৪৬ ভোটে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের রফিকুল ইসলাম (১)। তার নিকটতম বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের তবিবুর রহমান তবি পেয়েছেন ১৬৭ ভোট। প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির আবদুল লতিফ পশারী ববি পেয়েছেন ১৬১ ভোট।

এদিকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয়ের জন্য দলাদলিকে দায়ী করা হচ্ছে।

পরাজিত সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী তবিবুর রহমান তবি অভিযোগ করেন, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি পিপি আবদুল মতিন নিজ দলের প্যানেলের পরিবর্তে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি ও বিএনপির প্যানেলে ভোট দিয়েছেন। এ কারণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের ভরাডুবি হয়েছে। তিনি বিষয়টি দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংশ্লিষ্ট নেতাদের অবহিত করবেন।

অভিযোগটি অস্বীকার করে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি পিপি আবদুল মতিন বলেন, দলাদলির কারণে তাদের পরাজয় হয়েছে। পরাজয়ের জন্য তিনি পরাজিতদের ব্যর্থতাকে দায়ী করেন।

তবে সাধারণ ভোটার আইনজীবীরা বলেছেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিতরা জাসদ, বাম দল সমর্থিত গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতিকে নিজেদের প্যানেলে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন। তাদের অবজ্ঞা ও নিজেদের বেইমানির কারণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয় হয়েছে। এ সুযোগে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।

বগুড়া বার সমিতির নির্বাচন

দলাদলির কারণে আ’লীগের ভরাডুবি

 বগুড়া ব্যুরো 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৯:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সভাপতি-সম্পাদক
সভাপতি-সম্পাদক। ছবি: সংগৃহীত

বগুড়া জেলা অ্যাডভোকেটস বার সমিতির নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের ভরাডুবির জন্য দলীয় দলাদলিকে দায়ী করা হচ্ছে। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয়ের কারণে সমর্থিত আইনজীবীরা হতাশ হয়েছেন। 

তারা এ পরাজয়ের নেপথ্যের কারিগরদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

রিটার্নিং অফিসার অ্যাডভোকেট বিনয় কুমার ঘোষ রজত জানান, সমিতির গওহর আলী ভবনে শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ ও উৎসবমুখর পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মোট ৭২০ জন ভোটারের মধ্যে ৬৯৫ জন ভোট দেন। ভোটগ্রহণ শেষে রাতে ফলাফল ঘোষণা করা হয়েছে। 

১৩টি পদের মধ্যে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ আটটি পদে এবং বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেল একটি সহ-সভাপতি, ম্যাগাজিন সম্পাদক ও তিনটি সদস্য পদে জয়লাভ করে। অপর প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির কেউ বিজয়ী হননি।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের শফিকুল ইসলাম টুকু ৩৬৩ ভোট পেয়ে সভাপতি হয়েছেন। তার নিকটতম বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের গোলাম ফারুক পেয়েছেন ২৮২ ভোট। অপর প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সাইফুল ইসলাম পল্টু পেয়েছেন ৩৩ ভোট।

৩৪৬ ভোটে পুনরায় সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলের রফিকুল ইসলাম (১)। তার নিকটতম বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ ও মহাজোট প্যানেলের তবিবুর রহমান তবি পেয়েছেন ১৬৭ ভোট। প্যানেল গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির আবদুল লতিফ পশারী ববি পেয়েছেন ১৬১ ভোট।

এদিকে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয়ের জন্য দলাদলিকে দায়ী করা হচ্ছে।

পরাজিত সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী তবিবুর রহমান তবি অভিযোগ করেন, বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি পিপি আবদুল মতিন নিজ দলের প্যানেলের পরিবর্তে গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতি ও বিএনপির প্যানেলে ভোট দিয়েছেন। এ কারণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের ভরাডুবি হয়েছে। তিনি বিষয়টি দলের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সংশ্লিষ্ট নেতাদের অবহিত করবেন। 

অভিযোগটি অস্বীকার করে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের সভাপতি পিপি আবদুল মতিন বলেন, দলাদলির কারণে তাদের পরাজয় হয়েছে। পরাজয়ের জন্য তিনি পরাজিতদের ব্যর্থতাকে দায়ী করেন। 

তবে সাধারণ ভোটার আইনজীবীরা বলেছেন, আওয়ামী লীগ সমর্থিতরা জাসদ, বাম দল সমর্থিত গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতিকে নিজেদের প্যানেলে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন। তাদের অবজ্ঞা ও নিজেদের বেইমানির কারণে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেলের শোচনীয় পরাজয় হয়েছে। এ সুযোগে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন