বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় যুবকের কাণ্ড
jugantor
বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় যুবকের কাণ্ড

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ২১:২১:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

মেয়ের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় অভিমান করে প্রেমিকার বাড়ির সামনে মো. কাসেম (২৭) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার দুপুর ৩টার দিকে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী পৌরসভার পাপুয়া গ্রাম থেকে পুলিশ ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে।

নিহত মো. কাসেম উপজেলার সোনাইমুড়ী পৌরসভার পাপুয়া গ্রামের তরিক আলী বেপারিবাড়ির মৃত দাইয়া মিয়ার ছেলে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোনাইমুড়ী পৌরসভার কড়ি মিজিবাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে কাশেমের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এক মাস আগে কাসেম তার মাকে দিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব পাঠান।

এ প্রস্তাব মেয়ের পরিবার প্রত্যাখ্যান করলে কাসেম বিভিন্ন সময় আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেন। একপর্যায়ে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে অভিমান করে মেয়ের বাড়ির সামনে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির আমগাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন।

নিহতের ভাই জানান, তার ভাইয়ের সঙ্গে মেয়েটির ৪-৫ বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তিনি এর আগে ৩-৪ বছর বিদেশে ছিলেন। বর্তমানে তিনি পেশায় একজন সিএনজিচালক। বিদেশ থেকে আসার পর সিএনজি চালিয়ে মেয়েটির পেছনে অনেক টাকা খরচ করেছেন।

তবে মেয়েটির মায়ের দাবি, আমার মেয়ের সঙ্গে কাসেমের কোনো প্রেমের সম্পর্ক ছিল না। তবে কাসেমের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব পাঠালে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকায় আমরা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করি।

সোনাইমুড়ী থানার ওসি মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ওই যুবক আত্মহত্যা করেছে। পরে খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় যুবকের কাণ্ড

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ০৯:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মেয়ের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় অভিমান করে প্রেমিকার বাড়ির সামনে মো. কাসেম (২৭) নামে এক যুবক আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার দুপুর ৩টার দিকে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী পৌরসভার পাপুয়া গ্রাম থেকে পুলিশ ওই যুবকের লাশ উদ্ধার করে।

নিহত মো. কাসেম উপজেলার সোনাইমুড়ী পৌরসভার পাপুয়া গ্রামের তরিক আলী বেপারিবাড়ির মৃত দাইয়া মিয়ার ছেলে।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোনাইমুড়ী পৌরসভার কড়ি মিজিবাড়ির একটি মেয়ের সঙ্গে কাশেমের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এক মাস আগে কাসেম তার মাকে দিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব পাঠান। 

এ প্রস্তাব মেয়ের পরিবার প্রত্যাখ্যান করলে কাসেম বিভিন্ন সময় আত্মহত্যা করবে বলে হুমকি দেন। একপর্যায়ে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে অভিমান করে মেয়ের বাড়ির সামনে একটি পরিত্যক্ত বাড়ির আমগাছের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। 

নিহতের ভাই জানান, তার ভাইয়ের সঙ্গে মেয়েটির ৪-৫ বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তিনি এর আগে ৩-৪ বছর বিদেশে ছিলেন। বর্তমানে তিনি পেশায় একজন সিএনজিচালক। বিদেশ থেকে আসার পর সিএনজি চালিয়ে মেয়েটির পেছনে অনেক টাকা খরচ করেছেন।

তবে মেয়েটির মায়ের দাবি, আমার মেয়ের সঙ্গে কাসেমের কোনো প্রেমের সম্পর্ক ছিল না। তবে কাসেমের পরিবার বিয়ের প্রস্তাব পাঠালে তার শিক্ষাগত যোগ্যতা না থাকায় আমরা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করি।

সোনাইমুড়ী থানার ওসি মো. গিয়াস উদ্দিন জানান, বিয়ের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় ওই যুবক আত্মহত্যা করেছে। পরে খবর পেয়ে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন