কোম্পানীগঞ্জে দিনেদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ!
jugantor
কোম্পানীগঞ্জে দিনেদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ!

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি  

২৯ নভেম্বর ২০২০, ২২:৩২:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট থেকে আবদুল আজিজ নোমান (২৪) নামের এক কলেজছাত্রকে তার পরিচালিত কোচিং সেন্টার থেকে দিনেদুপুরে অপহরণ করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার দুপুরে বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কেজি স্কুল রোডে এ ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে শনিবার বিকালে অপহৃত ছাত্রের মা নাজমুন লাইলা কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি ডায়েরি করেছেন।

অপহৃত আবদুল আজিজ নোমান কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের আব্দুল হালিমের ছেলে। তিনি ঢাকার মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র। পড়ালেখার পাশাপাশি নোমান ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করতেন।

এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মুছাপুর ইউনিয়নের কাতার প্রবাসী আবদুল হালিমের পরিবার বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে ভাড়া বাসায় থাকে। বাসার নিচে অনলাইন ওয়েব অরবিট নামের একটি ফ্রিল্যান্সিং অনলাইন কোচিং সেন্টার পরিচালনা করতেন নোমান। প্রতিদিনের মতো সকালে তিনি তার প্রতিষ্ঠানে যান। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অজ্ঞাত ৮-১০ জন ব্যক্তি তার কোচিং সেন্টারে প্রবেশ করে তাকে ফিল্মি কায়দায় জোরপূর্বক একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই মাইক্রোবাসে পুলিশের লোগো লাগানো ছিল। নোমানকে গাড়িতে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার সময় অপহরণকারীরা ওই ‘পুলিশ’ লেখা লোগেটি সরিয়ে ফেলে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রবিউল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কলেজছাত্র নোমানকে তার কোচিং সেন্টার থেকে অপহরণ করে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে মর্মে তার মা একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়ে অপহৃত নোমানকে উদ্ধার করতে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে। কারা বা কী কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা পরবর্তীতে জানা যাবে।

কোম্পানীগঞ্জে দিনেদুপুরে কলেজছাত্র অপহরণ!

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি 
২৯ নভেম্বর ২০২০, ১০:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বসুরহাট থেকে আবদুল আজিজ নোমান (২৪) নামের এক কলেজছাত্রকে তার পরিচালিত কোচিং সেন্টার থেকে দিনেদুপুরে অপহরণ করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার দুপুরে বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড কেজি স্কুল রোডে এ ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে শনিবার বিকালে অপহৃত ছাত্রের মা নাজমুন লাইলা কোম্পানীগঞ্জ থানায় একটি ডায়েরি করেছেন।

অপহৃত আবদুল আজিজ নোমান কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের আব্দুল হালিমের ছেলে। তিনি ঢাকার মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ছাত্র। পড়ালেখার পাশাপাশি নোমান ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ করতেন।

এলাকাবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, মুছাপুর ইউনিয়নের কাতার প্রবাসী আবদুল হালিমের পরিবার বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডে ভাড়া বাসায় থাকে। বাসার নিচে অনলাইন ওয়েব অরবিট নামের একটি ফ্রিল্যান্সিং অনলাইন কোচিং সেন্টার পরিচালনা করতেন নোমান। প্রতিদিনের মতো সকালে তিনি তার প্রতিষ্ঠানে যান। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অজ্ঞাত ৮-১০ জন ব্যক্তি তার কোচিং সেন্টারে প্রবেশ করে তাকে ফিল্মি কায়দায় জোরপূর্বক একটি সাদা মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই মাইক্রোবাসে পুলিশের লোগো লাগানো ছিল। নোমানকে গাড়িতে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার সময় অপহরণকারীরা ওই ‘পুলিশ’ লেখা লোগেটি সরিয়ে ফেলে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রবিউল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, কলেজছাত্র নোমানকে তার কোচিং সেন্টার থেকে অপহরণ করে মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে মর্মে তার মা একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ পেয়ে অপহৃত নোমানকে উদ্ধার করতে পুলিশের একাধিক দল কাজ করছে। কারা বা কী কারণে এ ঘটনা ঘটিয়েছে তা পরবর্তীতে জানা যাবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন