সোলারে আলোকিত দ্বীপ চরকলাতলী
jugantor
সোলারে আলোকিত দ্বীপ চরকলাতলী

  মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি  

৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৩:৫৭:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

সোলারে আলোকিত দ্বীপ চরকলাতলী

ভোলার বিচ্ছিন্ন মনপুরা উপজেলার মেঘনার বুকে জেগে ওঠা দ্বীপ চরকলাতলীর ৮০০ পরিবারের মধ্যে সোলার বিতরণ করা হয়েছে। এ চরদ্বীপ এখন আলোকিত হয়ে উঠেছে সোলারের আলোয়।

অন্ধকার এই দ্বীপে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রেবিউশন ও ইডকলের অর্থায়নে এ সোলার বিতরণ কার্যক্রম চালু রয়েছে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিরা আরও চার হাজার সোলার দেয়ার দাবি করেন।

সদ্য সোলার পাওয়া কলাতলীর বাসিন্দা হাসিনা, মরিয়ম, ফারজানা, কাইয়ুম, জামাল, জান্নাতসহ শতাধিক বাসিন্দা জানান, গত দুই যুগ রাতে কুপি ও হারিকেন জ্বালাইছি। অহন আমাগোরে সোলার দিছে অনেক উপকার হইছে। আগে আন্ধারাই (অন্ধকার) ঘরে ভাত খাইছি। রাতে আন্ধারাইয়া (অন্ধকার) থাকছি। এহন রাতে লাইট জ্বালাইয়া ভাত খাই। রাতে পোলাপাইন পড়া-লেহা করতে পারে।

তবে কলাতলী দ্বীপ উপজেলার ১নং মনপুরা ইউনিয়নের অন্তর্গত জনপ্রতিনিধি ইউপি চেয়ারম্যান আমানত উল্লাহ আলমগীর জানান, দ্বীপের ইউপি সদস্যদের নিয়ে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রেবেশন ও ইডকলের কর্মকর্তারা তালিকা করে ৮০০ হতদরিদ্র বাসিন্দার মধ্যে সোলার বিতরণ করছেন। এতে কুপি ও হারিকেনের বদলে সোলারের আলোয় আলোকিত হচ্ছে পুরো দ্বীপ।

তবে এই দ্বীপে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনতে হলে সোলার না পাওয়া দ্বীপে বসবাসরত অপর চার হাজার পরিবারের জন্য সোলারের ব্যবস্থা করতে হবে। একই দাবি করেন ওই দ্বীপের বর্তমান ইউপি সদস্য আবদুর রহমান ও ইউপি সদস্য মো. আমিন।

সরেজমিন চরকলাতলী গিয়ে দেখা গেছে, আবাসন প্রকল্পের কিছু ঘর, আবাসন বাজারের পাশে ঘর, কবির বাজারের পাশে অনেকে ঘরের টিনের চালার ওপর সদ্য বিতরণকৃত সোলার প্যানেল রয়েছে। এ ছাড়া চরে এক ঘর থেকে এক ঘরের দূরত্ব অনেক।

এ ব্যাপারে দ্বীপে সোলার বিতরণে দায়িত্বে থাকা ইডকলের কর্মকর্তা মো. কামাল হোসেন জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে চরকলাতলীতে অবস্থানরত বাসিন্দাদের শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে ৮০০ পরিবারের মধ্যে সোলার বিতরণ করা হচ্ছে। মুজিববর্ষে দ্বীপের বাসিন্দাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার।

এ ব্যাপারে দ্বীপে সোলার বিতরণের দায়িত্বে থাকা ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পনি লিমিটেডের আবাসিক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মো. নুরুল ইসলাম জানান, মুজিববর্ষে ওজোপাডিকোর আওতাধীন মনপুরা বিদ্যুৎ সরবরাহের অধীনস্থ চরকলাতলীতে সোলার দেয়া হয়। হোম সিস্টেমের মাধ্যমে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে ৮০০ জনের তালিকা করে সোলার বিতরণ করা হচ্ছে।

ওই দ্বীপে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে আরও সোলার দরকার আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, অবশ্যই আরও সোলার দরকার আছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হচ্ছে।

সোলারে আলোকিত দ্বীপ চরকলাতলী

 মনপুরা (ভোলা) প্রতিনিধি 
৩০ নভেম্বর ২০২০, ০১:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সোলারে আলোকিত দ্বীপ চরকলাতলী
ছবি: যুগান্তর

ভোলার বিচ্ছিন্ন মনপুরা উপজেলার মেঘনার বুকে জেগে ওঠা দ্বীপ চরকলাতলীর ৮০০ পরিবারের মধ্যে সোলার বিতরণ করা হয়েছে। এ চরদ্বীপ এখন আলোকিত হয়ে উঠেছে সোলারের আলোয়।

অন্ধকার এই দ্বীপে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রেবিউশন ও ইডকলের অর্থায়নে এ সোলার বিতরণ কার্যক্রম চালু রয়েছে। তবে স্থানীয় বাসিন্দা থেকে শুরু করে জনপ্রতিনিধিরা আরও চার হাজার সোলার দেয়ার দাবি করেন।

সদ্য সোলার পাওয়া কলাতলীর বাসিন্দা হাসিনা, মরিয়ম, ফারজানা, কাইয়ুম, জামাল, জান্নাতসহ শতাধিক বাসিন্দা জানান, গত দুই যুগ রাতে কুপি ও হারিকেন জ্বালাইছি। অহন আমাগোরে সোলার দিছে অনেক উপকার হইছে। আগে আন্ধারাই (অন্ধকার) ঘরে ভাত খাইছি। রাতে আন্ধারাইয়া (অন্ধকার) থাকছি। এহন রাতে লাইট জ্বালাইয়া ভাত খাই। রাতে পোলাপাইন পড়া-লেহা করতে পারে।

তবে কলাতলী দ্বীপ উপজেলার ১নং মনপুরা ইউনিয়নের অন্তর্গত জনপ্রতিনিধি ইউপি চেয়ারম্যান আমানত উল্লাহ আলমগীর জানান, দ্বীপের ইউপি সদস্যদের নিয়ে ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রেবেশন ও ইডকলের কর্মকর্তারা তালিকা করে ৮০০ হতদরিদ্র বাসিন্দার মধ্যে সোলার বিতরণ করছেন। এতে কুপি ও হারিকেনের বদলে সোলারের আলোয় আলোকিত হচ্ছে পুরো দ্বীপ।

তবে এই দ্বীপে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনতে হলে সোলার না পাওয়া দ্বীপে বসবাসরত অপর চার হাজার পরিবারের জন্য সোলারের ব্যবস্থা করতে হবে। একই দাবি করেন ওই দ্বীপের বর্তমান ইউপি সদস্য আবদুর রহমান ও ইউপি সদস্য মো. আমিন।

সরেজমিন চরকলাতলী গিয়ে দেখা গেছে, আবাসন প্রকল্পের কিছু ঘর, আবাসন বাজারের পাশে ঘর, কবির বাজারের পাশে অনেকে ঘরের টিনের চালার ওপর সদ্য বিতরণকৃত সোলার প্যানেল রয়েছে। এ ছাড়া চরে এক ঘর থেকে এক ঘরের দূরত্ব অনেক।

এ ব্যাপারে দ্বীপে সোলার বিতরণে দায়িত্বে থাকা ইডকলের কর্মকর্তা মো. কামাল হোসেন জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে চরকলাতলীতে অবস্থানরত বাসিন্দাদের শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে ৮০০ পরিবারের মধ্যে সোলার বিতরণ করা হচ্ছে। মুজিববর্ষে দ্বীপের বাসিন্দাদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উপহার।

এ ব্যাপারে দ্বীপে সোলার বিতরণের দায়িত্বে থাকা ওয়েস্টজোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পনি লিমিটেডের আবাসিক প্রকৌশলী (বিদ্যুৎ) মো. নুরুল ইসলাম জানান, মুজিববর্ষে ওজোপাডিকোর আওতাধীন মনপুরা বিদ্যুৎ সরবরাহের অধীনস্থ চরকলাতলীতে সোলার দেয়া হয়। হোম সিস্টেমের মাধ্যমে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে ৮০০ জনের তালিকা করে সোলার বিতরণ করা হচ্ছে।

ওই দ্বীপে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনার লক্ষ্যে আরও সোলার দরকার আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, অবশ্যই আরও সোলার দরকার আছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হচ্ছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন