উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নারীর আঙ্গুল কাটল বখাটেরা
jugantor
উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নারীর আঙ্গুল কাটল বখাটেরা

  ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি  

৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৮:৫১:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জের ছাতকে স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় মাকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে হাত ভেঙে একটি আঙ্গুল কেটে দিয়েছে বখাটেরা। শনিবার বিকালে এ ঘটনার পর রোববার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই নারীর দেবর।

গুরুতর আহত অবস্থায় ওই নারীকে প্রথমে কৈতক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে ডাক্তার জানিয়েছেন।

জানা যায়, ছাতক উপজেলার ছৈলা-আফজলাবাদ ইউনিয়নের শ্যামনগর গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী হাছান আহমদের স্ত্রী রুনা বেগম গোবিন্দগঞ্জে যাওয়ার জন্য তার স্কুলপড়ুয়া কন্যাকে সঙ্গে নিয়ে গত শনিবার বিকাল ৩টার দিকে বাড়ি থেকে বের হন। রাস্তার অপরপাশে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রামের আবদুল মন্নানের ছেলে আনোয়ার ও মৃত মসই আলীর ছেলে মিন্টু মিয়া স্কুলপড়ুয়া মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করে।

এর প্রতিবাদ করে উত্ত্যক্তকারীদের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন মা। এ সময় বখাটেদের সহযোগীরা ওই নারীর ওপর হামলা চালিয়ে ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। বখাটেরা ওই নারীকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে ডান হাতের হাড় ভেঙে একটি আঙ্গুল কেটে দিয়েছে। হামলায় গ্রামের রহমত আলীর ছেলে সুজন মিয়াও আহত হয়েছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত রোববার দুপুরে প্রবাসীর সহোদর কবি হোসাইন আহমদ বাদী হয়ে গ্রামের আবদুল মন্নানের ছেলে আনোয়ার হোসেনকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত রোববার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন থানার এসআই মুহাম্মদ শামছুল আরেফীন।

ছাতক থানার ওসি (অপারেশন) মিজানুর রহমান অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে জানান, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নারীর আঙ্গুল কাটল বখাটেরা

 ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি 
৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৬:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জের ছাতকে স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় মাকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে হাত ভেঙে একটি আঙ্গুল কেটে দিয়েছে বখাটেরা। শনিবার বিকালে এ ঘটনার পর রোববার থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই নারীর দেবর।

গুরুতর আহত অবস্থায় ওই নারীকে প্রথমে কৈতক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তার উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে ডাক্তার জানিয়েছেন।

জানা যায়, ছাতক উপজেলার ছৈলা-আফজলাবাদ ইউনিয়নের শ্যামনগর গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী হাছান আহমদের স্ত্রী রুনা বেগম গোবিন্দগঞ্জে যাওয়ার জন্য তার স্কুলপড়ুয়া কন্যাকে সঙ্গে নিয়ে গত শনিবার বিকাল ৩টার দিকে বাড়ি থেকে বের হন। রাস্তার অপরপাশে দাঁড়িয়ে থাকা গ্রামের আবদুল মন্নানের ছেলে আনোয়ার ও মৃত মসই আলীর ছেলে মিন্টু মিয়া স্কুলপড়ুয়া মেয়েটিকে উত্ত্যক্ত করে।

এর প্রতিবাদ করে উত্ত্যক্তকারীদের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন মা। এ সময় বখাটেদের সহযোগীরা ওই নারীর ওপর হামলা চালিয়ে ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। বখাটেরা ওই নারীকে টানাহেঁচড়া করে শ্লীলতাহানি ঘটিয়ে ডান হাতের হাড় ভেঙে একটি আঙ্গুল কেটে দিয়েছে। হামলায় গ্রামের রহমত আলীর ছেলে সুজন মিয়াও আহত হয়েছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

গত রোববার দুপুরে প্রবাসীর সহোদর কবি হোসাইন আহমদ বাদী হয়ে গ্রামের আবদুল মন্নানের ছেলে আনোয়ার হোসেনকে প্রধান আসামি করে ছয়জনের বিরুদ্ধে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত রোববার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন থানার এসআই মুহাম্মদ শামছুল আরেফীন।

ছাতক থানার ওসি (অপারেশন) মিজানুর রহমান অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে জানান, বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন