হবিগঞ্জে মামলা নিষ্পত্তির রেকর্ড
jugantor
হবিগঞ্জে মামলা নিষ্পত্তির রেকর্ড

  হবিগঞ্জ প্রতিনিধি  

০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:৫৪:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জে ২১ কার্যদিবসে রেকর্ড পরিমাণ ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করেছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। বিষয়টি বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থায় যুগান্তকারী মাইলফলক বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

চলতি বছরের ১ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত মাত্র ২১ কার্যদিবসে ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করতে গিয়ে ২৮১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। সবগুলো মামলাই নিষ্পত্তি করেন হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক সুদীপ্ত দাস।

আদালত সূত্রে জানা যায়, এ বিপুল সংখ্যক নিষ্পত্তিকৃত মামলার মধ্যে দীর্ঘদিনের ঝুলে থাকা বেশ কয়েকটি মামলাও রয়েছে। এর মধ্যে ২০০২ সালের একটি, ২০০৩ সালের একটি, ২০০৭ সালের একটি, ২০০৯ সালের একটি, ২০১০ সালের চারটি, ২০১১ সালের ছয়টি, ২০১২ সালের আটটি, ২০১৩ সালের দুইটি, ২০১৪ সালের দুইটি, ২০১৫ সালের ৯টি, ২০১৬ সালের একটি মামলা রয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দম ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌশলী (পিপি) অ্যাডভোকেট আবুল হাসিম মোল্লা মাসুম বলেন, এ আদালতে ২ হাজার ৬৪০টি মামলা রয়েছে। দিন দিন মামলার জট বেড়েই চলছিল। এ অবস্থায় মামলার জট কমাতে উদ্যোগ নেন বিচারক। তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে মাত্র এক মাসেই ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করেছেন। জেলায় আদালত প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখনও পর্যন্ত ২১ কার্যদিবসে কোনো একক আদালতে এ বিপুল সংখ্যক মামলার নিষ্পত্তি হয়নি।

হবিগঞ্জে মামলা নিষ্পত্তির রেকর্ড

 হবিগঞ্জ প্রতিনিধি 
০১ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জে ২১ কার্যদিবসে রেকর্ড পরিমাণ ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করেছে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। বিষয়টি বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থায় যুগান্তকারী মাইলফলক বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

চলতি বছরের ১ নভেম্বর থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত মাত্র ২১ কার্যদিবসে ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করতে গিয়ে ২৮১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়েছে। সবগুলো মামলাই নিষ্পত্তি করেন হবিগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক সুদীপ্ত দাস।

আদালত সূত্রে জানা যায়, এ বিপুল সংখ্যক নিষ্পত্তিকৃত মামলার মধ্যে দীর্ঘদিনের ঝুলে থাকা বেশ কয়েকটি মামলাও রয়েছে। এর মধ্যে ২০০২ সালের একটি, ২০০৩ সালের একটি, ২০০৭ সালের একটি, ২০০৯ সালের একটি, ২০১০ সালের চারটি, ২০১১ সালের ছয়টি, ২০১২ সালের আটটি, ২০১৩ সালের দুইটি, ২০১৪ সালের দুইটি, ২০১৫ সালের ৯টি, ২০১৬ সালের একটি মামলা রয়েছে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দম ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌশলী (পিপি) অ্যাডভোকেট আবুল হাসিম মোল্লা মাসুম বলেন, এ আদালতে ২ হাজার ৬৪০টি মামলা রয়েছে। দিন দিন মামলার জট বেড়েই চলছিল। এ অবস্থায় মামলার জট কমাতে উদ্যোগ নেন বিচারক। তিনি অক্লান্ত পরিশ্রম করে মাত্র এক মাসেই ২০৫টি মামলা নিষ্পত্তি করেছেন। জেলায় আদালত প্রতিষ্ঠার পর থেকে এখনও পর্যন্ত ২১ কার্যদিবসে কোনো একক আদালতে এ বিপুল সংখ্যক মামলার নিষ্পত্তি হয়নি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন