সুদের টাকার জন্য ট্রাকচালককে পিটিয়ে হত্যার পর ফেলে গেল বাড়িতে
jugantor
সুদের টাকার জন্য ট্রাকচালককে পিটিয়ে হত্যার পর ফেলে গেল বাড়িতে

  লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি  

০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:১৯:৪৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় সুদ কারবারিরা এক ট্রাকচালককে ধরে নিয়ে পিটিয়ে হত্যার পর লাশ বাড়িতে ফেলে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ট্রাকচালক বিল্লাল বিশ্বাস (৫৬) নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের মৃত ইশারত বিশ্বাসের ছেলে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে কালু বুড়া নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের মৃত ইশারত বিশ্বাসের ছেলে ট্রাক ড্রাইভার বিল্লাল বিশ্বাস (৫৬) প্রতিবেশী কুমড়ি গ্রামের জীবন বুড়ার ছেলে কালু বুড়ার কাছ থেকে ১ বছর আগে ৩ লাখ টাকা এবং ছয় মাস আগে কুমড়ি গ্রামের সুদ ব্যবসায়ী বাবু খানের কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ঋণ নেন। ইতোমধ্যে বিল্লাল বিশ্বাস ওই ঋণের টাকার সুদ বাবদ কালু বুড়াকে ৫০ হাজার টাকা এবং বাবু খানকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন।

বাবু খানকে দেড় লাখ টাকা দিয়ে বিল্লাল আর টাকা দিতে পারবে না বলে জানায়। এরপরও বাবু খান আরও ৬০ হাজার টাকার জন্য বিল্লাল বিশ্বাসকে বিভিন্ন সময় চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে গত বুধবার রাতে সুদ ব্যবসায়ী বাবু খান, তার ছেলে রুবেল ও রানসহ ৬-৭ জন বিল্লাল বিশ্বাসের বাড়িতে গিয়ে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে ৬০ হাজার টাকা দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। টাকা না দিলে তারা বিল্লালকে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে সুদ কারবারি বাবু খান ও তার দুই ছেলে রুবেল ও রানা মিলে বিল্লাল বিশ্বাসকে দিঘলিয়া বাজারের চৌরাস্তা এলাকা থেকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে বাবু খানের বাড়িতে আটক করে এবং বিল্লালকে ওই টাকার জন্য কিল-ঘুষি, লাথি মেরে ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে বাবু খানের দুই ছেলে রানা ও রুবেল ভ্যানযোগে বিল্লালের লাশ তার বাড়িতে নিয়ে স্বজনদের কাছে জানায়- বিল্লাল স্ট্রোক করে মারা গেছেন। এরপর তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

লোহাগড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

লোহাগড়া থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে কুমড়ি গ্রামের কালু বুড়া (৫০) নামের একজনকে আটক করা হয়েছে।

সুদের টাকার জন্য ট্রাকচালককে পিটিয়ে হত্যার পর ফেলে গেল বাড়িতে

 লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি 
০৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় সুদ কারবারিরা এক ট্রাকচালককে ধরে নিয়ে পিটিয়ে হত্যার পর লাশ বাড়িতে ফেলে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ট্রাকচালক বিল্লাল বিশ্বাস (৫৬) নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের মৃত ইশারত বিশ্বাসের ছেলে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে কালু বুড়া নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। 

নিহতের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, লোহাগড়া উপজেলার দিঘলিয়া গ্রামের মৃত ইশারত বিশ্বাসের ছেলে ট্রাক ড্রাইভার বিল্লাল বিশ্বাস (৫৬) প্রতিবেশী কুমড়ি গ্রামের জীবন বুড়ার ছেলে কালু বুড়ার কাছ থেকে ১ বছর আগে ৩ লাখ টাকা এবং ছয় মাস আগে কুমড়ি গ্রামের সুদ ব্যবসায়ী বাবু খানের কাছ থেকে ৬০ হাজার টাকা ঋণ নেন। ইতোমধ্যে বিল্লাল বিশ্বাস ওই ঋণের টাকার সুদ বাবদ কালু বুড়াকে ৫০ হাজার টাকা এবং বাবু খানকে ১ লাখ ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন।

বাবু খানকে দেড় লাখ টাকা দিয়ে বিল্লাল আর টাকা দিতে পারবে না বলে জানায়। এরপরও বাবু খান আরও  ৬০ হাজার টাকার জন্য বিল্লাল বিশ্বাসকে বিভিন্ন সময় চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে গত বুধবার রাতে সুদ ব্যবসায়ী বাবু খান, তার ছেলে রুবেল ও রানসহ ৬-৭ জন বিল্লাল বিশ্বাসের বাড়িতে গিয়ে বৃহস্পতিবার সকালের মধ্যে ৬০ হাজার টাকা দেয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। টাকা না দিলে তারা বিল্লালকে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যায়।

দাবিকৃত টাকা না দেয়ায় বৃহস্পতিবার সকালে সুদ কারবারি বাবু খান ও তার দুই ছেলে রুবেল ও রানা মিলে বিল্লাল বিশ্বাসকে দিঘলিয়া বাজারের চৌরাস্তা এলাকা থেকে জোরপূর্বক ধরে নিয়ে বাবু খানের বাড়িতে আটক করে এবং বিল্লালকে ওই টাকার জন্য কিল-ঘুষি, লাথি মেরে ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে বাবু খানের দুই ছেলে রানা ও রুবেল ভ্যানযোগে বিল্লালের লাশ তার বাড়িতে নিয়ে স্বজনদের কাছে জানায়- বিল্লাল স্ট্রোক করে মারা গেছেন। এরপর তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

লোহাগড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে এবং লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

লোহাগড়া থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার সন্দেহে কুমড়ি গ্রামের কালু বুড়া (৫০) নামের একজনকে আটক করা হয়েছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন