ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গরম দুধে ঝলসে দিল শিক্ষিকার মুখ
jugantor
ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গরম দুধে ঝলসে দিল শিক্ষিকার মুখ

  হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

০৮ ডিসেম্বর ২০২০, ১৮:৫২:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় স্থানীয় এক কিন্ডার গার্ডেনের শিক্ষিকাকে গণধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এলাকার ৬ যুবকের বিরুদ্ধে। ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তারা চুলা থেকে তার ওপর গরম দুধ ঢেলে দিয়ে তার চেহারা ঝলসে দেয়।

রোববার উপজেলার একটি গ্রামে এ ঘটনার পর সোমবার রাতে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই শিক্ষিকা।

জানা গেছে, গত রোববার এ শিক্ষিকাকে ঘরে একা পেয়ে ৬ যুবক তাকে গণধর্ষণের চেষ্টা করে। এতে ব্যর্থ হয়ে চুলা থেকে তার ওপর গরম দুধ ঢেলে দিয়ে তার চেহারা ঝলসে দেয়। এতে তিনি আহত হলে তাকে হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় শিক্ষিকা বাদী হয়ে সোমবার রাতে একই গ্রামের মৃত বাচ্চু মিয়ার ছেলে বেদন মিয়া (৫০), বাসার মিয়ার ছেলে ইমন মিয়া (২০) রাকিব ও শিমন মিয়া (১৯), রব মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন (১৮), সুলতান মিয়ার ছেলে নূরনবীর (২০) নাম উল্লেখ করে হোমনা থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষিকা যুগান্তর প্রতিনিধিকে বলেন, রোববার আমি রান্নাঘরে পাক করতে ছিলাম। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আমার প্রতিবেশী বেদন মিয়া ও ইমন মিয়া, শিমন মিয়া, আলমগীর নুরনবী ও রাকিব মিয়া ঘরে ঢুকে একা পেয়ে আমাকে পিছন থেকে ঝাপটে ধরে। তাদের সঙ্গে আমার ধস্তাধস্তি শুরু হয়। পরে তারা আমাকে মারধর করে আমার জামা কাপড় ছিঁড়ে ফেলে শ্লীলতাহানি করে ও আমাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। আমার চিৎকারে বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসলে চুলা থেকে গরম দুধের পাতিল আমার ওপর ছুঁড়ে মেরে পালিয়ে যায়। এতে আমার মুখ ঝলসে যায়।

হোমনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুর রসুল বলেন, শিক্ষিকার একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে গরম দুধে ঝলসে দিল শিক্ষিকার মুখ

 হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
০৮ ডিসেম্বর ২০২০, ০৬:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার হোমনায় স্থানীয় এক কিন্ডার গার্ডেনের শিক্ষিকাকে গণধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এলাকার ৬ যুবকের বিরুদ্ধে। ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তারা চুলা থেকে তার ওপর গরম দুধ ঢেলে দিয়ে তার চেহারা ঝলসে দেয়।

রোববার উপজেলার একটি গ্রামে এ ঘটনার পর সোমবার রাতে থানায় অভিযোগ দিয়েছেন ওই শিক্ষিকা।

জানা গেছে, গত রোববার এ শিক্ষিকাকে ঘরে একা পেয়ে ৬ যুবক তাকে গণধর্ষণের চেষ্টা করে। এতে ব্যর্থ হয়ে  চুলা থেকে তার ওপর গরম দুধ ঢেলে দিয়ে তার চেহারা ঝলসে দেয়। এতে তিনি আহত হলে তাকে হোমনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় শিক্ষিকা বাদী হয়ে সোমবার রাতে একই গ্রামের মৃত বাচ্চু মিয়ার ছেলে বেদন মিয়া (৫০), বাসার মিয়ার ছেলে ইমন মিয়া (২০) রাকিব ও শিমন মিয়া (১৯), রব মিয়ার ছেলে আলমগীর হোসেন (১৮), সুলতান মিয়ার ছেলে নূরনবীর (২০) নাম উল্লেখ করে হোমনা থানায় অভিযোগ দাখিল করেছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষিকা যুগান্তর প্রতিনিধিকে বলেন, রোববার আমি রান্নাঘরে পাক করতে ছিলাম। সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আমার প্রতিবেশী বেদন মিয়া ও ইমন মিয়া, শিমন মিয়া, আলমগীর নুরনবী ও রাকিব মিয়া ঘরে ঢুকে একা পেয়ে আমাকে পিছন থেকে ঝাপটে ধরে। তাদের সঙ্গে আমার ধস্তাধস্তি শুরু হয়। পরে তারা আমাকে মারধর করে আমার জামা কাপড় ছিঁড়ে ফেলে শ্লীলতাহানি করে ও আমাকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায়। আমার চিৎকারে বাড়ির লোকজন এগিয়ে আসলে চুলা থেকে গরম দুধের পাতিল আমার ওপর ছুঁড়ে মেরে পালিয়ে যায়। এতে আমার মুখ ঝলসে যায়।
 
হোমনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আমিনুর রসুল বলেন, শিক্ষিকার একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন