তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ, ৬০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার
jugantor
তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ, ৬০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

  নোয়াখালী প্রতিনিধি  

০৮ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:৪৩:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ধর্ষণের শিকার হয়েছে তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী। এ ঘটনায় আবদুল মতিন (৬০) নামে এক বৃদ্ধকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় উপজেলার চৌমুহনী বাজারের সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সামনে থেকে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজান পাঠান তাকে গ্রেফতার করেন। এর আগে সকালে বেগমগঞ্জ থানায় মামলা করেন ওই ছাত্রী মা।

আটক আবদুল মতিন উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের আমিনা বাড়ির মৃত আবদুর রবের ছেলে।

বেগমগঞ্জ থানার ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার জানান, শনিবার দুপুরে চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের একটি বাসায় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। বুধবার সকালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য (১৩) বছর বয়সী ওই স্কুলছাত্রীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

তিনি আরও জানান, ভিকটিমের মা নোয়াখালী বিসিকে চাকরি করে। সে তার মায়ের সঙ্গে নানীর বাসায় বসবাস করে। ঘটনার দিন দুপুরে তৃতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রী বাথরুমে গোসল করতে যায়। ওই সময় পাশের ঘরের আবদুল মতিন তাকে জোরপূর্বক বাথরুমে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে বিষয়টি সামাজিকভাবে মীমাংসা করার চেষ্টা চলে। পরে ভিকটিমের মা এ ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেফতার করে।

বুধবার ওই বৃদ্ধকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে বলে জানান ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার।

তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ, ৬০ বছরের বৃদ্ধ গ্রেফতার

 নোয়াখালী প্রতিনিধি 
০৮ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে ধর্ষণের শিকার হয়েছে তৃতীয় শ্রেণির এক স্কুলছাত্রী। এ ঘটনায় আবদুল মতিন (৬০) নামে এক বৃদ্ধকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টায় উপজেলার চৌমুহনী বাজারের সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সামনে থেকে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মিজান পাঠান তাকে গ্রেফতার করেন। এর আগে সকালে বেগমগঞ্জ থানায় মামলা করেন ওই ছাত্রী মা।

আটক আবদুল মতিন উপজেলার চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের আমিনা বাড়ির মৃত আবদুর রবের ছেলে। 

বেগমগঞ্জ থানার ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার জানান, শনিবার দুপুরে চৌমুহনী পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের একটি বাসায় এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। বুধবার সকালে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য (১৩) বছর বয়সী ওই স্কুলছাত্রীকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে।

তিনি আরও জানান, ভিকটিমের মা নোয়াখালী বিসিকে চাকরি করে। সে তার মায়ের সঙ্গে নানীর বাসায় বসবাস করে। ঘটনার দিন দুপুরে তৃতীয় শ্রেণির ওই ছাত্রী বাথরুমে গোসল করতে যায়। ওই সময় পাশের ঘরের আবদুল মতিন তাকে জোরপূর্বক বাথরুমে ধর্ষণ করে। একপর্যায়ে বিষয়টি সামাজিকভাবে মীমাংসা করার চেষ্টা চলে। পরে ভিকটিমের মা এ ঘটনায় বাদী হয়ে মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেফতার করে।

বুধবার ওই বৃদ্ধকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে বলে জানান ওসি মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকদার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন