উত্তরে কমছে কুয়াশা, বাড়ছে শীত
jugantor
উত্তরে কমছে কুয়াশা, বাড়ছে শীত

  দিনাজপুর প্রতিনিধি  

১২ ডিসেম্বর ২০২০, ২০:৪৩:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

কুয়াশার প্রভাব কমতে শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে শীতের প্রকোপ বাড়তে শুরু করেছে দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে। একদিনের ব্যবধানে দিনাজপুরে তাপমাত্রা কমেছে ১ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আর দেশের সর্বোত্তরের উপজেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা কমেছে ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঘন কুয়াশা কমে গিয়ে কোথাও কোথাও দু-এক ফোটা বৃষ্টিও পড়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন জানান, গত শুক্রবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৫ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিনের ব্যবধানে শনিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।

তিনি জানান, কুয়াশা কমতে শুরু করায় বিরাজমান উত্তরের হিমেল বাতাস প্রবাহিত হতে শুরু করেছে। আর এ কারণে কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। উত্তর জনপদে কোথাও কোথাও দু-এক ফোটা বৃষ্টিও হয়েছে বলে জানান তিনি।

তোফাজ্জল হোসেন জানান, বেশ কয়েক দিন ধরে হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত দেশের উত্তর জনপদে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের হিমেল বায়ু বিরাজমান আছে। কিন্তু ঘন কুয়াশার কারণে এ হিমেল বায়ু প্রবাহিত হতে পারেনি। ফলে শীতের তীব্রতা তেমন বৃদ্ধি পায়নি। কিন্তু শনিবার থেকে কুয়াশা কমতে শুরু করায় বিরাজমান উত্তর-পশ্চিমের হিমেল বায়ু প্রবাহিত হতে শুরু করেছে। এ কারণে এই জনপদে শীতের তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে। আগামীতে শীতের তীব্রতা আরও বাড়বে বলে আভাস দেন তিনি।

তিনি আরও আভাস দেন, আগামী ২০ ডিসেম্বরের দিকে দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে শৈত্যপ্রবাহের সম্ভাবনা রয়েছে।

দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে জেঁকে বসতে শুরু করেছে শীত। ঘন কুয়াশার পর শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেতে শুরু করায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে স্বাভাবিক জনজীবন। সন্ধ্যা হতে না হতেই শহরে কমছে জনসমাগম। শীতের প্রকোপ বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে শীতজনিত বিভিন্ন রোগ।

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. শাহ মো. ইসমাইল হোসেন জানান, হালকা গরমের পর শীতের প্রকোপ শুরু হওয়ায় বিভিন্ন শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে শিশু ও বয়োবৃদ্ধরা। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের যাতে শীত না লাগে-সে ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

উত্তরে কমছে কুয়াশা, বাড়ছে শীত

 দিনাজপুর প্রতিনিধি 
১২ ডিসেম্বর ২০২০, ০৮:৪৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুয়াশার প্রভাব কমতে শুরু করার সঙ্গে সঙ্গে শীতের প্রকোপ বাড়তে শুরু করেছে দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে। একদিনের ব্যবধানে দিনাজপুরে তাপমাত্রা কমেছে ১ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আর দেশের সর্বোত্তরের উপজেলা পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় তাপমাত্রা কমেছে ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ঘন কুয়াশা কমে গিয়ে কোথাও কোথাও দু-এক ফোটা বৃষ্টিও পড়েছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন জানান, গত শুক্রবার দিনাজপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১৫ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। একদিনের ব্যবধানে শনিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৪ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।

তিনি জানান, কুয়াশা কমতে শুরু করায় বিরাজমান উত্তরের হিমেল বাতাস প্রবাহিত হতে শুরু করেছে। আর এ কারণে কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। উত্তর জনপদে কোথাও কোথাও দু-এক ফোটা বৃষ্টিও হয়েছে বলে জানান তিনি।
 
তোফাজ্জল হোসেন জানান, বেশ কয়েক দিন ধরে হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত দেশের উত্তর জনপদে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের হিমেল বায়ু বিরাজমান আছে। কিন্তু ঘন কুয়াশার কারণে এ হিমেল বায়ু প্রবাহিত হতে পারেনি। ফলে শীতের তীব্রতা তেমন বৃদ্ধি পায়নি। কিন্তু শনিবার থেকে কুয়াশা কমতে শুরু করায় বিরাজমান উত্তর-পশ্চিমের হিমেল বায়ু প্রবাহিত হতে শুরু করেছে। এ কারণে এই জনপদে শীতের তীব্রতা বাড়তে শুরু করেছে। আগামীতে শীতের তীব্রতা আরও বাড়বে বলে আভাস দেন তিনি।

তিনি আরও আভাস দেন, আগামী ২০ ডিসেম্বরের দিকে দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে শৈত্যপ্রবাহের সম্ভাবনা রয়েছে।

দিনাজপুরসহ দেশের উত্তর জনপদে জেঁকে বসতে শুরু করেছে শীত। ঘন কুয়াশার পর শীতের তীব্রতা বৃদ্ধি পেতে শুরু করায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে স্বাভাবিক জনজীবন। সন্ধ্যা হতে না হতেই শহরে কমছে জনসমাগম। শীতের প্রকোপ বৃদ্ধির সঙ্গে বাড়ছে শীতজনিত বিভিন্ন রোগ।

দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা. শাহ মো. ইসমাইল হোসেন জানান, হালকা গরমের পর শীতের প্রকোপ শুরু হওয়ায় বিভিন্ন শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়েছে শিশু ও বয়োবৃদ্ধরা। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের যাতে শীত না লাগে-সে ব্যাপারে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন