ঠাকুরগাঁও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ১০ বছরের শিশুর মৃত্যু!
jugantor
ঠাকুরগাঁও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ১০ বছরের শিশুর মৃত্যু!

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  

১৩ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:২৬:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা, কর্তৃপক্ষের গাফিলতি ও অবহেলার কারণে ১০ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া রোগীর স্বজনদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে। রোববার হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

ওই শিশুটি ঠাকুরগাঁও শহরের আশ্রমপাড়া মহল্লার ফয়সাল মাহমুদের মেয়ে।

শিশুটির স্বজনরা জানান, ১০ মাসের শিশু ফালাককে রোববার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে শ্বাসজনিত সমস্যা নিয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল ৮টার দিকে শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশু মেয়েটির বাবা ফয়সালের অভিযোগ, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসক-নার্সদের অবহেলার কারণেই তার মেয়েকে হারাতে হল। সময়মতো অক্সিজেন পেলে মেয়েকে বাঁচানো যেত।

শিশু ওয়ার্ডের চিকিৎসক ডা. শাহজাহান নেওয়াজ বলেন, শিশুটির হার্টের সমস্যা ছিল। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে ভর্তি হয়। অক্সিজেন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ওয়ার্ডবয় অক্সিজেন আনতে গিয়েছিল। অনেক বাচ্চা ভর্তি থাকার কারণে অক্সিজেন দিতে ৫-১০ মিনিট দেরি হয়েছে। ইতোমধ্যে শিশুটি মারা গেছে।

ঠাকুরগাঁও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ১০ বছরের শিশুর মৃত্যু!

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 
১৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা, কর্তৃপক্ষের গাফিলতি ও  অবহেলার কারণে ১০ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া রোগীর স্বজনদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে। রোববার হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

ওই শিশুটি ঠাকুরগাঁও শহরের আশ্রমপাড়া মহল্লার ফয়সাল মাহমুদের মেয়ে।

শিশুটির স্বজনরা জানান, ১০ মাসের শিশু ফালাককে রোববার রাত ৯টা ৪৫ মিনিটে শ্বাসজনিত সমস্যা নিয়ে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন সকাল ৮টার দিকে শিশুটির মৃত্যু হয়। শিশু মেয়েটির বাবা ফয়সালের অভিযোগ, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসক-নার্সদের অবহেলার কারণেই তার মেয়েকে হারাতে হল। সময়মতো অক্সিজেন পেলে মেয়েকে বাঁচানো যেত। 

শিশু ওয়ার্ডের চিকিৎসক ডা. শাহজাহান নেওয়াজ বলেন, শিশুটির হার্টের সমস্যা ছিল। শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে ভর্তি হয়। অক্সিজেন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ওয়ার্ডবয় অক্সিজেন আনতে গিয়েছিল। অনেক বাচ্চা ভর্তি থাকার কারণে অক্সিজেন দিতে ৫-১০ মিনিট দেরি হয়েছে। ইতোমধ্যে শিশুটি মারা গেছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন