মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে মঞ্চ ছেড়ে নিচে বসলেন এমপি
jugantor
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে মঞ্চ ছেড়ে নিচে বসলেন এমপি

  বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি  

২০ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯:০৮:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে এমপি শিবলী সাদিক মঞ্চ ছেড়ে নিচে নেমে মুক্তিযোদ্ধাদের কাতারে বসেন।

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিকের আয়োজনে বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর ও ঘোড়াঘাট উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে নবাবগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ মাঠে রোববার বিজয় মাসের শুভেচ্ছা ও মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে বর্ণাঢ্য মঞ্চ সাজানো হলেও মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে এমপি শিবলী সাদিক মঞ্চ ছেড়ে নিচে নেমে মুক্তিযোদ্ধাদের কাতারে এসে বসেন।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইউনুস আলীর সভাপতিত্বে বিশাল সমাবেশে এমপি শিবলী সাদিক সব সময় চার উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানের চাকরিসহ যে কোনো সমস্যায় তিনি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন। বীরাঙ্গনাদের আবাসন ব্যবস্থা ও সব মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতিচারণ ভিডিও করে সংরক্ষণ করার আশ্বাস দেন।

মতবিনিময় সভায় বীরাঙ্গনা চিনু বালা তার জীবন কাহিনী বলেন- আমার নাম চিনু বালা। আমার তখন উঠতি বয়স, আমার বাবা ভাইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মারল আর আমাকে পাঁচ দিন আটকে রাখার পর ছেড়ে দিলওই সময় আমাকে কেউ কোনো জায়গা দিল না, কোনো রকমে ভারতে চলে যাইদেশ স্বাধীন হওয়ার পর অনেক কষ্টে দিন পার করছি, কেউ কোনো খোঁজ নেয় না। থাকার একটি জায়গা ও ঘর নেই- এই বলেই কাঁদতে থাকেন তিনি।

বীরাঙ্গনা মালতি বালা দু:সময়ের স্মৃতিচারণ করতে করতে জ্ঞান হারান। তার চোখের সামনে স্বামীকে মেরে ফেলে, তারপর তার ওপর চলে নির্যাতন। এ সময় উপস্থিত সব মুক্তিযোদ্ধা ও এমপি শিবলীসহ সবাই চোখের পানি মুছতে থাকেন।

এ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন- নবাবগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল মামুন, দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার ছাইদুর রহমান, হাকিমপুরের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী, বিরামপুরের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাবিবুর রহমান, ঘোড়াঘাটের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জগদীশ চন্দ্র, বীরাঙ্গনা মালতি রানী ও চিনু বালা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এসএম রবিউল ইসলাম, উজ্জ্বল আলী প্রমুখ।

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে মঞ্চ ছেড়ে নিচে বসলেন এমপি

 বিরামপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি 
২০ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে এমপি শিবলী সাদিক মঞ্চ ছেড়ে নিচে নেমে মুক্তিযোদ্ধাদের কাতারে বসেন।
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে এমপি শিবলী সাদিক মঞ্চ ছেড়ে নিচে নেমে মুক্তিযোদ্ধাদের কাতারে বসেন।

দিনাজপুর-৬ আসনের এমপি শিবলী সাদিকের আয়োজনে বিরামপুর, নবাবগঞ্জ, হাকিমপুর ও ঘোড়াঘাট উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে নবাবগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ মাঠে রোববার বিজয় মাসের শুভেচ্ছা ও মতবিনিময় সভা করা হয়েছে। এ অনুষ্ঠানে বর্ণাঢ্য মঞ্চ সাজানো হলেও মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান জানাতে এমপি শিবলী সাদিক মঞ্চ ছেড়ে নিচে নেমে মুক্তিযোদ্ধাদের কাতারে এসে বসেন।

যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ইউনুস আলীর সভাপতিত্বে বিশাল সমাবেশে এমপি শিবলী সাদিক সব সময় চার উপজেলা মুক্তিযোদ্ধাদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানের চাকরিসহ যে কোনো সমস্যায় তিনি সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন। বীরাঙ্গনাদের আবাসন ব্যবস্থা ও সব মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতিচারণ ভিডিও করে সংরক্ষণ করার আশ্বাস দেন।

মতবিনিময় সভায় বীরাঙ্গনা চিনু বালা তার জীবন কাহিনী বলেন- আমার নাম চিনু বালা। আমার তখন উঠতি বয়স, আমার বাবা ভাইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে মারল আর আমাকে পাঁচ দিন আটকে রাখার পর ছেড়ে দিলওই সময় আমাকে কেউ কোনো জায়গা দিল না, কোনো রকমে ভারতে চলে যাইদেশ স্বাধীন হওয়ার পর অনেক কষ্টে দিন পার করছি, কেউ কোনো খোঁজ নেয় না। থাকার একটি জায়গা ও ঘর নেই- এই বলেই কাঁদতে থাকেন তিনি।

বীরাঙ্গনা মালতি বালা দু:সময়ের স্মৃতিচারণ করতে করতে জ্ঞান হারান। তার চোখের সামনে স্বামীকে মেরে ফেলে, তারপর তার ওপর চলে নির্যাতন। এ সময় উপস্থিত সব মুক্তিযোদ্ধা ও এমপি শিবলীসহ সবাই চোখের পানি মুছতে থাকেন।

এ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন- নবাবগঞ্জের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল মামুন, দিনাজপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার ছাইদুর রহমান, হাকিমপুরের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার লিয়াকত আলী, বিরামপুরের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাবিবুর রহমান, ঘোড়াঘাটের সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জগদীশ চন্দ্র, বীরাঙ্গনা মালতি রানী ও চিনু বালা, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এসএম রবিউল ইসলাম, উজ্জ্বল আলী প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর
 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন