খুলনায় ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর নির্মাণকাজ পরিদর্শনে ডিসি
jugantor
খুলনায় ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর নির্মাণকাজ পরিদর্শনে ডিসি

  খুলনা ব্যুরো  

২৩ ডিসেম্বর ২০২০, ২৩:১৪:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিসি

মুজিববর্ষে খুলনার সব উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্যঘর নির্মাণকাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে।

বুধবার নির্মাণকাজ পরিদর্শনে দাকোপ উপজেলায় যান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন।

এ সময় তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ এ অঞ্চলের জন্য উপযোগী ও টেকসই ঘর নির্মাণকাজের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

খুলনা জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে নির্মাণকাজ পরিদর্শনকালে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত সারা দেশে গৃহ ও ভূমিহীন ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩ পরিবারকে পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন নির্দেশের পর এ উদ্যোগ নেয়া হয়। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। সে হিসেবে এ কর্মসূচিতে মোট ব্যয় হবে ১৫ হাজার ৮২ কোটি টাকা।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর বছরে অর্থাৎ মুজিববর্ষে এটিই হবে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার। আগামী মার্চের মধ্যে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

খুলনায় ভূমিহীন-গৃহহীনদের ঘর নির্মাণকাজ পরিদর্শনে ডিসি

 খুলনা ব্যুরো 
২৩ ডিসেম্বর ২০২০, ১১:১৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ডিসি
ছবি-যুগান্তর

মুজিববর্ষে খুলনার সব উপজেলায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য ঘর নির্মাণকাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। 

বুধবার নির্মাণকাজ পরিদর্শনে দাকোপ উপজেলায় যান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন। 

এ সময় তিনি প্রাকৃতিক দুর্যোগপ্রবণ এ অঞ্চলের জন্য উপযোগী ও টেকসই ঘর নির্মাণকাজের অগ্রগতিতে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

খুলনা জেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে নির্মাণকাজ পরিদর্শনকালে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত সারা দেশে গৃহ ও ভূমিহীন ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩ পরিবারকে পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন নির্দেশের পর এ উদ্যোগ নেয়া হয়। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। সে হিসেবে এ কর্মসূচিতে মোট ব্যয় হবে ১৫ হাজার ৮২ কোটি টাকা।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর বছরে অর্থাৎ মুজিববর্ষে এটিই হবে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার। আগামী মার্চের মধ্যে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : মুজিববর্ষ

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন