তুচ্ছ ঘটনায় গুলিবর্ষণ, ভাংচুর
jugantor
তুচ্ছ ঘটনায় গুলিবর্ষণ, ভাংচুর

  কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি  

২৪ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭:০৯:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ছালাভরা এলাকায় গভীর নলকূপের পানি ভাটায় ঢুকে ইট ভিজে যাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষকে হটাতে ফাঁকা গুলিবর্ষণ ও বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভাটা মালিক আবদুল মতিন বিশ্বাসের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে ইটভাটায় এসে শটগান দিয়ে ১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ এবং প্রতিপক্ষের বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ধানের বীজতলায় পানি দেয়ার সময় গভীর নলকূপের পানি ইঁদুরের গর্ত দিয়ে ভাটায় প্রবেশ করে ইট ভিজে যায়। এ বিষয় নিয়ে ভাটা মালিক আবদুল মতিন বিশ্বাস ও হোসেন আলীর মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এরপর তারা হোসেন আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। এর একপর্যায়ে ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ ঘটনাস্থলে এসে ১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে এবং ভাটার পাশে হোসেন আলীর বাড়িতে ঢুকে ঘরের জিনিসপত্র ভাংচুর করে।

দুর্গাপুর গ্রামের বৃদ্ধ মোবারক মণ্ডল (৬৫) বলেন, জোরে কথা শুনে ঘটনাস্থলে এসে গুলির শব্দ শুনেছি। এরপর ২০-২৫ জন বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করে ঘরের জিনিসপত্র ভেঙেছে।

হোসেন আলীর শ্যালক সেলিম উদ্দিন ওলি জানান, ইঁদুরের গর্ত দিয়ে ভাটায় পানি প্রবেশ নিয়ে ভাটার ম্যানেজার রহিম হোসেনের সঙ্গে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। ভাটার মালিক আব্দুল মতিন বিশ্বাস (পাতা মিয়া) ও পুলিশ এসে হোসেন আলীকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করেন। এ সময় ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ এসে গুলি করে। ২০-২৫ জনের একটি দল নিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে হোসেন আলী ও তার স্ত্রীকে মারধর করে এবং টিভি, ফ্রিজসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

এ ব্যাপারে ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ মোবাইল ফোনে জানান, তার বাবাকে মারধর করে পাঞ্জাবি ছিঁড়ে দিয়েছে। এরপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমার লাইসেন্সকৃত শটগান দিয়ে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করি।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত কালীগঞ্জ থানার এসআই সৈয়দ আলী বলেন, ঘটনাস্থলে এসে দুইপক্ষ ডেকে নিয়ে তিনি বিষয়টির মীমাংসার চেষ্টা করছিলেন। এর একপর্যায়ে অন্যপাশ থেকে জোরে শব্দ শুনতে পান। এটা গুলির শব্দ হতে পারে।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মুহা. মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, বিষয়টি শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। স্থানীয়দের মাধ্যমে তিনি জানতে পেরেছেন ভাটা মালিকের ছেলে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। এ ব্যাপারে এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব।

ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগের একটি লাইসেন্স করা অস্ত্র আছে বলে জানান ওসি।

তুচ্ছ ঘটনায় গুলিবর্ষণ, ভাংচুর

 কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি 
২৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৫:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ছালাভরা এলাকায় গভীর নলকূপের পানি ভাটায় ঢুকে ইট ভিজে যাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষকে হটাতে ফাঁকা গুলিবর্ষণ ও বাড়ি ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ভাটা মালিক আবদুল মতিন বিশ্বাসের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ উপজেলার দুর্গাপুর গ্রামে ইটভাটায় এসে শটগান দিয়ে ১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ এবং প্রতিপক্ষের বাড়ির আসবাবপত্র ভাংচুর করে।  

স্থানীয়রা জানান, বৃহস্পতিবার সকালে ধানের বীজতলায় পানি দেয়ার সময় গভীর নলকূপের পানি ইঁদুরের গর্ত দিয়ে ভাটায় প্রবেশ করে ইট ভিজে যায়। এ বিষয় নিয়ে ভাটা মালিক আবদুল মতিন বিশ্বাস ও হোসেন আলীর মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। এরপর তারা হোসেন আলীর ছেলে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। এর একপর্যায়ে ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ ঘটনাস্থলে এসে ১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে এবং ভাটার পাশে হোসেন আলীর বাড়িতে ঢুকে ঘরের জিনিসপত্র ভাংচুর করে। 

দুর্গাপুর গ্রামের বৃদ্ধ মোবারক মণ্ডল (৬৫) বলেন, জোরে কথা শুনে ঘটনাস্থলে এসে গুলির শব্দ শুনেছি। এরপর ২০-২৫ জন বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করে ঘরের জিনিসপত্র ভেঙেছে। 

হোসেন আলীর শ্যালক সেলিম উদ্দিন ওলি জানান, ইঁদুরের গর্ত দিয়ে ভাটায় পানি প্রবেশ নিয়ে ভাটার ম্যানেজার রহিম হোসেনের সঙ্গে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে রবিউল ইসলাম বাবুকে মারধর করে। ভাটার মালিক আব্দুল মতিন বিশ্বাস (পাতা মিয়া) ও পুলিশ এসে হোসেন আলীকে ডেকে নিয়ে বিষয়টি মীমাংসার চেষ্টা করেন। এ সময় ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ এসে গুলি করে। ২০-২৫ জনের একটি দল নিয়ে বাড়িতে প্রবেশ করে হোসেন আলী ও তার স্ত্রীকে মারধর করে এবং টিভি, ফ্রিজসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাংচুর করে।

এ ব্যাপারে ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগ মোবাইল ফোনে জানান, তার বাবাকে মারধর করে পাঞ্জাবি ছিঁড়ে দিয়েছে। এরপর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আমার লাইসেন্সকৃত শটগান দিয়ে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি করি।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত কালীগঞ্জ থানার এসআই সৈয়দ আলী বলেন, ঘটনাস্থলে এসে দুইপক্ষ ডেকে নিয়ে তিনি বিষয়টির মীমাংসার চেষ্টা করছিলেন। এর একপর্যায়ে অন্যপাশ থেকে জোরে শব্দ শুনতে পান। এটা গুলির শব্দ হতে পারে।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মুহা. মাহফুজুর রহমান মিয়া জানান, বিষয়টি শুনে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। স্থানীয়দের মাধ্যমে তিনি জানতে পেরেছেন ভাটা মালিকের ছেলে এক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। এ ব্যাপারে এখনও কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেব।

ভাটা মালিকের ছেলে ইমদাদুল হক সোহাগের একটি লাইসেন্স করা অস্ত্র আছে বলে জানান ওসি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন