চাটমোহরে পুকুরে কীটনাশক: ২০ লাখ টাকার মাছ নিধন
jugantor
চাটমোহরে পুকুরে কীটনাশক: ২০ লাখ টাকার মাছ নিধন

  চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি  

২৭ ডিসেম্বর ২০২০, ১৯:৩৩:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

রাতের আঁধারে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (কীটনাশক) দিয়ে মাছ নিধন করেছে দুর্বৃত্তরা।

পাবনার চাটমোহরে রাতের আঁধারে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (কীটনাশক) দিয়ে মাছ নিধন করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার গভীর রাতে উপজেলার নিমাইচড়া ইউনিয়নের চিনাভাতকুর গ্রামের মাধব হালদারের পুকুরে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ওই মাছ চাষী।

রোববার সরেজমিন জানা গেছে,বছরতিনেক আগে চিনাভাতকুর গ্রামের রবেন হালদারের ছেলে মাধব হালদার স্থানীয় রিয়াজ হোসেন এবং শুকুর আলী নামের দুই ভাইয়ের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকায় ৫ বিঘা আয়তনের একটি পুকুর লিজ নেন। এরপর দরিদ্র মাছ চাষী মাধব হালদার বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ শুরু করেন।

শনিবার গভীর রাতে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা ওই পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগ করে। রোববার সকালে ওই বিশালায়তনের পুকুরে বিপুল পরিমাণ মাছ ভাসতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন মাছ চাষী মাধব হালদার। পরে মাছগুলো জাল দিয়ে মেরে মাটিতে পুঁতে দেয়া হয়। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত ওই মৎস্য চাষী।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে ক্ষতিগ্রস্ত মাধব হালদার যুগান্তরকে বলেন,আমি গরিব মানুষ। ধারদেনা করে এবং এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ শুরু করেছিলাম। বিষ দেয়ায় আমার প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমার সাথে কারো কোনো শত্রুতা নেই। আমি পথে বসে গেলাম। এখন ঋণের টাকা পরিশোধ করবো কীভাবে?

ঘটনার ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খোকন যুগান্তরকে বলেন,মাধব হালদার নামের ওই মাছ চাষী সত্যিই দরিদ্র মানুষ। একজন গরিব মানুষের সাথে এমন শত্রুতা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাকে সরকারিভাবে সহযোগিতা করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

চাটমোহর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন,অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। বিষয়টি তদন্ত করে জড়িতদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

চাটমোহরে পুকুরে কীটনাশক: ২০ লাখ টাকার মাছ নিধন

 চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধি 
২৭ ডিসেম্বর ২০২০, ০৭:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রাতের আঁধারে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (কীটনাশক) দিয়ে মাছ নিধন করেছে দুর্বৃত্তরা।
রাতের আঁধারে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (কীটনাশক) দিয়ে মাছ নিধন করেছে দুর্বৃত্তরা।

পাবনার চাটমোহরে রাতের আঁধারে পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট (কীটনাশক) দিয়ে মাছ নিধন করেছে দুর্বৃত্তরা। শনিবার গভীর রাতে উপজেলার নিমাইচড়া ইউনিয়নের চিনাভাতকুর গ্রামের মাধব হালদারের পুকুরে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ওই মাছ চাষী।

 রোববার সরেজমিন জানা গেছে,বছরতিনেক আগে চিনাভাতকুর গ্রামের রবেন হালদারের ছেলে মাধব হালদার স্থানীয় রিয়াজ হোসেন এবং শুকুর আলী নামের দুই ভাইয়ের কাছ থেকে ৪ লাখ টাকায় ৫ বিঘা আয়তনের একটি পুকুর লিজ নেন। এরপর দরিদ্র মাছ চাষী মাধব হালদার বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ শুরু করেন।

 

শনিবার গভীর রাতে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা ওই পুকুরে গ্যাস ট্যাবলেট প্রয়োগ করে। রোববার সকালে ওই বিশালায়তনের পুকুরে বিপুল পরিমাণ মাছ ভাসতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন মাছ চাষী মাধব হালদার। পরে মাছগুলো জাল দিয়ে মেরে মাটিতে পুঁতে দেয়া হয়। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত ওই মৎস্য চাষী।

 

কান্নাজড়িত কণ্ঠে ক্ষতিগ্রস্ত মাধব হালদার যুগান্তরকে বলেন,আমি গরিব মানুষ। ধারদেনা করে এবং এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে মাছ চাষ শুরু করেছিলাম। বিষ দেয়ায় আমার প্রায় ২০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমার সাথে কারো কোনো শত্রুতা নেই। আমি পথে বসে গেলাম। এখন ঋণের টাকা পরিশোধ করবো কীভাবে?

 

ঘটনার ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান খোকন যুগান্তরকে বলেন,মাধব হালদার নামের ওই মাছ চাষী সত্যিই দরিদ্র মানুষ। একজন গরিব মানুষের সাথে এমন শত্রুতা কোনোভাবেই কাম্য নয়। তাকে সরকারিভাবে সহযোগিতা করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি।

 

চাটমোহর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন,অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। বিষয়টি তদন্ত করে জড়িতদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন