১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীর যৌতুকবিহীন বিয়ে!
jugantor
১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীর যৌতুকবিহীন বিয়ে!

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি  

২৮ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:৪৭:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁওয়ের রুহিয়ায় কোনো যৌতুক ছাড়াই ১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীর বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার বিকালে সদর উপজেলার রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চে আনন্দঘন পরিবেশে বড়দিনের উপহার হিসেবে এ বিয়ে সম্পন্ন হয়।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, যৌতুকের কুপ্রভাব ও বিধিনিষেধের বিষয়টি ঘরে ঘরে ছড়িয়ে দিতেই এ আয়োজন করা হয়েছে।

রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চের ধর্মপালক ফাদার অ্যান্তনি সেন ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের বিয়ে রেজিস্ট্রেশন করান।

এলাকাবাসী জানান, সকাল থেকে মানুষ ওই মাঠে জড়ো হতে থাকেন যৌতুকবিহীন বিয়ে দেখার জন্য। পরে ১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীকে বর-কনে সাজিয়ে আনা হয়। এ সময় তাদের দাম্পত্য জীবনের সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। এসব নবদম্পতির বাড়ি ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় জেলার বিভিন্ন উপজেলায়।

রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চের ধর্মপালক ফাদার অ্যান্তনি সেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কন্যা পাত্রস্থ করতে গিয়ে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের কোনো অভিভাবককে যৌতুকের দায় বহন করতে হয় না।

তিনি আরও বলেন, প্রতি বছর বড়দিনের ছুটিকে ঘিরে এ ধরনের বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীর যৌতুকবিহীন বিয়ে!

 ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি 
২৮ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঠাকুরগাঁওয়ের রুহিয়ায় কোনো যৌতুক ছাড়াই ১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীর বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। সোমবার বিকালে সদর উপজেলার রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চে আনন্দঘন পরিবেশে বড়দিনের উপহার হিসেবে এ বিয়ে সম্পন্ন হয়।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, যৌতুকের কুপ্রভাব ও বিধিনিষেধের বিষয়টি ঘরে ঘরে ছড়িয়ে দিতেই এ আয়োজন করা হয়েছে।

রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চের ধর্মপালক ফাদার অ্যান্তনি সেন ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের বিয়ে রেজিস্ট্রেশন করান।

এলাকাবাসী জানান, সকাল থেকে মানুষ ওই মাঠে জড়ো হতে থাকেন যৌতুকবিহীন বিয়ে দেখার জন্য। পরে ১৪ জোড়া তরুণ-তরুণীকে বর-কনে সাজিয়ে আনা হয়। এ সময় তাদের দাম্পত্য জীবনের সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। এসব নবদম্পতির বাড়ি ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় জেলার বিভিন্ন উপজেলায়। 

রুহিয়া ক্যাথলিক চার্চের ধর্মপালক ফাদার অ্যান্তনি সেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, কন্যা পাত্রস্থ করতে গিয়ে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের কোনো অভিভাবককে যৌতুকের দায় বহন করতে হয় না।

তিনি আরও বলেন, প্রতি বছর বড়দিনের ছুটিকে ঘিরে এ ধরনের বিয়ে অনুষ্ঠিত হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন