রাখাইন পল্লীতে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন
jugantor
রাখাইন পল্লীতে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন

  টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি   

৩১ ডিসেম্বর ২০২০, ২২:২৫:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের টেকনাফে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর ছুরিকাঘাতে চ খিং ওয়ান (৪৩) নামে ৩ সন্তানের জননী নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে উপজেলার হ্নীলা চৌধুরীপাড়া রাখাইন পল্লীতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘাতক স্বামী উক্য ওয়ানকে আটক করেছে।

প্রতিবেশীরা জানান, রাখাইন পল্লীর উছিংগ্যার মেয়ে চ খিং ওয়ান (৪৩) এবং স্বামী উক্য ওয়ানের সঙ্গে কথাকাটাকাটি ও ঝগড়ার একপর্যায়ে স্ত্রীর বুকের দুই পাশে, তলপেট ও হাতে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করলে তিনি রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন।

এ সময় তাদের এক সন্তান প্রতিবেশীদের সহায়তায় দ্রুত চিকিৎসার জন্য টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর ঘাতক স্বামী পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে টেকনাফ মডেল থানার এসআই রফিকুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে অভিযান চালিয়ে পানখালী পাহাড়ি ঢালায় জনৈক জাফরের পেয়ারা বাগান থেকে আত্মগোপনে থাকা ঘাতক স্বামীকে জনতার সহায়তায় আটক করা হয়।

রাখাইন পল্লীর সর্দার মাস্টার মংথিং অং জানান, ঘাতক স্বামী ছোটকালে মিয়ানমার থেকে এসে এ গ্রামে বসবাস করছিল এবং নিহত চ খিং ওয়ানকে বিয়ে করেন। এর আগেও ঘাতক স্বামী তার স্ত্রীকে দুইবার ছুরিকাঘাত ও গলাটিপে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছিল।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে ঘাতক স্বামীকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।

রাখাইন পল্লীতে স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী খুন

 টেকনাফ (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  
৩১ ডিসেম্বর ২০২০, ১০:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের টেকনাফে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্বামীর ছুরিকাঘাতে চ খিং ওয়ান (৪৩) নামে ৩ সন্তানের জননী নিহত হয়েছেন। 

বৃহস্পতিবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে উপজেলার হ্নীলা চৌধুরীপাড়া রাখাইন পল্লীতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘাতক স্বামী  উক্য ওয়ানকে আটক করেছে। 

প্রতিবেশীরা জানান, রাখাইন পল্লীর উছিংগ্যার মেয়ে চ খিং ওয়ান (৪৩) এবং স্বামী উক্য ওয়ানের সঙ্গে কথাকাটাকাটি ও ঝগড়ার একপর্যায়ে স্ত্রীর বুকের দুই পাশে, তলপেট ও হাতে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করলে তিনি রক্তাক্ত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। 

এ সময় তাদের এক সন্তান প্রতিবেশীদের সহায়তায় দ্রুত চিকিৎসার জন্য টেকনাফ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পর ঘাতক স্বামী পালিয়ে যায়। 

খবর পেয়ে টেকনাফ মডেল থানার এসআই রফিকুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে অভিযান চালিয়ে পানখালী পাহাড়ি ঢালায় জনৈক জাফরের পেয়ারা বাগান থেকে আত্মগোপনে থাকা ঘাতক স্বামীকে জনতার সহায়তায় আটক করা হয়। 

রাখাইন পল্লীর সর্দার মাস্টার মংথিং অং জানান, ঘাতক স্বামী ছোটকালে মিয়ানমার থেকে এসে এ গ্রামে বসবাস করছিল এবং নিহত চ খিং ওয়ানকে বিয়ে করেন। এর আগেও ঘাতক স্বামী তার স্ত্রীকে দুইবার ছুরিকাঘাত ও গলাটিপে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছিল।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি মো. হাফিজুর রহমান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে ঘাতক স্বামীকে আটক করা হয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলেও জানান তিনি।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন