নান্দাইলে বাবা-মাকে মারধর, সন্তান কারাগারে
jugantor
নান্দাইলে বাবা-মাকে মারধর, সন্তান কারাগারে

  নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৬ জানুয়ারি ২০২১, ২১:৩০:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিং

ময়মনসিংহের নান্দাইলে নেশার টাকা জোগাড় করে দিতে না পারায় এক অসহায় গরিব পিতা-মাতাকে মারধরের অভিযোগে জহিরুল ইসলাম নামে অভিযুক্ত সন্তানকে কারাগারে পাঠালেন ইউএনও মো. এরশাদ উদ্দিন।

অভিযোগে জানা গেছে, নান্দাইল উপজেলার চরবেতাগৈর ইউনিয়নের আব্দুল মোতালেব ও তার স্ত্রী তাদের নেশাখোর ছেলে জহিরুল ইসলাম কর্তৃক প্রহৃত হওয়ায় মঙ্গলবার নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর এক লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এ ঘটনায় গ্রামের ইউপি সদস্যসহ স্থানীয় এলাকাবাসী ওই বখাটে নেশাখোর ছেলেকে আটক করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ইউএনও এরশাদ উদ্দিন মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ এর ৬(৫) ধারা মোতাবেক নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান আকন্দকে নিয়মিত মামলার নেওয়ার জন্য আদেশ দেন এবং অভিযুক্ত ব্যক্তিকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে কারাগারে প্রেরণ করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এরশাদ উদ্দিন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বলেন, প্রত্যেক অভিভাবককে তাদের সন্তানের প্রতি নিয়মিত খোঁজখবর রাখা উচিত, প্রয়োজন হলে প্রশাসনের সহযোগিতা নেওয়া দরকার। তা না হলে মাদকের ছোবল থেকে তাদের রক্ষা করা সম্ভব নয়।

নান্দাইলে বাবা-মাকে মারধর, সন্তান কারাগারে

 নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৬ জানুয়ারি ২০২১, ০৯:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ময়মনসিং
ময়মনসিং

ময়মনসিংহের নান্দাইলে নেশার টাকা জোগাড় করে দিতে না পারায় এক অসহায় গরিব পিতা-মাতাকে মারধরের অভিযোগে জহিরুল ইসলাম নামে অভিযুক্ত সন্তানকে কারাগারে পাঠালেন ইউএনও মো. এরশাদ উদ্দিন।

 

অভিযোগে জানা গেছে, নান্দাইল উপজেলার চরবেতাগৈর ইউনিয়নের আব্দুল মোতালেব ও তার স্ত্রী তাদের নেশাখোর ছেলে জহিরুল ইসলাম কর্তৃক প্রহৃত হওয়ায় মঙ্গলবার নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর এক লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

 

এ ঘটনায় গ্রামের ইউপি সদস্যসহ স্থানীয় এলাকাবাসী ওই বখাটে নেশাখোর ছেলেকে আটক করে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ইউএনও এরশাদ উদ্দিন মোবাইল কোর্ট আইন ২০০৯ এর ৬(৫) ধারা মোতাবেক নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মিজানুর রহমান আকন্দকে নিয়মিত মামলার নেওয়ার জন্য আদেশ দেন এবং অভিযুক্ত ব্যক্তিকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে কারাগারে প্রেরণ করেন।

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার এরশাদ উদ্দিন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বলেন, প্রত্যেক অভিভাবককে তাদের সন্তানের প্রতি নিয়মিত খোঁজখবর রাখা উচিত, প্রয়োজন হলে প্রশাসনের সহযোগিতা নেওয়া দরকার। তা না হলে মাদকের ছোবল থেকে তাদের রক্ষা করা সম্ভব নয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন