বুড়িতিস্তা ব্যারেজের গেটের তালা ভেঙে পানি ছেড়েছে দুর্বৃত্তরা
jugantor
বুড়িতিস্তা ব্যারেজের গেটের তালা ভেঙে পানি ছেড়েছে দুর্বৃত্তরা

  জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি  

০৭ জানুয়ারি ২০২১, ২০:১২:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

বুড়িতিস্তা নদীর উপর নির্মিত সেচকাজে ব্যবহারের জন্য স্লুইচগেট

নীলফামারীর জলঢাকায় বুড়িতিস্তা নদীর উপর নির্মিত সেচকাজে ব্যবহারের জন্য স্লুইচগেটের তালা ভেঙে দিয়ে পানি ছেড়ে দিয়েছে এলাকার দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় উপসহকারী প্রকৌশলী-শাখা কর্মকর্তা কালীগঞ্জ পওর শাখা বাপাউবো জলঢাকা নীলফামারীর পক্ষে ইবনে সাইদ শাওন বাদী হয়ে ডিমলা থানায় অজ্ঞাত ১৪০-১৫০ ব্যক্তিকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণকৃত প্রায় ১২১৭ একর জমিতে নদীর পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে সেচ খাল সিস্টেমের পার্শবর্তী জমিতে সেচ প্রদান করা হয়ে থাকে। ষাটের দশক থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত প্রকল্পটির মাধ্যমে এলাকায় কৃষকদের জমিতে স্বল্প সার্ভিস চার্জে কৃষিজমিতে সেচ প্রদান করা হয়েছে।

২০১০ সালে ব্যারেজের উজানে জলাশয়ের লিজ দেওয়াকে কেন্দ্র করে উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতিতে মহামান্য হাইকোর্ট জলাশয়ের লিজের পর স্থগিত আদেশ প্রদান করায় সেচ কার্যক্রম বন্ধ থাকে। পরবর্তীতের লিজ বাতিলের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে মহামান্য হাইকোর্ট স্থগিত আদেশ প্রত্যাহার করেন। অভিযোগে জানা যায়, সরকারের শতবর্ষী ডেলটা প্ল্যান বাস্তাবায়ন ও কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকল্পটি পুনরায় চালু করার জন্য সরকারের উচ্চপর্যায় হতে নিদের্শনা দেয়া হয়।

ফলে গত ৩ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে প্রধান প্রকৌশলী, উত্তরাঞ্চল পানি উন্নয়ন বোর্ড জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ উপস্থিত থেকে ব্যারেজের সব গেট বন্ধ করে দে। ৫ নভেম্বর ২০২০ তারিখে ব্যারেজের গেট বন্ধ করতে গেলে কতিপয় দুষ্কৃতকারী বাধা দেয় এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা কর্মচারী আনসার সদস্যদের হুমকি প্রদান করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিমলা থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ করা হয়।

ঘটনার দিন ৫ জানুয়ারি রাত ১২টা ৩০ মিনিটে বুড়িতিস্তা ব্যারেজে পাহারার কাজে নিয়োজিত আনসার সদস্য মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যদের দেশীয় অস্ত্রে জিম্মি করে এবং ব্যারেজের নিরাপত্তার সিসি ক্যামেরা ছয়টির মধ্যে ৫টির সংযোগ বিছিন্ন করে দেয়। পরবর্তীতে দুর্বৃত্তরা ব্যারেজের ১৪টি গেটের মধ্যে ১২টি গেটের তালা ভেঙে জলাশয়ের পানি ছাড়ার জন্য গেট খুলে দেয়।

জলঢাকা কালীগঞ্জ বুড়িতিস্তা ব্যারেজে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার সদস্য মোতালেব হোসেন জানান, ঘটনার দিন আমাদের ক্যাম্পে চতুর্দিকে ঘিরে রেখে আমাদের দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুর্বৃত্তরা। পরে সিসি ক্যামেরার লাইন কেটে ব্যারেজের গেটের তালা ভেঙ্গে দিয়ে পানি ছেড়ে দেয়।

এ বিষয়ে উপবিভাগীয় প্রকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ড, নীলফামারী আব্দুল হান্নান প্রধান জানান, দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর সেচ প্রকল্পটি বন্ধ থাকায় ব্যারেজের উজানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণকৃত ১২১৭ একর রিজার্ভার/জলাশয়ে যারা অবৈধ কার্যক্রম বা চাষাবাদ করে আসছে তারা প্রকল্পটি পুনরায় চালু হতে দিতে চায় না। এজন্যই অবৈধ দখলদারেরা রাতের আঁধারে গেট খুলে দিচ্ছে এবং প্রকল্পের ক্ষতিসাধন করছে।

তিনি আরও বলেন, দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইতোমধ্যে ডিমলা থানায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ডিমলা থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, তদন্ত চলছে।

বুড়িতিস্তা ব্যারেজের গেটের তালা ভেঙে পানি ছেড়েছে দুর্বৃত্তরা

 জলঢাকা (নীলফামারী) প্রতিনিধি 
০৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বুড়িতিস্তা নদীর উপর নির্মিত সেচকাজে ব্যবহারের জন্য স্লুইচগেট
বুড়িতিস্তা নদীর উপর নির্মিত সেচকাজে ব্যবহারের জন্য স্লুইচগেট

নীলফামারীর জলঢাকায় বুড়িতিস্তা নদীর উপর নির্মিত সেচকাজে ব্যবহারের জন্য স্লুইচগেটের তালা ভেঙে দিয়ে পানি ছেড়ে দিয়েছে এলাকার দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় উপসহকারী প্রকৌশলী-শাখা কর্মকর্তা কালীগঞ্জ পওর শাখা বাপাউবো জলঢাকা নীলফামারীর পক্ষে ইবনে সাইদ শাওন বাদী হয়ে ডিমলা থানায় অজ্ঞাত ১৪০-১৫০ ব্যক্তিকে আসামি করে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

 

অভিযোগে জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণকৃত প্রায় ১২১৭ একর জমিতে নদীর পানি সংরক্ষণের মাধ্যমে সেচ খাল সিস্টেমের পার্শবর্তী জমিতে সেচ প্রদান করা হয়ে থাকে। ষাটের দশক থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত প্রকল্পটির মাধ্যমে এলাকায় কৃষকদের জমিতে স্বল্প সার্ভিস চার্জে কৃষিজমিতে সেচ প্রদান করা হয়েছে।

২০১০ সালে ব্যারেজের উজানে জলাশয়ের লিজ দেওয়াকে কেন্দ্র করে উদ্বুদ্ধ পরিস্থিতিতে মহামান্য হাইকোর্ট জলাশয়ের লিজের পর স্থগিত আদেশ প্রদান করায় সেচ কার্যক্রম বন্ধ থাকে। পরবর্তীতের লিজ বাতিলের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালে মহামান্য হাইকোর্ট স্থগিত আদেশ প্রত্যাহার করেন। অভিযোগে জানা যায়, সরকারের শতবর্ষী ডেলটা প্ল্যান বাস্তাবায়ন ও কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকল্পটি পুনরায় চালু করার জন্য সরকারের উচ্চপর্যায় হতে নিদের্শনা দেয়া হয়। 

ফলে গত ৩ ডিসেম্বর ২০২০ তারিখে প্রধান প্রকৌশলী, উত্তরাঞ্চল পানি উন্নয়ন বোর্ড জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ উপস্থিত থেকে ব্যারেজের সব গেট বন্ধ করে দে। ৫ নভেম্বর ২০২০ তারিখে ব্যারেজের গেট বন্ধ করতে গেলে কতিপয় দুষ্কৃতকারী বাধা দেয় এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা কর্মচারী আনসার সদস্যদের হুমকি প্রদান করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিমলা থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ করা হয়।

 

ঘটনার দিন ৫ জানুয়ারি রাত ১২টা ৩০ মিনিটে বুড়িতিস্তা ব্যারেজে পাহারার কাজে নিয়োজিত আনসার সদস্য মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা আনসার সদস্যদের দেশীয় অস্ত্রে জিম্মি করে এবং ব্যারেজের নিরাপত্তার সিসি ক্যামেরা ছয়টির মধ্যে ৫টির সংযোগ বিছিন্ন করে দেয়। পরবর্তীতে দুর্বৃত্তরা ব্যারেজের ১৪টি গেটের মধ্যে ১২টি গেটের তালা ভেঙে জলাশয়ের পানি ছাড়ার জন্য গেট খুলে দেয়।

 

জলঢাকা কালীগঞ্জ বুড়িতিস্তা ব্যারেজে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত আনসার সদস্য মোতালেব হোসেন জানান, ঘটনার দিন আমাদের ক্যাম্পে চতুর্দিকে ঘিরে রেখে আমাদের দেশীয় অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দুর্বৃত্তরা। পরে সিসি ক্যামেরার লাইন কেটে ব্যারেজের গেটের তালা ভেঙ্গে দিয়ে পানি ছেড়ে দেয়।

 

এ বিষয়ে উপবিভাগীয় প্রকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ড, নীলফামারী আব্দুল হান্নান প্রধান জানান, দীর্ঘ প্রায় ১০ বছর সেচ প্রকল্পটি বন্ধ থাকায় ব্যারেজের উজানে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণকৃত ১২১৭ একর রিজার্ভার/জলাশয়ে যারা অবৈধ কার্যক্রম বা চাষাবাদ করে আসছে তারা প্রকল্পটি পুনরায় চালু হতে দিতে চায় না। এজন্যই অবৈধ দখলদারেরা রাতের আঁধারে গেট খুলে দিচ্ছে এবং প্রকল্পের ক্ষতিসাধন করছে।

তিনি আরও বলেন, দুষ্কৃতকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ইতোমধ্যে ডিমলা থানায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে একটি অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে ডিমলা থানার ওসি সিরাজুল ইসলাম বলেন, তদন্ত চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন