স্থানীয় কিশোরকে গলা কেটে হত্যা করল রোহিঙ্গা কিশোর
jugantor
স্থানীয় কিশোরকে গলা কেটে হত্যা করল রোহিঙ্গা কিশোর

  উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

১০ জানুয়ারি ২০২১, ২২:০৬:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের উখিয়ায় মোহাম্মদ ফোরকান প্রকাশ কালু (১৪) নামে এক দোকানের কর্মচারীকে গলা কেটে হত্যা করেছে আয়াছ (১৫) নামের আরেক রোহিঙ্গা কর্মচারী।

রোববার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে উখিয়ার কোটবাজারের ডেকোরেশনের দোকান থেকে ওই কিশোরের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে উখিয়া থানা পুলিশ।

নিহত কালু উপজেলার রত্নপালং ইউনিয়নের তেলিপাড়া এলাকার বশির আহমেদের ছেলে। সে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় শাহ আলমের ডেকোরেশনের দোকানে কাজ করে আসছিল।

দোকান মালিক শাহ আলম বলেন, আয়াছকে আমি চিনি না। তাকে ফোরকান প্রকাশ কালুই কাজ করার জন্য এনেছে। শনিবার রাত ১২টার দিকে আমি তাদের দোকানে রেখে বাড়িতে চলে যাই। সকালে এসে কালুর লাশ দেখতে পাই। আয়াছ সেই থেকে পলাতক।

নিহত কালুর বাবা বশির আহমেদ বলেন, কে বা কারা কেন আমার ছেলেকে হত্যা করেছে, তা আমি এখনো জানি না। সকালে শুনতে পাই আমার ছেলে গলাকাটা অবস্থায় পড়ে আছে। এখন আমি ছেলে হত্যাকারীদের গ্রেফতার চাই।

উখিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী সালাউদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কে বা কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এছাড়াও পুলিশের বিশেষ ইউনিট সিআইডির একটি দল এ ঘটনা নিয়ে কাজ শুরু করছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

স্থানীয় কিশোরকে গলা কেটে হত্যা করল রোহিঙ্গা কিশোর

 উখিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
১০ জানুয়ারি ২০২১, ১০:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের উখিয়ায় মোহাম্মদ ফোরকান প্রকাশ কালু (১৪) নামে এক দোকানের কর্মচারীকে গলা কেটে হত্যা করেছে আয়াছ (১৫) নামের আরেক রোহিঙ্গা কর্মচারী।

রোববার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে উখিয়ার কোটবাজারের ডেকোরেশনের দোকান থেকে ওই কিশোরের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করে উখিয়া থানা পুলিশ।

নিহত কালু উপজেলার রত্নপালং ইউনিয়নের তেলিপাড়া এলাকার বশির আহমেদের ছেলে। সে দীর্ঘদিন ধরে স্থানীয় শাহ আলমের ডেকোরেশনের দোকানে কাজ করে আসছিল।

দোকান মালিক শাহ আলম বলেন, আয়াছকে আমি চিনি না। তাকে ফোরকান প্রকাশ কালুই কাজ করার জন্য এনেছে। শনিবার রাত ১২টার দিকে আমি তাদের দোকানে রেখে বাড়িতে চলে যাই। সকালে এসে কালুর লাশ দেখতে পাই। আয়াছ সেই থেকে পলাতক।

নিহত কালুর বাবা বশির আহমেদ বলেন, কে বা কারা কেন আমার ছেলেকে হত্যা করেছে, তা আমি এখনো জানি না। সকালে শুনতে পাই আমার ছেলে গলাকাটা অবস্থায় পড়ে আছে। এখন আমি ছেলে হত্যাকারীদের গ্রেফতার চাই।

উখিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী সালাউদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। কে বা কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এছাড়াও পুলিশের বিশেষ ইউনিট সিআইডির একটি দল এ ঘটনা নিয়ে কাজ শুরু করছে বলে তিনি জানিয়েছেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন