রূপগঞ্জে ২ কাউন্সিলর প্রার্থী গ্রেফতার
jugantor
রূপগঞ্জে ২ কাউন্সিলর প্রার্থী গ্রেফতার

  রূপগঞ্জ প্রতিনিধি  

১৩ জানুয়ারি ২০২১, ১৩:২২:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তারাব পৌরসভা নির্বাচন ঘিরে মঙ্গলবার দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পালটাধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং রুহুল আমিন ফরাজী পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা করেন। মামলায় দুই কাউন্সিলর প্রার্থীকেই গ্রেফতার করে রাতে থানায় রাখা হয়। বুধবার সকালে তাদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টায় শুরু হওয়া সংঘর্ষ পুলিশের সহযোগিতায় রাত সাড়ে ৭টায় নিয়ন্ত্রণে আসে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সংঘর্ষে এক কাউন্সিলর প্রার্থী তার প্রতিদ্বন্দ্বী কাউন্সিলর প্রার্থীর শ্বশুরের দুটি টেক্সটাইল কারখানায় হামলা চালিয়ে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে।

এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৩৫ জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় পিকআপভ্যান ও মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া হয়। তিনটি ব্যক্তিগত গাড়ি ও ছয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

৭ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর ও প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (ডালিম প্রতীক) এবং রুহুল আমিন ফরাজীর (উটপাখি প্রতীক) সমর্থকদের মধ্যে ওই সংঘর্ষ ঘটে।

পাল্টাপাল্টি মামলার পর কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন ও রুহুল আমিন ফরাজীকে রাতেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার তদন্ত কর্মকর্তা এইচএম জসিম উদ্দিন জানান, কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং রুহুল আমিন ফরাজী পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা করেছেন। তাদের দুজনকে বুধবার সকালে নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান বলেন, এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর দায়ে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

রূপগঞ্জে ২ কাউন্সিলর প্রার্থী গ্রেফতার

 রূপগঞ্জ প্রতিনিধি 
১৩ জানুয়ারি ২০২১, ০১:২২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে তারাব পৌরসভা নির্বাচন ঘিরে মঙ্গলবার দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর মধ্যে দফায় দফায় ধাওয়া-পালটাধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং রুহুল আমিন ফরাজী পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা করেন। মামলায় দুই কাউন্সিলর প্রার্থীকেই গ্রেফতার করে রাতে থানায় রাখা হয়। বুধবার সকালে তাদের নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টায় শুরু হওয়া সংঘর্ষ পুলিশের সহযোগিতায় রাত সাড়ে ৭টায় নিয়ন্ত্রণে আসে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সংঘর্ষে এক কাউন্সিলর প্রার্থী তার প্রতিদ্বন্দ্বী কাউন্সিলর প্রার্থীর শ্বশুরের দুটি টেক্সটাইল কারখানায় হামলা চালিয়ে কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করে।

এতে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৩৫ জন আহত হয়েছেন। সংঘর্ষের সময় পিকআপভ্যান ও মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া হয়। তিনটি ব্যক্তিগত গাড়ি ও ছয়টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

৭ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর ও প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (ডালিম প্রতীক) এবং রুহুল আমিন ফরাজীর (উটপাখি প্রতীক) সমর্থকদের মধ্যে ওই সংঘর্ষ ঘটে।

পাল্টাপাল্টি মামলার পর কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন ও রুহুল আমিন ফরাজীকে রাতেই গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে রূপগঞ্জ থানার তদন্ত কর্মকর্তা এইচএম জসিম উদ্দিন জানান, কাউন্সিলর প্রার্থী আনোয়ার হোসেন এবং রুহুল আমিন ফরাজী পাল্টাপাল্টি দুটি মামলা করেছেন। তাদের দুজনকে বুধবার সকালে নারায়ণগঞ্জ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

রূপগঞ্জ থানার ওসি মাহমুদুল হাসান বলেন, এলাকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোর দায়ে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন