৩ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে বাড়ি চলে গেলেন ভোটাররা
jugantor
৩ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে বাড়ি চলে গেলেন ভোটাররা

  কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি  

১৬ জানুয়ারি ২০২১, ১৫:২০:৩৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোট

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পৌরসভার ৮ নং নির্বাচনী কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট দিতে পারছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্মার্ট কার্ড দেখালেও ইভিএম বুথ থেকে তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে অনেকেই ভোট না দিয়ে বাড়িতে ফিরে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

ওই কেন্দ্রের একাধিক পুরুষ ও নারী ভোটার যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

তারা জানান, শনিবার সকাল ৮টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর বুথে প্রবেশ করে স্মার্ট কার্ড দেখালে দায়িত্বরত নির্বাচনী কর্মকর্তারা তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছেন। তাদের বলা হয়েছে, সিরিয়ালের স্লিপ নিয়ে না আসলে ভোট নেয়া হবে না। কিন্তু বাইরে এসেও কোনো সিরিয়ালের স্লিপ দেওয়ার ব্যক্তি খুঁজে তারা পাননি। অনেকেই ২/৩ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে ভোট দিতে না পেরে বাড়ি ফিরে গেছেন।

এ সময় ৮ নং কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মো. সামছুজ্জামান অরুন জানান, তিনিও ভোটারদের অভিযোগের ভিত্তিতে কেন্দ্রে এসেছেন বিষয়টি জানার জন্য।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মোহাম্মদ আলী যুগান্তরকে জানান, ভোটারদের অভিযোগ সঠিক নয়। তাদের ভোট দিতে সুবিধার জন্য সিরিয়ালের স্লিপ আনতে বলা হচ্ছে। স্মার্ট কার্ড দেখালে তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করা হচ্ছে না।

৩ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে বাড়ি চলে গেলেন ভোটাররা

 কুমারখালী (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি 
১৬ জানুয়ারি ২০২১, ০৩:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভোট
ছবি-যুগান্তর

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে পৌরসভার ৮ নং নির্বাচনী কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট দিতে পারছে না বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। স্মার্ট কার্ড দেখালেও ইভিএম বুথ থেকে তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করা হচ্ছে। ফলে অনেকেই ভোট না দিয়ে বাড়িতে ফিরে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

ওই কেন্দ্রের একাধিক পুরুষ ও নারী ভোটার যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। 

তারা জানান, শনিবার সকাল ৮টা থেকে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকার পর বুথে প্রবেশ করে স্মার্ট কার্ড দেখালে দায়িত্বরত নির্বাচনী কর্মকর্তারা তাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছেন। তাদের বলা হয়েছে, সিরিয়ালের স্লিপ নিয়ে না আসলে ভোট নেয়া হবে না। কিন্তু বাইরে এসেও কোনো সিরিয়ালের স্লিপ দেওয়ার ব্যক্তি খুঁজে তারা পাননি। অনেকেই ২/৩ ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে ভোট দিতে না পেরে বাড়ি ফিরে গেছেন।

এ সময় ৮ নং কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মো. সামছুজ্জামান অরুন জানান, তিনিও ভোটারদের অভিযোগের ভিত্তিতে কেন্দ্রে এসেছেন বিষয়টি জানার জন্য। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মোহাম্মদ আলী যুগান্তরকে জানান, ভোটারদের অভিযোগ সঠিক নয়। তাদের ভোট দিতে সুবিধার জন্য সিরিয়ালের স্লিপ আনতে বলা হচ্ছে। স্মার্ট কার্ড দেখালে তাদের সঙ্গে খারাপ আচরণ করা হচ্ছে না।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন