কমিটিতে বিবাহিত শিবির ছাত্রলীগ- অভিযোগ অস্বীকার ছাত্রদলের
jugantor
কমিটিতে বিবাহিত শিবির ছাত্রলীগ- অভিযোগ অস্বীকার ছাত্রদলের

  জুড়ী (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি   

১৯ জানুয়ারি ২০২১, ১৮:৪৯:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

১৫ জানুয়ারি জুড়ী উপজেলা ছাত্রদলের ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন করেছে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদল। এ কমিটির আহ্বায়কসহ চারজন বিবাহিত, কেউ শিবির, কেউ ছাত্রলীগ- এমন অভিযোগ ছিল দলীয় নেতাকর্মীদের।

এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে নবঘোষিত উপজেলা ছাত্রদল।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় জুড়ী কলেজ রোডের বিএনপি কার্যালয়ে উপজেলা ছাত্রদল আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিবাহিত অভিযোগে অভিযুক্ত উপজেলার ছাত্রদলের আহ্বায়ক মুজাহিদুল ইসলাম জয়দুল।

তিনি বলেন, আমার অজান্তে জেলা বিএনপি আমাকে জুড়ী উপজেলা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক করেছিল। আমি সেটা জানতে পেরে এবং ছাত্রদলের পদপ্রত্যাশী হওয়ায় বিএনপির পদ থেকে অব্যাহতি নেই। বিভিন্ন ফেক আইডি থেকে ফেসবুকে ও সাংবাদিকদের কাছে কে বা কারা আমার নামে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রচার করছে। আমি শিবির কর্মী নই, বিবাহিতও নই। আমি এসব মিথ্যা অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

কমিটির আরও কয়েকজন বিবাহিত, ছাত্রলীগ, শিবির করার অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, কমিটির সবার সম্পর্কে আমার ধারণা নেই। জেলা নেতারা জেনেশুনেই দিয়েছেন।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া কমিটির ১১নং যুগ্ম আহ্বায়ক আসম কিবরিয়ার বিয়ের পোশাক পরা ছবি ও আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি, মন্ত্রীর সঙ্গে ১৮নং সদস্য সায়মনের ছবি প্রসঙ্গে উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়কের কোনো ধারণা নেই বলে জানান।

এ সময় উপস্থিত আসম কিবরিয়া ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিটি তার নয় বলে জানান।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের জেলা কমিটির সদস্য সুহেল মিয়া, উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ফয়জুর রহমান, জুবের আহমদ, সাইফুল ইসলাম, বদরুল ইসলাম শান্ত, তরিকুল ইসলাম, সদস্য জাবেল মিয়া ও সাব্বির খান উপস্থিত ছিলেন।

কমিটিতে বিবাহিত শিবির ছাত্রলীগ- অভিযোগ অস্বীকার ছাত্রদলের

 জুড়ী (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি  
১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৬:৪৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

১৫ জানুয়ারি জুড়ী উপজেলা ছাত্রদলের ২১ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন করেছে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদল। এ কমিটির আহ্বায়কসহ চারজন বিবাহিত, কেউ শিবির, কেউ ছাত্রলীগ- এমন অভিযোগ ছিল দলীয় নেতাকর্মীদের।

এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হওয়ায় সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে নবঘোষিত উপজেলা ছাত্রদল।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় জুড়ী কলেজ রোডের বিএনপি কার্যালয়ে উপজেলা ছাত্রদল আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বিবাহিত অভিযোগে অভিযুক্ত উপজেলার ছাত্রদলের আহ্বায়ক মুজাহিদুল ইসলাম জয়দুল।

তিনি বলেন, আমার অজান্তে জেলা বিএনপি আমাকে জুড়ী উপজেলা বিএনপির ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক করেছিল। আমি সেটা জানতে পেরে এবং ছাত্রদলের পদপ্রত্যাশী হওয়ায় বিএনপির পদ থেকে অব্যাহতি নেই। বিভিন্ন ফেক আইডি থেকে ফেসবুকে ও সাংবাদিকদের কাছে কে বা কারা আমার নামে মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য প্রচার করছে। আমি শিবির কর্মী নই, বিবাহিতও নই। আমি এসব মিথ্যা অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

কমিটির আরও কয়েকজন বিবাহিত, ছাত্রলীগ, শিবির করার অভিযোগ সম্পর্কে তিনি বলেন, কমিটির সবার সম্পর্কে আমার ধারণা নেই। জেলা নেতারা জেনেশুনেই দিয়েছেন।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া কমিটির ১১নং যুগ্ম আহ্বায়ক আসম কিবরিয়ার বিয়ের পোশাক পরা ছবি ও আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি, মন্ত্রীর সঙ্গে ১৮নং সদস্য সায়মনের ছবি প্রসঙ্গে উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়কের কোনো ধারণা নেই বলে জানান।

এ সময় উপস্থিত আসম কিবরিয়া ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিটি তার নয় বলে জানান।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের জেলা কমিটির সদস্য সুহেল মিয়া, উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ফয়জুর রহমান, জুবের আহমদ, সাইফুল ইসলাম, বদরুল ইসলাম শান্ত, তরিকুল ইসলাম, সদস্য জাবেল মিয়া ও সাব্বির খান উপস্থিত ছিলেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন