বিয়ের ৩ মাস পর গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
jugantor
বিয়ের ৩ মাস পর গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

  লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি  

১৯ জানুয়ারি ২০২১, ২০:০৮:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নড়াইলের লোহাগড়ায় বিয়ের ৩ মাস পর শারমিন খানম (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় লাশ উদ্ধার করে মঙ্গলবার সকালে নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।

তবে নিহতের পরিবারের দাবি, তার স্বামী তাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে দিয়েছে। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন নিহতের স্বামী।

এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রামপুর গ্রামের লিটন শেখের মেয়ে শারমিন খানমের সঙ্গে প্রায় ৩ মাস আগে একই উপজেলার ইতনা গ্রামের বাবলু শেখের ছেলে রিকাত শেখের বিয়ে হয়।

বিয়ের পর থেকে কারণে-অকারণে শারমিনের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছিল রিকাত। সোমবার রিকাত শারমিনকে গালিগালাজ করে। এর জের ধরে বিকালে ঘরের মধ্যে শারমিনের ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়।

শারমিনের বাবা লিটন শেখ অভিযোগ করে বলেন, জামাই রিকাত শেখসহ তার পরিবারের লোকেরা আমার মেয়ে শারমিনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। পরে তার লাশ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে জামাইসহ তার পরিবারের লোকেরা বাড়ি থেকে পালিয়েছে।

এদিকে শারমিনের শ্বশুর বাবলু শেখ জানান, আমি বাড়ির পাশে নিজ দোকানে ছিলাম। সেখানে খবর পাই শারমিন ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

এ ব্যাপারে লোহাগড়া থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বোঝা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা। শুধুমাত্র মুখের বাম পাশে কাল দাগ ছাড়া নিহতের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

বিয়ের ৩ মাস পর গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

 লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি 
১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:০৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নড়াইলের লোহাগড়ায় বিয়ের ৩ মাস পর শারমিন খানম (২২) নামে এক গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সোমবার সন্ধ্যায় লাশ উদ্ধার করে মঙ্গলবার সকালে নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।

তবে নিহতের পরিবারের দাবি, তার স্বামী তাকে শ্বাসরোধে হত্যার পর লাশ ঝুলিয়ে দিয়েছে। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন নিহতের স্বামী।

এলাকাবাসী ও পরিবার সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার রামপুর গ্রামের লিটন শেখের মেয়ে শারমিন খানমের সঙ্গে প্রায় ৩ মাস আগে একই উপজেলার ইতনা গ্রামের বাবলু শেখের ছেলে রিকাত শেখের বিয়ে হয়। 

বিয়ের পর থেকে কারণে-অকারণে শারমিনের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছিল রিকাত। সোমবার রিকাত শারমিনকে গালিগালাজ করে। এর জের ধরে বিকালে ঘরের মধ্যে শারমিনের ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়। 

শারমিনের বাবা লিটন শেখ অভিযোগ করে বলেন, জামাই রিকাত শেখসহ তার পরিবারের লোকেরা আমার মেয়ে শারমিনকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। পরে তার লাশ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে জামাইসহ তার পরিবারের লোকেরা বাড়ি থেকে পালিয়েছে।

এদিকে শারমিনের শ্বশুর বাবলু শেখ জানান, আমি বাড়ির পাশে নিজ দোকানে ছিলাম। সেখানে খবর পাই শারমিন ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।  

এ ব্যাপারে লোহাগড়া থানার ওসি সৈয়দ আশিকুর রহমান জানান, ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে বোঝা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা। শুধুমাত্র মুখের বাম পাশে কাল দাগ ছাড়া নিহতের শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি। 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন