সাটুরিয়ার সরু রাস্তায় চলছে ‘গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স’
jugantor
সাটুরিয়ার সরু রাস্তায় চলছে ‘গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স’

  মতিউর রহমান, মানিকগঞ্জ  

২২ জানুয়ারি ২০২১, ০০:১৪:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের অনেক ইউনিয়নে রাস্তাঘাট সরু হওয়ার কারণে অসুস্থ রোগীকে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের হাসপাতালে নেয়া কষ্টকর।

এই বিষয়টি অনুধাবন করে স্বাস্থ্য সেবা তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে সিএজি চালিত তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করলেন সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে দুইটি অ্যাম্বুলেন্স কেনা হয়েছে। গ্রামীণ সরু রাস্তায় চলবে বলে নাম রাখা হয় ‘গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স’।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, সাটুরিয়া ঢাকার খুব কাছের একটি উপজেলা হলেও যতটা উন্নত মনে করেছিলাম বাস্তবে ততচা নয়। বিশেষ করে ইউনিয়নগুলো থেকে উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব একটা ভালো না, রাস্তাগুলোও সরু।

এ অবস্থায় এসব জায়গা থেকে মানুষ কীভাবে অসুস্থ রোগীকে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের হাসপাতালে নেবে। এরকম একটা সমস্যা থেকেই মাথায় ভাবনা কাজ করছিল কীভাবে আরেকটু সহজভাবে এরকম দূরবর্তী জায়গা থেকে রোগীদের বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের জন্য চিকিৎসা সেবাপ্রাপ্তি আরও সহজ করা যায়। এ জন্য এই পদক্ষেপ নেয়া।

তিনি আরও জানান, চিকিৎসাসেবা সহজ করার জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশার ইঞ্জিনের সঙ্গে কাস্টমাইজড বডি দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স বানানোর জন্য বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করি।

কোথাও কোন সাড়া না পেয়ে উত্তরা মটোরর্সের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারাও রাজি হয় সিএজিচালিত তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্স তৈরি করে দিতে।

এই কাজটি বাস্তবায়ন করতে মানিকগঞ্জ-৩ আসনের এমপি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌসের অনুপ্রেরণা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, উপজেলা পরিষদের সর্ব সম্মতিক্রমে আমরা উপজেলা পরিচালনা ও উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে দুইটি অ্যাম্বুলেন্স ক্রয় করি। উপজেলার যে কোনো ইউনিয়ন থেকে ফোন করলেই এই গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্সের সার্ভিস নিতে পারবেন। এতে সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী নিতে ৪০০ টাকা এবং মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিতে ৬০০ টাকা খরচ পড়বে।

সাটুরিয়ার সরু রাস্তায় চলছে ‘গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স’

 মতিউর রহমান, মানিকগঞ্জ 
২২ জানুয়ারি ২০২১, ১২:১৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মানিকগঞ্জের অনেক ইউনিয়নে রাস্তাঘাট সরু হওয়ার কারণে অসুস্থ রোগীকে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের হাসপাতালে নেয়া কষ্টকর।

এই বিষয়টি অনুধাবন করে স্বাস্থ্য সেবা তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে সিএজি চালিত তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করলেন সাটুরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম।

উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে দুইটি অ্যাম্বুলেন্স কেনা হয়েছে। গ্রামীণ সরু রাস্তায় চলবে বলে নাম রাখা হয় ‘গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্স’।
 
এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, সাটুরিয়া ঢাকার খুব কাছের একটি উপজেলা হলেও যতটা উন্নত মনে করেছিলাম বাস্তবে ততচা নয়। বিশেষ করে ইউনিয়নগুলো থেকে উপজেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা খুব একটা ভালো না, রাস্তাগুলোও সরু।

এ অবস্থায় এসব জায়গা থেকে মানুষ কীভাবে অসুস্থ রোগীকে বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের হাসপাতালে নেবে। এরকম একটা সমস্যা থেকেই মাথায় ভাবনা কাজ করছিল কীভাবে আরেকটু সহজভাবে এরকম দূরবর্তী জায়গা থেকে রোগীদের বিশেষ করে প্রসূতি মায়েদের জন্য চিকিৎসা সেবাপ্রাপ্তি আরও সহজ করা যায়। এ জন্য এই পদক্ষেপ নেয়া।

তিনি আরও জানান, চিকিৎসাসেবা সহজ করার জন্য সিএনজিচালিত অটোরিকশার ইঞ্জিনের সঙ্গে কাস্টমাইজড বডি দিয়ে অ্যাম্বুলেন্স বানানোর জন্য বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করি।

কোথাও কোন সাড়া না পেয়ে উত্তরা মটোরর্সের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারাও রাজি হয় সিএজিচালিত তিন চাকার অ্যাম্বুলেন্স তৈরি করে দিতে।

এই কাজটি বাস্তবায়ন করতে মানিকগঞ্জ-৩ আসনের এমপি স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও জেলা প্রশাসক এসএম ফেরদৌসের অনুপ্রেরণা রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এছাড়া তিনি আরও বলেন, উপজেলা পরিষদের সর্ব সম্মতিক্রমে আমরা উপজেলা পরিচালনা ও উন্নয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে দুইটি অ্যাম্বুলেন্স ক্রয় করি। উপজেলার যে কোনো ইউনিয়ন থেকে ফোন করলেই এই গ্রামীণ অ্যাম্বুলেন্সের সার্ভিস নিতে পারবেন। এতে সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রোগী নিতে ৪০০ টাকা এবং মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিতে ৬০০ টাকা খরচ পড়বে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন