লুটে নেয়া ১০ লাখ টাকার মধ্যে উদ্ধার ৩ লাখ
jugantor
লুটে নেয়া ১০ লাখ টাকার মধ্যে উদ্ধার ৩ লাখ

  ফরিদপুর ব্যুরো  

২৪ জানুয়ারি ২০২১, ২১:১৫:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

আলফাডাঙ্গায় বিকাশের টাকা বিতরণ কর্মকর্তাকে (ডিএসও) হাতুড়িপেটা করে প্রায় ১০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছিনতাই হওয়া টাকার মধ্যে তিন লাখ টাকাও উদ্ধার হয়েছে।

এ বিষয়ে রোববার দুপুরে ফরিদপুরের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) জামাল পাশা।

গ্রেফতার হওয়া দুইজন হলেন- আলফাডাঙ্গা উপজেলার বুড়াইচ ইউনিয়নের বুড়াইচ গ্রামের হানিফ শেখের ছেলে শামীম শেখ (৩৪) ও সদর ইউনিয়নের হিদাডাঙ্গা গ্রামের সরোয়ার মুন্সির ছেলে দিদার মুন্সি (৩২)।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা জানান, বিকাশের ডিএসও কামরুজ্জামান মিন্টু মোটরসাইকেলযোগে গত ১০ জানুয়ারি এজেন্টদের সঙ্গে টাকা লেনদেনের জন্য আলফাডাঙ্গা যান। পথিমধ্যে নওয়াপাড়া হাওড়ের ব্রিজের অদূরে চারজন দুর্বৃত্ত তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে প্রথমে হাতুড়িপেটা করে। এরপর চাকুর ভয় দেখিয়ে তার ব্যাগে রাখা ৯ লাখ ৯১ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের পরনের তিনটি জ্যাকেট, একটি হাফ হাতা সোয়েটার, দুইটি শীতের টুপি ও মিন্টুর মোটরসাইকেলের কাগজপত্র পানিপাড়া গ্রামের ব্রিজের নিচে ফেলে যায়। এ ঘটনায় বিকাশের ডিএসএস ফয়সাল আহমেদ বাদী হয়ে গত ১৩ জানুয়ারি আলফাডাঙ্গা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে গত শুক্রবার ঢাকা হতে প্রথমে শামীম শেখকে গ্রেফতারের পর তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী দিদারকে আটক করা হয়। তাদের দুইজনের নিকট হতে দেড় লাখ করে তিন লাখ টাকা উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় জড়িত আরও দুইজনকে গ্রেফতার ও বাকি টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (নগরকান্দা সার্কেল) এএফএম মহিউদ্দিন, ওসি ডিবি সুনিল কর্মকার, আলফাডাঙ্গা থানার ওসি মো. ওয়াহিদুজ্জামান, পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ফয়সাল আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

লুটে নেয়া ১০ লাখ টাকার মধ্যে উদ্ধার ৩ লাখ

 ফরিদপুর ব্যুরো 
২৪ জানুয়ারি ২০২১, ০৯:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আলফাডাঙ্গায় বিকাশের টাকা বিতরণ কর্মকর্তাকে (ডিএসও) হাতুড়িপেটা করে প্রায় ১০ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় জড়িত দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ছিনতাই হওয়া টাকার মধ্যে তিন লাখ টাকাও উদ্ধার হয়েছে।

এ বিষয়ে রোববার দুপুরে ফরিদপুরের পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) জামাল পাশা।

গ্রেফতার হওয়া দুইজন হলেন- আলফাডাঙ্গা উপজেলার বুড়াইচ ইউনিয়নের বুড়াইচ গ্রামের হানিফ শেখের ছেলে শামীম শেখ (৩৪) ও সদর ইউনিয়নের হিদাডাঙ্গা গ্রামের সরোয়ার মুন্সির ছেলে দিদার মুন্সি (৩২)।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জামাল পাশা জানান, বিকাশের ডিএসও কামরুজ্জামান মিন্টু মোটরসাইকেলযোগে গত ১০ জানুয়ারি এজেন্টদের সঙ্গে টাকা লেনদেনের জন্য আলফাডাঙ্গা যান। পথিমধ্যে নওয়াপাড়া হাওড়ের ব্রিজের অদূরে চারজন দুর্বৃত্ত তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে প্রথমে হাতুড়িপেটা করে। এরপর চাকুর ভয় দেখিয়ে তার ব্যাগে রাখা ৯ লাখ ৯১ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়।

ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় তাদের পরনের তিনটি জ্যাকেট, একটি হাফ হাতা সোয়েটার, দুইটি শীতের টুপি ও মিন্টুর মোটরসাইকেলের কাগজপত্র পানিপাড়া গ্রামের ব্রিজের নিচে ফেলে যায়। এ ঘটনায় বিকাশের ডিএসএস ফয়সাল আহমেদ বাদী হয়ে গত ১৩ জানুয়ারি আলফাডাঙ্গা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও জানান, আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে গত শুক্রবার ঢাকা হতে প্রথমে শামীম শেখকে গ্রেফতারের পর তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী দিদারকে আটক করা হয়। তাদের দুইজনের নিকট হতে দেড় লাখ করে তিন লাখ টাকা উদ্ধার হয়। এ ঘটনায় জড়িত আরও দুইজনকে গ্রেফতার ও বাকি টাকা উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (নগরকান্দা সার্কেল) এএফএম মহিউদ্দিন, ওসি ডিবি সুনিল কর্মকার, আলফাডাঙ্গা থানার ওসি মো. ওয়াহিদুজ্জামান, পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ফয়সাল আহমেদ উপস্থিত ছিলেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন