ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল ৩৮ কিশোর-কিশোরী
jugantor
ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল ৩৮ কিশোর-কিশোরী

  বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ২২:৩৯:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে দুই বছর কারাভোগের পর ৩৮ জন কিশোর-কিশোরীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ। সোমবার রাত ৭টার দিকে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে তাদের হস্তান্তর করে।

ফেরত আসাদের মধ্যে রয়েছে ২৮ জন কিশোরী ও ১০ জন কিশোর। তাদের প্রত্যেকের বয়স ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। তারা বিভিন্ন মেয়াদে ভারতে কারাভোগ করেছে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।

ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশি ডেপুটি হাইকমিশনার শামীমা ইয়াসমিন তাদের সঙ্গে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময়ে দালালের খপ্পরে পড়ে ভালো কাজের আশায় এরা অবৈধ পথে ভারতে যায়। তারা বিভিন্ন শহরে বাসা বাড়িতে কাজ করার সময় ভারতীয় পুলিশের হাতে আটক হয়। দুই থেকে চার বছর সাজা ভোগের পর আজ তারা দেশে ফিরে এসেছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ওসি আহসান হাবিব বলেন, গত বছরতিনেক আগে ভালো কাজের আশায় দালালদের খপ্পরে পড়ে অবৈধপথে তারা ভারতে যায়। ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে বাসাবাড়িতে কাজ করার সময় সে দেশের পুলিশ তাদের আটক করে। পরে আদালত তাদের অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ২ বছর কারাদণ্ড দিয়ে জেলে পাঠায়। সাজার মেয়াদ শেষে ভারতের রেসকিউ, লিলুয়া ও সুকন্যা ফাউন্ডেশন নামে এনজিও সংস্থা তাদের জেল থেকে ছাড়িয়ে নিজেদের শেল্টার হোমে রাখে।

ওসি বলেন, দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপে তাদের বিশেষ ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে দেশে ফেরত আনা হয়। ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের বেনাপোল পোর্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়। সেখান থেকে জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার নামে এনজিও সংস্থা ১৭ জন, মহিলা আইনজীবী সমিতি ৭ এবং মানবাধিকার সংস্থা রাইটস যশোর ১৪ জনকে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তরের জন্য যশোর শেল্টার হোমে নিয়ে যায়।

ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরল ৩৮ কিশোর-কিশোরী

 বেনাপোল (যশোর) প্রতিনিধি 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ভারতে দুই বছর কারাভোগের পর ৩৮ জন কিশোর-কিশোরীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে হস্তান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ। সোমবার রাত ৭টার দিকে ভারতের পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে তাদের হস্তান্তর করে।

ফেরত আসাদের মধ্যে রয়েছে ২৮ জন কিশোরী ও ১০ জন কিশোর। তাদের প্রত্যেকের বয়স ১০ থেকে ১৫ বছরের মধ্যে। তারা বিভিন্ন মেয়াদে ভারতে কারাভোগ করেছে বলে ভুক্তভোগীরা জানান।
 
ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশি ডেপুটি হাইকমিশনার শামীমা ইয়াসমিন তাদের সঙ্গে বাংলাদেশে এসেছেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন সময়ে দালালের খপ্পরে পড়ে ভালো কাজের আশায় এরা অবৈধ পথে ভারতে যায়। তারা বিভিন্ন শহরে বাসা বাড়িতে কাজ করার সময় ভারতীয় পুলিশের হাতে আটক হয়। দুই থেকে চার বছর সাজা ভোগের পর আজ  তারা দেশে ফিরে এসেছে।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ওসি আহসান হাবিব বলেন, গত বছরতিনেক আগে ভালো কাজের আশায় দালালদের খপ্পরে পড়ে অবৈধপথে তারা ভারতে যায়। ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলে বাসাবাড়িতে কাজ করার সময় সে দেশের পুলিশ তাদের আটক করে। পরে আদালত তাদের অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে ২ বছর কারাদণ্ড দিয়ে জেলে পাঠায়। সাজার মেয়াদ শেষে ভারতের রেসকিউ, লিলুয়া ও সুকন্যা ফাউন্ডেশন নামে এনজিও সংস্থা তাদের জেল থেকে ছাড়িয়ে নিজেদের শেল্টার হোমে রাখে।
 
ওসি বলেন, দুই দেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপে তাদের বিশেষ ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে দেশে ফেরত আনা হয়। ইমিগ্রেশনের আনুষ্ঠানিকতা শেষে তাদের বেনাপোল পোর্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়। সেখান থেকে জাস্টিস অ্যান্ড কেয়ার নামে এনজিও সংস্থা ১৭ জন, মহিলা আইনজীবী সমিতি ৭ এবং মানবাধিকার সংস্থা রাইটস যশোর ১৪ জনকে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তরের জন্য যশোর শেল্টার হোমে নিয়ে যায়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন