লতিফ সিদ্দিকীর সেই জমিতে হবে ‘শেখ রাসেল শিশুপার্ক’
jugantor
লতিফ সিদ্দিকীর সেই জমিতে হবে ‘শেখ রাসেল শিশুপার্ক’

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ২২:৪৬:১৪  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর দখল থেকে উদ্ধার করা জমিতে শিশুপার্ক করার উদ্যোগ নিয়েছে জেলা প্রশাসন। পার্কটি বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের নামে নামকরণ করা হবে।

এ লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন আগামী বুধবার জেলার বিভিন্ন স্তরের মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে।

রোববার শহরের জেলা সদর সড়কের আকুর টাকুরপাড়ায় সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর দখলে থাকা দুই বিঘা (৬৬ শতাংশ) জমি অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করে জেলা প্রশাসন। এ সময় ওই জমিতে লতিফ সিদ্দিকীর নির্মিত স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়।

উদ্ধার করার পর জমিটিতে লাল নিশান এবং এটি ‘ক’ তালিকাভুক্ত অর্পিত সম্পত্তি বলে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়।

জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গণি জানান, উদ্ধার করা জমিতে শেখ রাসেলের নামে একটি শিশুপার্ক করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বুধবার মতবিনিময় সভা করা হবে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ১৯৭২ সালে সরকারের কাছ থেকে ওই জমিটি ইজারা নেন। ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত তিনি ইজারার টাকাও পরিশোধ করেন। এরপর দীর্ঘসময় তিনি ইজারার টাকা পরিশোধ না করে সাব-জজ আদালতে মালিকানা দাবি করে মামলা করেন। মামলার রায় লতিফ সিদ্দিকীর পক্ষে যায়।

পরে জেলা জজ আদালতে সরকার পক্ষ আপিল করে, সেখানেও লতিফ সিদ্দিকী ডিক্রিপ্রাপ্ত হন। পরে সরকার পক্ষ হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করেন, সেখানে লতিফ সিদ্দিকী হেরে যান। পরে লতিফ সিদ্দিকী হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে ‘লিভ টু আপিল’ করেন। সেখানে সরকার পক্ষ ডিক্রিপ্রাপ্ত হন।

লতিফ সিদ্দিকীকে ওই জমির ওপর তার নির্মিত স্থাপনা অপসারণের জন্য গত ৩১ ডিসেম্বর প্রশাসন নোটিশ দেয়। নোটিশ পাওয়ার পরও তিনি স্থাপনা অপসারণ না করায় উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে জমি উদ্ধার করা হয়।

লতিফ সিদ্দিকীর সেই জমিতে হবে ‘শেখ রাসেল শিশুপার্ক’

 টাঙ্গাইল প্রতিনিধি 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১০:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে সাবেক মন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর দখল থেকে উদ্ধার করা জমিতে শিশুপার্ক করার উদ্যোগ নিয়েছে জেলা প্রশাসন। পার্কটি বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠপুত্র শেখ রাসেলের নামে নামকরণ করা হবে।

এ লক্ষ্যে জেলা প্রশাসন আগামী বুধবার জেলার বিভিন্ন স্তরের মানুষের সঙ্গে মতবিনিময় সভার আয়োজন করেছে।

রোববার শহরের জেলা সদর সড়কের আকুর টাকুরপাড়ায় সাবেক মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সাবেক সদস্য আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীর দখলে থাকা দুই বিঘা (৬৬ শতাংশ) জমি অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করে জেলা প্রশাসন। এ সময় ওই জমিতে লতিফ সিদ্দিকীর নির্মিত স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়।

উদ্ধার করার পর জমিটিতে লাল নিশান এবং এটি ‘ক’ তালিকাভুক্ত অর্পিত সম্পত্তি বলে সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়।

জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গণি জানান, উদ্ধার করা জমিতে শেখ রাসেলের নামে একটি শিশুপার্ক করার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বুধবার মতবিনিময় সভা করা হবে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ১৯৭২ সালে সরকারের কাছ থেকে ওই জমিটি ইজারা নেন। ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত তিনি ইজারার টাকাও পরিশোধ করেন। এরপর দীর্ঘসময় তিনি ইজারার টাকা পরিশোধ না করে সাব-জজ আদালতে মালিকানা দাবি করে মামলা করেন। মামলার রায় লতিফ সিদ্দিকীর পক্ষে যায়।

পরে জেলা জজ আদালতে সরকার পক্ষ আপিল করে, সেখানেও লতিফ সিদ্দিকী ডিক্রিপ্রাপ্ত হন। পরে সরকার পক্ষ হাইকোর্টে রিভিশন মামলা করেন, সেখানে লতিফ সিদ্দিকী হেরে যান। পরে লতিফ সিদ্দিকী হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে ‘লিভ টু আপিল’ করেন। সেখানে সরকার পক্ষ ডিক্রিপ্রাপ্ত হন।

লতিফ সিদ্দিকীকে ওই জমির ওপর তার নির্মিত স্থাপনা অপসারণের জন্য গত ৩১ ডিসেম্বর প্রশাসন নোটিশ দেয়। নোটিশ পাওয়ার পরও তিনি স্থাপনা অপসারণ না করায় উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে জমি উদ্ধার করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন