জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের নামে চেক ডিজঅনার মামলা
jugantor
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের নামে চেক ডিজঅনার মামলা

  যশোর ব্যুরো  

২৫ জানুয়ারি ২০২১, ২৩:০৩:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরে চেক ডিজঅনারের অভিযোগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সফিকুল ইসলামের নামে আদালতে মামলা হয়েছে। সোমবার যশোর শহরতলীর খোলাডাঙ্গার বাসিন্দা আসাদুল হক এ মামলা করেছেন।

যশোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইফুদ্দীন হোসাইন অভিযোগটি গ্রহণ করে আসামির প্রতি সমন জারির আদেশ দিয়েছেন।

সফিকুল ইসলাম যশোর কেশবপুরের বড়েঙ্গা গ্রামের মৃত কাদের মোড়লের ছেলে।

বাদীর অভিযোগ, আসামির সঙ্গে বাদীর চাকরির সুবাদে বন্ধুত্বের পরিচয়। সফিকুল ব্যক্তিগত প্রয়োজনে তার কাছে এক লাখ টাকা ধার চান। ২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি একটি চেকের মাধ্যমে সফিকুলকে এক লাখ টাকা ধার দেন। নির্ধারিত সময়ে ধারের টাকা পরিশোধ না করে ঘোরাতে থাকেন।

এক পর্যায়ে ২০২০ সালের ১০ আগস্ট আসামি তাকে এক লাখ টাকার চেক দেন। ওই বছরের ৮ নভেম্বর চেকটি নগদায়নের জন্য ব্যাংকে জমা দিলে পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় ডিজঅনার হয়। বিষয়টি লিগ্যাল নোটিশের মাধ্যমে আসামিকে জানানো হয়। তারপরও ধারের টাকা পরিশোধ না করায় তিনি চেক ডিজঅনারের মামলা করেছেন।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের নামে চেক ডিজঅনার মামলা

 যশোর ব্যুরো 
২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরে চেক ডিজঅনারের অভিযোগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) সহকারী পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক সফিকুল ইসলামের নামে আদালতে মামলা হয়েছে। সোমবার যশোর শহরতলীর খোলাডাঙ্গার বাসিন্দা আসাদুল হক এ মামলা করেছেন।

যশোরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইফুদ্দীন হোসাইন অভিযোগটি গ্রহণ করে আসামির প্রতি সমন জারির আদেশ দিয়েছেন।

সফিকুল ইসলাম যশোর কেশবপুরের বড়েঙ্গা গ্রামের মৃত কাদের মোড়লের ছেলে।

বাদীর অভিযোগ, আসামির সঙ্গে বাদীর চাকরির সুবাদে বন্ধুত্বের পরিচয়। সফিকুল ব্যক্তিগত প্রয়োজনে তার কাছে এক লাখ টাকা ধার চান। ২০১৯ সালের ২৪ জানুয়ারি একটি চেকের মাধ্যমে সফিকুলকে এক লাখ টাকা ধার দেন। নির্ধারিত সময়ে ধারের টাকা পরিশোধ না করে ঘোরাতে থাকেন।

এক পর্যায়ে ২০২০ সালের ১০ আগস্ট আসামি তাকে এক লাখ টাকার চেক দেন। ওই বছরের ৮ নভেম্বর চেকটি নগদায়নের জন্য ব্যাংকে জমা দিলে পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় ডিজঅনার হয়। বিষয়টি লিগ্যাল নোটিশের মাধ্যমে আসামিকে জানানো হয়। তারপরও ধারের টাকা পরিশোধ না করায় তিনি চেক ডিজঅনারের মামলা করেছেন।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন