পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতেই ভোলায় হামলা-সংঘর্ষ
jugantor
পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতেই ভোলায় হামলা-সংঘর্ষ

  ভোলা প্রতিনিধি  

২৭ জানুয়ারি ২০২১, ২০:১৮:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ভোলা

ভোলা পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতেই উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। বুধবার সকাল থেকে ১নং ওয়ার্ড এলাকায় দুই কাউন্সিলর সম্ভাব্য প্রার্থীর গ্রুপের মধ্যে দফায় দাফায় সংঘর্ষে অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।


এ পৌরসভার নির্বাচন হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার আগেই দোয়া ও মিলাদের দাওয়াতের নামে গণসংযোগে নেমেছেন প্রার্থীরা। ফলে এ নিয়েও এলাকায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।


গণসংযোগকালে বুধবারের হামলায় আহত সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থী জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক ও জুয়েলারি সমিতির সম্পাদক অবিনাশ নন্দী এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে বলেন, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তিনি ইলিশা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গণসংযোগে বের হলে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর মনজুর আলম ও তার বড়ভাই বিএনপি নেতা রাইসুল আলমের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। তাকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টাও করেন বলে অভিযোগ তোলা হয়।


অপরদিকে পৌর কাউনিন্সর মনজুর আলম জানান, তিনি এবারও কাউন্সিলর প্রার্থী। সকালে তিনি স্টেডিয়ামের পেছন দিকের এলাকায় গণসংযোগে গেলে হটাৎ শুনতে পান ইলিশা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তার কয়েক সমর্থকের সঙ্গে অবিনাশের সাথে আসা বহিরাগতদের কথাকাটাকাটি হচ্ছে। একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। খবর পেয়ে তিনি ও তার ভাই গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেন। পরে অবিনাশের নেতৃত্বে বেশ কিছু বহিরাগত তার বাড়ি আক্রমণের চেষ্টা করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে।


ভোলা থানার ওসি জানান, উভয় পক্ষকে সর্তক করা হয়েছে। এলাকায় বিশৃঙ্খলা করলে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান।
জেলা নির্বাচন অফিসার মো. আলাউদ্দিন আল মামুন জানান, নির্বাচনী পরিবেশ রক্ষায় সবাইকে সর্তক করার পাশাপাশি আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দৌলতখান ও বোরহানউদ্দিন পৌর নির্বাচন। দ্বিতীয় দফায় হবে ভোলা সদর পৌরসভা ও চরফ্যাশন পৌরসভা নির্বাচন।

পৌর নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতেই ভোলায় হামলা-সংঘর্ষ

 ভোলা প্রতিনিধি 
২৭ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ভোলা
ভোলা

ভোলা পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতেই উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। বুধবার সকাল থেকে ১নং ওয়ার্ড এলাকায় দুই কাউন্সিলর সম্ভাব্য প্রার্থীর গ্রুপের মধ্যে দফায় দাফায় সংঘর্ষে অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।


এ পৌরসভার নির্বাচন হবে ২৮ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার শেষ তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি। মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার আগেই দোয়া ও মিলাদের দাওয়াতের নামে গণসংযোগে নেমেছেন প্রার্থীরা। ফলে এ নিয়েও এলাকায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।


গণসংযোগকালে বুধবারের হামলায় আহত সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থী জেলা হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক ও জুয়েলারি সমিতির সম্পাদক অবিনাশ নন্দী এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত অভিযোগে বলেন, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে তিনি ইলিশা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় গণসংযোগে বের হলে বর্তমান পৌর কাউন্সিলর মনজুর আলম ও তার বড়ভাই বিএনপি নেতা রাইসুল আলমের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। তাকে প্রাণে মেরে ফেলার চেষ্টাও করেন বলে অভিযোগ তোলা হয়। 


অপরদিকে পৌর কাউনিন্সর মনজুর আলম জানান, তিনি এবারও কাউন্সিলর প্রার্থী। সকালে তিনি স্টেডিয়ামের পেছন দিকের এলাকায় গণসংযোগে গেলে হটাৎ শুনতে পান ইলিশা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তার কয়েক সমর্থকের সঙ্গে অবিনাশের সাথে আসা বহিরাগতদের কথাকাটাকাটি হচ্ছে। একপর্যায়ে হাতাহাতি হয়। খবর পেয়ে তিনি ও তার ভাই গিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেন। পরে অবিনাশের নেতৃত্বে বেশ কিছু বহিরাগত তার বাড়ি আক্রমণের চেষ্টা করে ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। 


ভোলা থানার ওসি জানান, উভয় পক্ষকে সর্তক করা হয়েছে। এলাকায় বিশৃঙ্খলা করলে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে বলেও জানান।
জেলা নির্বাচন অফিসার মো. আলাউদ্দিন আল মামুন জানান,  নির্বাচনী পরিবেশ রক্ষায় সবাইকে সর্তক করার পাশাপাশি আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দৌলতখান ও বোরহানউদ্দিন পৌর নির্বাচন। দ্বিতীয় দফায় হবে ভোলা সদর পৌরসভা ও চরফ্যাশন পৌরসভা নির্বাচন।
 

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন