শ্লীলতাহানীর চেষ্টাকালে ছাত্রীর কোপে যুবক আহত
jugantor
শ্লীলতাহানীর চেষ্টাকালে ছাত্রীর কোপে যুবক আহত

  নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

২৮ জানুয়ারি ২০২১, ০১:০৩:০০  |  অনলাইন সংস্করণ

কোপ

পিরোজপুরের নাজিরপুরে শ্লীলতা হানী করতে গিয়ে স্কুলছাত্রীর দায়ের কোপে মো. সিরাজুল ইসলাম (২৫) নামের এক যুবক গুরুতর আহত হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার সদর বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ওই যুবক উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাতকাছিমা গ্রামের আশ্রাফ আলীর ছেলে ও উপজেলা সদরের চরগলির কাপড়ের ব্যবসায়ী।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার রাত পৌনে ৮টার দিকে ওই ছাত্রীটি তাদের বসত ঘরের দোতালায় বসে বই পড়ছিলো। সিরাজুল ইসলাম তাদের ঘরে ঢুকে ওই ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। এ সময় ওই ছাত্রী ওই যুবকের হাত থেকে রক্ষা পেতে ডাক-চিৎকার দিলেও যুবক তাকে ছাড়ে না। তাই নিজেকে রক্ষা করতে ওই কক্ষে থাকা দা দিয়ে ওই যুবকের মাথায় কোপ দিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ওই যুবককে মারধর করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মো. মোস্তফা কায়সার জানান, ওই যুবকের মাথায় ধারালো কিছুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মাথায় পাঁচটি সেলাই দেয়া হয়েছে।

ওই বাজার সমিতির সভাপতি মো. পান্নু ফরাজী জানান, ঘটনাটি শুনেছি। ওই ছাত্রীর বাবা তাদের মান-ইজ্জতের কথা ভেবে কোনো মামলা দিতে রাজী হননি। তবে ওই ব্যবসায়ীকে ওই বাজারে ব্যবসা করতে দেয়া হবে না। তার (যুবক) পরিবার থেকে দাবি করা হচ্ছে ওই যুবক কিছুটা মানসিক প্রতিবন্ধী (পাগল)।

নাজিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাকারিয়া হোসেন জানান, বিষয়টি শুনেছি। তবে কোনো মামলা দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শ্লীলতাহানীর চেষ্টাকালে ছাত্রীর কোপে যুবক আহত

 নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
২৮ জানুয়ারি ২০২১, ০১:০৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
কোপ
প্রতীকী ছবি

পিরোজপুরের নাজিরপুরে শ্লীলতা হানী করতে গিয়ে স্কুলছাত্রীর দায়ের কোপে মো. সিরাজুল ইসলাম (২৫) নামের এক যুবক গুরুতর আহত হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার সদর বাজারে এ ঘটনা ঘটে। 

আহত ওই যুবক উপজেলার সদর ইউনিয়নের সাতকাছিমা গ্রামের আশ্রাফ আলীর ছেলে ও উপজেলা সদরের চরগলির কাপড়ের ব্যবসায়ী।

স্থানীয়রা জানায়, বুধবার রাত পৌনে ৮টার দিকে ওই ছাত্রীটি তাদের বসত ঘরের দোতালায় বসে বই পড়ছিলো। সিরাজুল ইসলাম তাদের ঘরে ঢুকে ওই ছাত্রীর শ্লীলতাহানীর চেষ্টা করে। এ সময় ওই ছাত্রী ওই যুবকের হাত থেকে রক্ষা পেতে ডাক-চিৎকার দিলেও যুবক তাকে ছাড়ে না। তাই নিজেকে রক্ষা করতে ওই কক্ষে থাকা দা দিয়ে ওই যুবকের মাথায় কোপ দিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে ওই যুবককে মারধর করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।
 
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মো. মোস্তফা কায়সার জানান, ওই যুবকের মাথায় ধারালো কিছুর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। মাথায় পাঁচটি সেলাই দেয়া হয়েছে।

ওই বাজার সমিতির সভাপতি মো. পান্নু ফরাজী জানান, ঘটনাটি শুনেছি। ওই ছাত্রীর বাবা তাদের মান-ইজ্জতের কথা ভেবে কোনো মামলা দিতে রাজী হননি। তবে ওই ব্যবসায়ীকে ওই বাজারে ব্যবসা করতে দেয়া হবে না। তার (যুবক) পরিবার থেকে দাবি করা হচ্ছে ওই যুবক কিছুটা মানসিক প্রতিবন্ধী (পাগল)।

নাজিরপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাকারিয়া হোসেন   জানান, বিষয়টি শুনেছি। তবে কোনো মামলা দায়ের হয়নি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন