রাতের আঁধারে ঘর তুলে জমি দখল
jugantor
রাতের আঁধারে ঘর তুলে জমি দখল

  আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি  

২৮ জানুয়ারি ২০২১, ১৯:৫৪:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ঘোপখালী গ্রামে রাতের আঁধারে ঘর তোলা ঘর

বরগুনার আমতলী উপজেলার ঘোপখালী গ্রামে রাতের আঁধারে ঘর তুলে আব্দুল হাকিম হাওলাদার ও তার লোকজন জমি দখল করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জমির মালিক মো. শাহ আলম গাজী এমন অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার শাহ আলম গাজী আমতলী থানায় আব্দুল হাকিম, বারেক ও ওহাবের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ওই দিন বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামের মো. শাহ আলম গাজী ও আব্দুল হাকিম হাওলাদারের সাথে ৭.২৩ একর জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ২০০২ সালে ওই জমি নিয়ে বরগুনার দেওয়ানি আদালতে মামলা হয়। ২০১৬ সালে ওই মামলায় রায় হয়। কিন্তু এ রায় উভয় পক্ষ তাদের পক্ষে হয়েছে বলে দাবি করেন। এ নিয়ে গত পাঁচ বছর ধরে দুইপক্ষের মধ্যে দফায় দফায় মামলা ও হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার রাতে ওই জমিতে আব্দুল হাকিম হাওলাদার, বারেক হাওলাদার ও ওহাব হাওলাদার অর্ধ শতাধিক লোকজন নিয়ে ঘর তুলে জমি দখল করে। ওই জমিতে তারা অস্থায়ী খড়ের ঘর ও কলাগাছ রোপণ করেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার শাহ আলম গাজী আমতলী থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। ওই দিন বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

শাহ আলম গাজী বলেন, আমার কবলাকৃত জমির ধান আব্দুল হাকিম হাওলাদার ও তার লোকজন কেটে নিয়েছে। ওই জমি আবার তারা দখলের জন্য রাতের আঁধারে ঘর তুলেছে। আমি আমার জমি উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

আব্দুল হাকিম হাওলাদার বলেন, ওই জমি আমার পৈতৃক সম্পত্তি। আমার জমিতে আমি ঘর তুলেছি। তবে রাতের আঁধারে ঘর তুলেছেন কেন? এমন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

আমতলী থানার এসআই জিএম শাহাবুল বলেন, ওসির নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রাতের আঁধারে ঘর তুলে জমি দখল

 আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি 
২৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৭:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
ঘোপখালী গ্রামে রাতের আঁধারে ঘর তোলা ঘর
ঘোপখালী গ্রামে রাতের আঁধারে ঘর তোলা ঘর

বরগুনার আমতলী উপজেলার ঘোপখালী গ্রামে রাতের আঁধারে ঘর তুলে আব্দুল হাকিম হাওলাদার ও তার লোকজন জমি দখল করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জমির মালিক মো. শাহ আলম গাজী এমন অভিযোগ করেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার শাহ আলম গাজী আমতলী থানায় আব্দুল হাকিম, বারেক ও ওহাবের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ওই দিন বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলা আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামের মো. শাহ আলম গাজী ও আব্দুল হাকিম হাওলাদারের সাথে ৭.২৩ একর জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। ২০০২ সালে ওই জমি নিয়ে বরগুনার দেওয়ানি আদালতে মামলা হয়। ২০১৬ সালে ওই মামলায় রায় হয়। কিন্তু এ রায় উভয় পক্ষ তাদের পক্ষে হয়েছে বলে দাবি করেন। এ নিয়ে গত পাঁচ বছর ধরে দুইপক্ষের মধ্যে দফায় দফায় মামলা ও হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার রাতে ওই জমিতে আব্দুল হাকিম হাওলাদার, বারেক হাওলাদার ও ওহাব হাওলাদার অর্ধ শতাধিক লোকজন নিয়ে ঘর তুলে জমি দখল করে। ওই জমিতে তারা অস্থায়ী খড়ের ঘর ও কলাগাছ রোপণ করেছে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার শাহ আলম গাজী আমতলী থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। ওই দিন বিকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

শাহ আলম গাজী বলেন, আমার কবলাকৃত জমির ধান আব্দুল হাকিম হাওলাদার ও তার লোকজন কেটে নিয়েছে। ওই জমি আবার তারা দখলের জন্য রাতের আঁধারে ঘর তুলেছে। আমি আমার জমি উদ্ধারের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

আব্দুল হাকিম হাওলাদার বলেন, ওই জমি আমার পৈতৃক সম্পত্তি। আমার জমিতে আমি ঘর তুলেছি। তবে রাতের আঁধারে ঘর তুলেছেন কেন? এমন প্রশ্নের কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

আমতলী থানার এসআই জিএম শাহাবুল বলেন, ওসির নির্দেশে ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তদন্তসাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন