স্মার্টফোন কিনতে ইউজিসির সফট লোন পাচ্ছেন ইবির ৫৬৮ শিক্ষার্থী
jugantor
স্মার্টফোন কিনতে ইউজিসির সফট লোন পাচ্ছেন ইবির ৫৬৮ শিক্ষার্থী

  ইবি প্রতিনিধি  

৩০ জানুয়ারি ২০২১, ১৯:০৬:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

স্মার্টফোন কিনতে ইউজিসির সফট লোন পাচ্ছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ৫৬৮ জন শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীদের আবেদনের পর যাচাই-বাছাই শেষে এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

শনিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ‘সফট লোন’ অনুমোদন কমিটির আহবায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান।

আগামী তিন-চার দিনের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের অ্যাকাউন্টে টাকা পৌঁছে যাবে। কোনো শিক্ষার্থীর অ্যাকাউন্টে টাকা না গেলে তাকে স্ব-স্ব বিভাগীয় সভাপতির মাধ্যমে অর্থ ও হিসাব শাখায় যোগাযোগ করতে হবে।

জানা যায়, প্রথম পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ হাজার ৪৭ শিক্ষার্থী সফট লোনের জন্য আবেদন করেন। এটি ইউজিসিতে পাঠালে তারা শর্তসাপেক্ষে আবারও আবেদনের সুযোগ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ বিভাগগুলোর মাধ্যমে আবারও আবেদনের অনুরোধ করে অনুমোদন কমিটি। এতে আবেদন করেন ৫৬৮ জন শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর কিংবা অধ্যয়নকালীন চারটি সমান কিস্তিতে বা এককালীন তারা এ ঋণ পরিশোধ করতে পারবেন। ঋণের সম্পূর্ণ অর্থ ফেরত না দেয়া পর্যন্ত কোনো শিক্ষার্থীর নামে ট্রান্সক্রিপ্ট ও সাময়িক বা মূল সনদ ইস্যু করা হবে না বলে জানা গেছে।

অনুমোদন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান বলেন, অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৫৬৮ জনকে অনুমোদন দিয়ে অর্থ ও হিসাব শাখায় জমা দেওয়া হয়েছে। ৩১ জানুয়ারির মধ্যে শিক্ষার্থীদের অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

স্মার্টফোন কিনতে ইউজিসির সফট লোন পাচ্ছেন ইবির ৫৬৮ শিক্ষার্থী

 ইবি প্রতিনিধি 
৩০ জানুয়ারি ২০২১, ০৭:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

স্মার্টফোন কিনতে ইউজিসির সফট লোন পাচ্ছেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ৫৬৮ জন শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীদের আবেদনের পর যাচাই-বাছাই শেষে এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। 

শনিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ‘সফট লোন’ অনুমোদন কমিটির আহবায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান।

আগামী তিন-চার দিনের মধ্যেই শিক্ষার্থীদের অ্যাকাউন্টে টাকা পৌঁছে যাবে। কোনো শিক্ষার্থীর অ্যাকাউন্টে টাকা না গেলে তাকে স্ব-স্ব বিভাগীয় সভাপতির মাধ্যমে অর্থ ও হিসাব শাখায় যোগাযোগ করতে হবে। 

জানা যায়, প্রথম পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ হাজার ৪৭ শিক্ষার্থী সফট লোনের জন্য আবেদন করেন। এটি ইউজিসিতে পাঠালে তারা শর্তসাপেক্ষে আবারও আবেদনের সুযোগ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাংক অ্যাকাউন্টসহ বিভাগগুলোর মাধ্যমে আবারও আবেদনের অনুরোধ করে অনুমোদন কমিটি। এতে আবেদন করেন ৫৬৮ জন শিক্ষার্থী। 

বিশ্ববিদ্যালয় খোলার পর কিংবা অধ্যয়নকালীন চারটি সমান কিস্তিতে বা এককালীন তারা এ ঋণ পরিশোধ করতে পারবেন। ঋণের সম্পূর্ণ অর্থ ফেরত না দেয়া পর্যন্ত কোনো শিক্ষার্থীর নামে ট্রান্সক্রিপ্ট ও সাময়িক বা মূল সনদ ইস্যু করা হবে না বলে জানা গেছে।

অনুমোদন কমিটির আহবায়ক প্রফেসর ড. মিজানুর রহমান বলেন, অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৫৬৮ জনকে অনুমোদন দিয়ে অর্থ ও হিসাব শাখায় জমা দেওয়া হয়েছে। ৩১ জানুয়ারির মধ্যে শিক্ষার্থীদের অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন