বিএসএফের অভিযোগে পাকা স্থাপনা ভেঙে দিল বিজিবি
jugantor
বিএসএফের অভিযোগে পাকা স্থাপনা ভেঙে দিল বিজিবি

  ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি  

৩১ জানুয়ারি ২০২১, ২০:৪৬:৪৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএসএফের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্মাণাধীন বাড়িঘরের পাকা স্থাপনা ভেঙে দিয়েছে বিজিবি। ঘটনাটি ঘটে রোববার দুপুরে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী খলিশাকোটাল সীমান্তে। আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করে বাড়ি নির্মাণ করায় বাড়িটি ভেঙে দেয়া হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার খলিশাকোটাল সীমান্তের আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার নং-৯৩৫ এর ২ এস পিলারের ৫০ গজের ভেতর ওই এলাকার মৃত নূরল মাস্টারের ছেলে সিরাজুল হক প্রায় তিন বছর পূর্বে একটি আধাপাকা বাড়ি নির্মাণ করেন। বিষয়টি বিএসএফের নজরে এলে ১৫ বিজিবি লালমনিরহাট শিমুলবাড়ী কোম্পানিকে লিখিত অভিযোগ করে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে দুপুর ১২টার দিকে বিজিবি ও বিএসএফ পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে উভয়পক্ষ তদন্ত করে নির্মাণাধীন আধাপাকা বাড়িটির একাংশ ভেঙে দেওয়া হয়।

অন্যদিকে একই এলাকার আন্তর্জাতিক সীমান্ত সংলগ্ন মোস্তফা, মোজাম্মেল, মোজাফ্ফর, আল আমিন, আনওয়ারুল ও শহিদুল বাড়ি নির্মাণ করলে তাদেরও জিরো লাইন থেকে বাড়ি ভেঙে ফেলার তাগিদ দেয় বিএসএফ।

বাড়ির মালিক সিরাজুল হক জানান, আমরা গরিব মানুষ। জমিজমা নেই। সামান্য জমিতে কষ্ট করে বাড়িঘর নির্মাণ করেছি। সেটা ভেঙে দেওয়া হলো। ক্ষতি হলো অনেক। আর যেন নতুন করে কোনো ক্ষতি না হয় সেই আবেদন করছি।

গৃহবধূ আসমাউল হোসনা ও হাসি জানান, আমাদের বিয়ে হয়েছে প্রায় ১০ বছর পূর্বে। কিন্তু কেউ আমাদের বাড়িঘর ভাঙতে বলে নাই। সীমান্তে আমরা দুই দেশের মানুষজন একই মহল্লায় বসবাস করছি। অন্য এলাকায় আমাদের জমিজমা নেই। বাড়িঘর ভেঙে দিলে আমরা যাব কোথায়?

নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সীমান্তবর্তী ৯নং ওয়ার্ড সদস্য এরশাদুল হক জানান, বিজিবির উপস্থিতিতে বাড়িটির কিছু অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

১৫ বিজিবি লালমনিরহাট শিমুলবাড়ী কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আব্দুল হক জানান, বিএসএফের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তসাপেক্ষে জিরো লাইনে বাড়িঘর নির্মাণ করায় কিছু অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

বিএসএফের অভিযোগে পাকা স্থাপনা ভেঙে দিল বিজিবি

 ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি 
৩১ জানুয়ারি ২০২১, ০৮:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএসএফের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্মাণাধীন বাড়িঘরের পাকা স্থাপনা ভেঙে দিয়েছে বিজিবি। ঘটনাটি ঘটে রোববার দুপুরে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী খলিশাকোটাল সীমান্তে। আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করে বাড়ি নির্মাণ করায় বাড়িটি ভেঙে দেয়া হয়। 

সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলার খলিশাকোটাল সীমান্তের আন্তর্জাতিক সীমান্ত পিলার নং-৯৩৫ এর ২ এস পিলারের ৫০ গজের ভেতর ওই এলাকার মৃত নূরল মাস্টারের ছেলে সিরাজুল হক প্রায় তিন বছর পূর্বে একটি আধাপাকা বাড়ি নির্মাণ করেন। বিষয়টি বিএসএফের নজরে এলে ১৫ বিজিবি লালমনিরহাট শিমুলবাড়ী কোম্পানিকে লিখিত অভিযোগ করে।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে দুপুর ১২টার দিকে বিজিবি ও বিএসএফ পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে উভয়পক্ষ তদন্ত করে নির্মাণাধীন আধাপাকা বাড়িটির একাংশ ভেঙে দেওয়া হয়।

অন্যদিকে একই এলাকার আন্তর্জাতিক সীমান্ত সংলগ্ন মোস্তফা, মোজাম্মেল, মোজাফ্ফর, আল আমিন, আনওয়ারুল ও শহিদুল বাড়ি নির্মাণ করলে তাদেরও জিরো লাইন থেকে বাড়ি ভেঙে ফেলার তাগিদ দেয় বিএসএফ।

বাড়ির মালিক সিরাজুল হক জানান, আমরা গরিব মানুষ। জমিজমা নেই। সামান্য জমিতে কষ্ট করে বাড়িঘর নির্মাণ করেছি। সেটা ভেঙে দেওয়া হলো। ক্ষতি হলো অনেক। আর যেন নতুন করে কোনো ক্ষতি না হয় সেই আবেদন করছি।

গৃহবধূ আসমাউল হোসনা ও হাসি জানান, আমাদের বিয়ে হয়েছে প্রায় ১০ বছর পূর্বে। কিন্তু কেউ আমাদের বাড়িঘর ভাঙতে বলে নাই। সীমান্তে আমরা দুই দেশের মানুষজন একই মহল্লায় বসবাস করছি। অন্য এলাকায় আমাদের জমিজমা নেই। বাড়িঘর ভেঙে দিলে আমরা যাব কোথায়?

নাওডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের সীমান্তবর্তী ৯নং ওয়ার্ড সদস্য এরশাদুল হক জানান, বিজিবির উপস্থিতিতে বাড়িটির কিছু অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

১৫ বিজিবি লালমনিরহাট শিমুলবাড়ী কোম্পানি কমান্ডার সুবেদার আব্দুল হক জানান, বিএসএফের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তসাপেক্ষে জিরো লাইনে বাড়িঘর নির্মাণ করায় কিছু অংশ ভেঙে দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন