আমতলীতে সড়কে প্রাণ গেল অন্তঃসত্ত্বা নারী
jugantor
আমতলীতে সড়কে প্রাণ গেল অন্তঃসত্ত্বা নারী

  আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি  

০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫:১১:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

সড়ক দুর্ঘটনা

বরগুনার আমতলী উপজেলায় বাসচাপায় অন্তঃসত্ত্বা নারী রেহেনা বেগম (৩৫) নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন শিশুসহ তিনজন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের শাখারিয়া বাসস্ট্যান্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রেহেনা বেগম আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের কালীবাড়ি গ্রামের রাজমিস্ত্রি আফজাল হোসেন বেপারির স্ত্রী।

জানা গেছে, অন্তঃসত্ত্বা রেহেনা বেগম তার শিশুকন্যা রিয়া মনিকে (৪) নিয়ে চাচি শাশুড়ি পিয়ারা বেগমের সঙ্গে পটুয়াখালীর ফুলতলা গ্রামে বেড়াতে যাচ্ছিলেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে বাড়ির সামনে থেকে মেহেলী ক্ল্যাসিক নামে বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১১-০১০৮) ওঠেন। ওই বাসটি পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের শাখারিয়া নামক স্ট্যান্ডে যাত্রী ওঠানো ও নামানোর জন্য অবস্থান করছিল।

এ সময় নিশাত পরিবহনের বাসটি স্বজোরে ক্ল্যাসিক বাসে ধাক্কা দেয়। এতে যাত্রী রেহেনা বেগম, তার শিশুকন্যা রিয়া মনি, চাচি শাশুড়ি পিয়ারা বেগম (৬০) ও নাতনি খাদিজা আক্তার (৫) সড়কে ছিটকে পড়ে যায়। এতে শিশুকন্যাসহ পিয়ারা বেগম ও তার নাতনি খাদিজা গুরুতর আহত হন।

ঘটনাস্থলেই অন্তঃসত্ত্বা রেহেনা বেগম নিহত হন। গুরুতর আহত রিয়া মনি, খাদিজা ও পিয়ারা বেগমকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ঘাতক বাস মেহেলী ক্ল্যাসিক পরিবহনকে আটক এবং নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। ঘটনার পর পরই চালক ও হেলপার পালিয়ে গেছে।

অন্যদিকে নিশাত পরিবহন বাসটিও দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

নিহতের দেবর মো. জাফর বেপারি বলেন, গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে ভাবি রেহেনা বেগম নিহত হন। শিশুকন্যা রিয়া মনি, খাদিজা ও পিয়ারা বেগম গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছি এবং ঘাতক বাসটি আটক করা হয়েছে।

আমতলীতে সড়কে প্রাণ গেল অন্তঃসত্ত্বা নারী

 আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি 
০২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৩:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সড়ক দুর্ঘটনা
ফাইল ছবি

বরগুনার আমতলী উপজেলায় বাসচাপায় অন্তঃসত্ত্বা নারী রেহেনা বেগম (৩৫) নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন শিশুসহ তিনজন।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের শাখারিয়া বাসস্ট্যান্ডে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রেহেনা বেগম আমতলী উপজেলার চাওড়া ইউনিয়নের কালীবাড়ি গ্রামের রাজমিস্ত্রি আফজাল হোসেন বেপারির স্ত্রী।
 
জানা গেছে, অন্তঃসত্ত্বা রেহেনা বেগম তার শিশুকন্যা রিয়া মনিকে (৪) নিয়ে চাচি শাশুড়ি পিয়ারা বেগমের সঙ্গে পটুয়াখালীর ফুলতলা গ্রামে বেড়াতে যাচ্ছিলেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে বাড়ির সামনে থেকে মেহেলী ক্ল্যাসিক নামে বাসে (ঢাকা মেট্রো ব-১১-০১০৮) ওঠেন। ওই বাসটি পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের শাখারিয়া নামক স্ট্যান্ডে যাত্রী ওঠানো ও নামানোর জন্য অবস্থান করছিল।

এ সময় নিশাত পরিবহনের বাসটি স্বজোরে ক্ল্যাসিক বাসে ধাক্কা দেয়। এতে যাত্রী রেহেনা বেগম, তার শিশুকন্যা রিয়া মনি, চাচি শাশুড়ি পিয়ারা বেগম (৬০) ও নাতনি খাদিজা আক্তার (৫) সড়কে ছিটকে পড়ে যায়। এতে শিশুকন্যাসহ পিয়ারা বেগম ও তার নাতনি খাদিজা গুরুতর আহত হন।

ঘটনাস্থলেই অন্তঃসত্ত্বা রেহেনা বেগম নিহত হন। গুরুতর আহত রিয়া মনি, খাদিজা ও পিয়ারা বেগমকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

ঘাতক বাস মেহেলী ক্ল্যাসিক পরিবহনকে আটক এবং নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। ঘটনার পর পরই চালক ও হেলপার পালিয়ে গেছে।

অন্যদিকে নিশাত পরিবহন বাসটিও দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

নিহতের দেবর মো. জাফর বেপারি বলেন, গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে ভাবি রেহেনা বেগম নিহত হন। শিশুকন্যা রিয়া মনি, খাদিজা ও পিয়ারা বেগম গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আমতলী থানার ওসি মো. শাহ আলম হাওলাদার বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছি এবং ঘাতক বাসটি আটক করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন