মানবিক এক সবুজের গল্প
jugantor
মানবিক এক সবুজের গল্প

  মো. রেজাউল করিম, ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া)  

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৯:৫২:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বিপদে রক্তের প্রয়োজন হলেই কুষ্টিয়ার লোকজন খোঁজ করেন কুদরতে খোদা সবুজকে (২৯)। মিরপুর পৌরসভার সুলতানপুর মহল্লার অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা শফিউল্লাহ শেখের ছেলে কুদরতে খোদা সবুজ পেশায় সাংবাদিক।

তবে সাংবাদিকতার পাশাপাশি সে জরুরি প্রয়োজনে অসুস্থ ব্যক্তির রক্তের প্রয়োজন পড়লে তা সংগ্রহ করে দেয়ার চেষ্টা করেন। তিনি নিয়মিত একটি ডায়েরি সংরক্ষণ করেন।

সেখানে নিকটাত্মীয়-স্বজন, বন্ধু এমনকি পরিচিতজনদের রক্তের গ্রুপ মোবাইল নম্বরসহ অসংখ্য ব্যক্তির নাম রয়েছে। কারও জরুরি প্রয়োজনে রক্ত লাগলে সবুজের সঙ্গে মোবাইলে অথবা সরাসরি যোগাযোগ করেন। সবুজ তাৎক্ষণিক ওই ব্যক্তিকে কোনো টাকা ছাড়াই রক্ত সংগ্রহ করে দেন।

কুদরতে খোদা সবুজ জানান, প্রায় ১০ বছর ধরে অসুস্থ মানুষকে রক্ত সংগ্রহ করে দেয়ার এ কাজটি করে যাচ্ছি। এ পর্যন্ত বহু মানুষকে কোনো টাকা ছাড়াই রক্ত সংগ্রহ করে দিয়েছি।

তিনি আরও জানান, বিভিন্ন সময় অসুস্থ মানুষের রক্তের প্রয়োজন পড়ে। কোনো ব্যক্তি রক্তের প্রয়োজন জানালে বন্ধু, পরিচিতজন, নিকটাত্মীয়দের কাছে রক্তদানের জন্য অনুরোধে করি। সে ব্যক্তি সম্মতি হলে অসুস্থ ব্যক্তিকে রক্তদান করা হয়।

সুলতানপুর গ্রামের নাহিদ হাসান জানান, সাংবাদিক সবুজ দীর্ঘ দিন ধরে মানুষকে বিনা টাকায় রক্ত দিয়ে সহযোগিতা করেন। তার এ কাজে আমরাও সহযোগিতার চেষ্টা করি।

ডা. মাহমুদুন নবী মিঠু জানান, রক্তদান স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। সাংবাদিক সবুজ অনেক মানুষকে রক্ত সংগ্রহ করে দেন। এতে অনেক মানুষ উপকৃত হয়।

বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাহরিয়া ইমন রুবেল জানান, আমরা অনেক সময় দেখি হাসপাতালে অনেক মুমূর্ষু গরিব রোগীর রক্তের প্রয়োজন হয়। ওই সময় সবুজকে জানানো মাত্র বিভিন্ন জায়গায় ফোন দিয়ে যোগাযোগ করে রক্ত সংগ্রহ করে দেন। এটি খুবই ভালো কাজ। সবুজের এই কাজ সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।

মানবিক এক সবুজের গল্প

 মো. রেজাউল করিম, ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) 
১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৭:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিপদে রক্তের প্রয়োজন হলেই কুষ্টিয়ার লোকজন খোঁজ করেন কুদরতে খোদা সবুজকে (২৯)। মিরপুর পৌরসভার সুলতানপুর মহল্লার অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে কর্মকর্তা শফিউল্লাহ শেখের ছেলে কুদরতে খোদা সবুজ পেশায় সাংবাদিক।

তবে সাংবাদিকতার পাশাপাশি সে জরুরি প্রয়োজনে অসুস্থ ব্যক্তির রক্তের প্রয়োজন পড়লে তা সংগ্রহ করে দেয়ার চেষ্টা করেন। তিনি নিয়মিত একটি ডায়েরি সংরক্ষণ করেন।

সেখানে নিকটাত্মীয়-স্বজন, বন্ধু এমনকি পরিচিতজনদের রক্তের গ্রুপ মোবাইল নম্বরসহ অসংখ্য ব্যক্তির নাম রয়েছে। কারও জরুরি প্রয়োজনে রক্ত লাগলে সবুজের সঙ্গে মোবাইলে অথবা সরাসরি যোগাযোগ করেন। সবুজ তাৎক্ষণিক ওই ব্যক্তিকে কোনো টাকা ছাড়াই রক্ত সংগ্রহ করে দেন।

কুদরতে খোদা সবুজ জানান, প্রায় ১০ বছর ধরে অসুস্থ মানুষকে রক্ত সংগ্রহ করে দেয়ার এ কাজটি করে যাচ্ছি। এ পর্যন্ত বহু মানুষকে কোনো টাকা ছাড়াই রক্ত সংগ্রহ করে দিয়েছি।

তিনি আরও জানান, বিভিন্ন সময় অসুস্থ মানুষের রক্তের প্রয়োজন পড়ে। কোনো ব্যক্তি রক্তের প্রয়োজন জানালে বন্ধু, পরিচিতজন, নিকটাত্মীয়দের কাছে রক্তদানের জন্য অনুরোধে করি। সে ব্যক্তি সম্মতি হলে অসুস্থ ব্যক্তিকে রক্তদান করা হয়।

সুলতানপুর গ্রামের নাহিদ হাসান জানান, সাংবাদিক সবুজ দীর্ঘ দিন ধরে মানুষকে বিনা টাকায় রক্ত দিয়ে সহযোগিতা করেন। তার এ কাজে আমরাও সহযোগিতার চেষ্টা করি।

ডা. মাহমুদুন নবী মিঠু জানান, রক্তদান স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। সাংবাদিক সবুজ অনেক মানুষকে রক্ত সংগ্রহ করে দেন। এতে অনেক মানুষ উপকৃত হয়।

বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির কুষ্টিয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাহরিয়া ইমন রুবেল জানান, আমরা অনেক সময় দেখি হাসপাতালে অনেক মুমূর্ষু গরিব রোগীর রক্তের প্রয়োজন হয়। ওই সময় সবুজকে জানানো মাত্র বিভিন্ন জায়গায় ফোন দিয়ে যোগাযোগ করে রক্ত সংগ্রহ করে দেন। এটি খুবই ভালো কাজ। সবুজের এই কাজ সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন