মসজিদের পাশের জলাশয়ে নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রের লাশ
jugantor
মসজিদের পাশের জলাশয়ে নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রের লাশ

  পাবনা প্রতিনিধি  

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২০:২৯:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনায় নিখোঁজের তিন দিন পর বেলাল হোসেন (১২) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। শনিবার দুপুরে সদর উপজেলার ভাড়ারা মসজিদের পাশের একটি জলাশয় থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় এক যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। নিহত বেলাল হোসেন সদর উপজেলার চোমরপুর গ্রামের আফজাল হোসেনের ছেলে এবং একই উপজেলার শ্রীকোল ফুরকানিয়া মাদ্রাসার ছাত্র।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই ওসিন কুমার বশাক জানান, এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে গোয়েন্দা পুলিশ দুপুর আড়াইটার দিকে ভাড়ারা মসজিদের পাশের একটি ক্যানাল থেকে ওই মাদ্রাসাছাত্রের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে চোমরপুর গ্রামের আব্দুল হাইয়ের ছেলে মুকুলকে (৩৫) গ্রেফতার করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান, গত ৯ ফেব্রুয়ারি বেলাল হোসেন তার বাবার ভ্যান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় এবং এরপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। ধারণা করা হচ্ছে ছেলেটিকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মৃতদেহ জলাশয়ে ফেলে দেয়া হয়। তবে কারা এবং কী কারণে তাকে হত্যা করেছে তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মসজিদের পাশের জলাশয়ে নিখোঁজ মাদ্রাসাছাত্রের লাশ

 পাবনা প্রতিনিধি 
১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৮:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাবনায় নিখোঁজের তিন দিন পর বেলাল হোসেন (১২) নামে এক মাদ্রাসাছাত্রের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। শনিবার দুপুরে সদর উপজেলার ভাড়ারা মসজিদের পাশের একটি জলাশয় থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। 

এ ঘটনায় এক যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। নিহত বেলাল হোসেন সদর উপজেলার চোমরপুর গ্রামের আফজাল হোসেনের ছেলে এবং একই উপজেলার শ্রীকোল ফুরকানিয়া মাদ্রাসার ছাত্র। 

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই ওসিন কুমার বশাক জানান, এলাকাবাসীর কাছ থেকে খবর পেয়ে গোয়েন্দা পুলিশ দুপুর আড়াইটার দিকে ভাড়ারা মসজিদের পাশের একটি ক্যানাল থেকে ওই মাদ্রাসাছাত্রের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে চোমরপুর গ্রামের আব্দুল হাইয়ের ছেলে মুকুলকে (৩৫) গ্রেফতার করা হয়েছে।

গোয়েন্দা পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান, গত ৯ ফেব্রুয়ারি বেলাল হোসেন তার বাবার ভ্যান নিয়ে বাড়ি থেকে বের হয়ে যায় এবং এরপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। ধারণা করা হচ্ছে ছেলেটিকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মৃতদেহ জলাশয়ে ফেলে দেয়া হয়। তবে কারা এবং কী কারণে তাকে হত্যা করেছে তা প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ পাবনা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন