স্বর্ণের চেইন নিয়ে কেরোসিন ঢেলে গৃহবধূর গায়ে আগুন
jugantor
স্বর্ণের চেইন নিয়ে কেরোসিন ঢেলে গৃহবধূর গায়ে আগুন

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  

১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৭:৩৯:০৪  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরে স্বর্ণের চেইন নিয়ে কেরোসিন ঢেলে রাশেদা বেগম নামে এক গৃহবধূর শরীরে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে রাশেদার শরীরের ৫০ ভাগ ঝলসে গেছে। এ ঘটনায় রাশেদার ভাই বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

বুধবার দুপুরে সদর মডেল থানার ওসি জসিম উদ্দিন মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের চরউভূতি গ্রামে পূর্বপরিকল্পিতভাবে কেরোসিন ঢেলে রাশেদার শরীরে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।

রাশেদা চরউভূতি গ্রামের জাহের হোসেনের স্ত্রী। ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে ভর্তি রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তবে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আসামিরা হলেন মাইন উদ্দিন, শাহজাহান, লিটন আশরাফ ও অজ্ঞাত পাঁচজন। সবাই রাশেদার দেবরের শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, একটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দেবরের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে রাশেদার শ্বশুরবাড়ির বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরে মঙ্গলবার বিকালে দেবরের শ্বশুরবাড়ির লোকজন রাশেদার শরীরে পূর্বপরিকল্পিতভাবে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় দ্রুত অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।

আগুনে শরীর ঝলসে যাওয়ায় রাশেদার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। রাশেদা তখন অভিযুক্তদের নাম-পরিচয় বলেন।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) আনোয়ার হোসেন বলেন, আগুনে রাশেদার শরীরের ৫০ ভাগই পুড়ে গেছে। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢামেকের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়েছে। সেখানে তাকে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, রাশেদার ভাই বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

স্বর্ণের চেইন নিয়ে কেরোসিন ঢেলে গৃহবধূর গায়ে আগুন

 লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৫:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরে স্বর্ণের চেইন নিয়ে কেরোসিন ঢেলে রাশেদা বেগম নামে এক গৃহবধূর শরীরে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এতে রাশেদার শরীরের ৫০ ভাগ ঝলসে গেছে। এ ঘটনায় রাশেদার ভাই বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

বুধবার দুপুরে সদর মডেল থানার ওসি জসিম উদ্দিন মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে মঙ্গলবার বিকালে সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের চরউভূতি গ্রামে পূর্বপরিকল্পিতভাবে কেরোসিন ঢেলে রাশেদার শরীরে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়।

রাশেদা চরউভূতি গ্রামের জাহের হোসেনের স্ত্রী। ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিটে ভর্তি রেখে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তবে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক।

আসামিরা হলেন মাইন উদ্দিন, শাহজাহান, লিটন আশরাফ ও অজ্ঞাত পাঁচজন। সবাই রাশেদার দেবরের শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, একটি স্বর্ণের চেইন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে দেবরের শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সঙ্গে রাশেদার শ্বশুরবাড়ির বিরোধ চলে আসছে। এর জের ধরে মঙ্গলবার বিকালে দেবরের শ্বশুরবাড়ির লোকজন রাশেদার শরীরে পূর্বপরিকল্পিতভাবে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। এ সময় দ্রুত অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়।

আগুনে শরীর ঝলসে যাওয়ায় রাশেদার চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। রাশেদা তখন অভিযুক্তদের নাম-পরিচয় বলেন।

সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) আনোয়ার হোসেন বলেন, আগুনে রাশেদার শরীরের ৫০ ভাগই পুড়ে গেছে। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢামেকের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা হয়েছে। সেখানে তাকে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থানার ওসি জসিম উদ্দিন বলেন, রাশেদার ভাই বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন