লক্ষ্মীপুরে জুতা পায়ে শহিদ মিনারে কৃষকলীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা
jugantor
লক্ষ্মীপুরে জুতা পায়ে শহিদ মিনারে কৃষকলীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা

  লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  

২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৯:৪৪:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরে ভাষা শহিদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতে গিয়ে জুতা পায়ে শহিদ মিনারের বেদিতে উঠেছেন কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ থানার প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় শহিদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে ফুল দিতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান হোসেন সাজুসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে জুতা পায়ে শহিদ মিনারের বেদিতে উঠতে দেখা যায়। এ সময় পুষ্পস্তবক হাতে তাদের মধ্যমণি ছিলেন চন্দ্রগঞ্জ থানা কৃষকলীগের সভাপতি ও চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এটিএম জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর ও ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশীদ বাবলু। তবে জাহাঙ্গীর ও বাবলুর পায়ে জুতা ছিল না।

ওই শহিদ মিনারে রাত ১২টা ১ মিনিটে চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি একে ফজলুল হক ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পর্যায়ক্রমে চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি জোবায়রুল হক, চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি সম্মান জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশীদ বাবলু বলেন, ঘটনাটি আমার নজরে পড়েনি। যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে মাঠে ছবি তোলার সময় কয়েকজনের জুতা পায়ে ছিল। ফুল দেওয়ার সময় ছিল না।

এ ব্যাপারে জানতে চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান হোসেন সাজুকে ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি। তবে চন্দ্রগঞ্জ থানা কৃষকলীগের সভাপতি এ টি এম জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, সাজুর পায়ে জুতা ছিল কিনা আমি খেয়াল করিনি। বিষয়টি আমি দেখছি।

ভাষা আন্দোলনের ৬৯ বছর

লক্ষ্মীপুরে জুতা পায়ে শহিদ মিনারে কৃষকলীগ-ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা

 লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 
২১ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৭:৪৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরে ভাষা শহিদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করতে গিয়ে জুতা পায়ে শহিদ মিনারের বেদিতে উঠেছেন কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সদর উপজেলার চন্দ্রগঞ্জ থানার প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় শহিদ মিনারে একুশের প্রথম প্রহরে ফুল দিতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান হোসেন সাজুসহ কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীকে জুতা পায়ে শহিদ মিনারের বেদিতে উঠতে দেখা যায়। এ সময় পুষ্পস্তবক হাতে তাদের মধ্যমণি ছিলেন চন্দ্রগঞ্জ থানা কৃষকলীগের সভাপতি ও চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এটিএম জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর ও ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশীদ বাবলু। তবে জাহাঙ্গীর ও বাবলুর পায়ে জুতা ছিল না।

ওই শহিদ মিনারে রাত ১২টা ১ মিনিটে চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি একে ফজলুল হক ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পর্যায়ক্রমে চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি জোবায়রুল হক, চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি সম্মান জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে চন্দ্রগঞ্জ থানা ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক কাজী মামুনুর রশীদ বাবলু বলেন, ঘটনাটি আমার নজরে পড়েনি। যদি এমন হয়ে থাকে তাহলে মাঠে ছবি তোলার সময় কয়েকজনের জুতা পায়ে ছিল। ফুল দেওয়ার সময় ছিল না।

এ ব্যাপারে জানতে চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান হোসেন সাজুকে ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি। তবে চন্দ্রগঞ্জ থানা কৃষকলীগের সভাপতি এ টি এম জাকির হোসেন জাহাঙ্গীর বলেন, সাজুর পায়ে জুতা ছিল কিনা আমি খেয়াল করিনি। বিষয়টি আমি দেখছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : ভাষা আন্দোলনের ৬৯ বছর

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন