পাওনা টাকা আনতে গিয়ে শ্রমিক খুন
jugantor
পাওনা টাকা আনতে গিয়ে শ্রমিক খুন

  ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি  

২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৯:৩২:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে মো. আবুল কালাম আজাদ নামে (২৩) এক শ্রমিক খুন হয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ঢাকার ধামরাইয়ে আরিচা এলাকায় মহাসড়কের পাশে কয়লার ডাম্পিং জোন থেকে ওই কারখানা শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ ধামরাই উপজেলার বাথুলী গ্রামের বাসিন্দা মো. কানা বাবুল হোসেনের ছেলে। তিনি ধামরাই উপজেলার বালিথা এলাকার একটি কারখানার শ্রমিক ছিলেন।

ওই শ্রমিকের সহকর্মীরা জানান, সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় কারখানা ছুটি হয়। এরপর তিনি বালিথা বাথুলী বাজার বাসস্ট্যান্ডে তার পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দেখা করতে আসেন। রাত ৯টার দিকে আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকায় পাওনা টাকা আদায়ের কথা বলে পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চলে যান ওই কারখানা শ্রমিক আবুল কালাম আজাদ।

গভীরে রাতেও তিনি বাড়িতে ফিরে না আসলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে বার বার চেষ্টা করেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। সকালে পথচারীরা আবুল কালাম আজাদের লাশ দেখতে পান।এরপর তার পরিবার ও পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করেন তারা।

আবুল কালাম আজাদের পিতা কানা বাবুল জানান, আমার সন্দেহ হয়- ওরা আমার ছেলেকে টাকা না দিয়ে খুন করে এ স্থানে গাড়িতে লাশ ফেলে রেখে গেছে। আমি খুনিদের ফাঁসি চাই।

ধামরাই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামাল হোসেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে শ্রমিক খুন

 ধামরাই (ঢাকা) প্রতিনিধি 
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৭:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পাওনা টাকা আনতে গিয়ে মো. আবুল কালাম আজাদ নামে (২৩)  এক শ্রমিক খুন হয়েছেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ঢাকার ধামরাইয়ে আরিচা এলাকায় মহাসড়কের পাশে কয়লার ডাম্পিং জোন থেকে ওই কারখানা শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আবুল কালাম আজাদ ধামরাই উপজেলার বাথুলী গ্রামের বাসিন্দা মো. কানা বাবুল হোসেনের ছেলে। তিনি ধামরাই উপজেলার বালিথা এলাকার একটি কারখানার শ্রমিক ছিলেন। 

ওই শ্রমিকের সহকর্মীরা জানান, সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় কারখানা ছুটি হয়। এরপর তিনি বালিথা বাথুলী বাজার বাসস্ট্যান্ডে তার পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দেখা করতে আসেন। রাত ৯টার দিকে আশুলিয়ার নয়ারহাট এলাকায় পাওনা টাকা আদায়ের কথা বলে পিতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চলে যান ওই কারখানা শ্রমিক আবুল কালাম আজাদ।

গভীরে রাতেও তিনি বাড়িতে ফিরে না আসলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনে বার বার চেষ্টা করেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। সকালে পথচারীরা আবুল কালাম আজাদের লাশ দেখতে পান।এরপর তার পরিবার ও পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করেন তারা।

আবুল কালাম আজাদের পিতা কানা বাবুল জানান, আমার সন্দেহ হয়- ওরা আমার ছেলেকে টাকা না দিয়ে খুন করে এ স্থানে গাড়িতে লাশ ফেলে রেখে গেছে। আমি খুনিদের ফাঁসি চাই।

ধামরাই থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামাল হোসেন বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে ধামরাই থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

 
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন