প্রেমের ফাঁদে ফেলে কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ
jugantor
প্রেমের ফাঁদে ফেলে কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ

  মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৯:৫৩:২১  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওই ভুক্তভোগীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, সম্প্রতি বিয়ের দাবি নিয়ে ওই ছাত্রী প্রেমিকের বাড়ি উপজেলার শাহজাহানপুর গ্রামে অবস্থান নেয়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বাবার জিম্মায় দেয়।

শাহজাহানপুর গ্রামের মহব্বত আলী খানের ছেলে রকিব উদ্দিন খান সুজনের সঙ্গে ওই ছাত্রীর পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের প্রেমের সম্পর্ক হয়। প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে দফায় দফায় ধর্ষণ করে প্রেমিক। পরে বিয়ে করতে টালবাহানা শুরু করে। সম্প্রতি ছাত্রীটি বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কয়েক দিন অবস্থান নেয়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বাবার জিম্মায় দেয়।

তবে ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করেন, তার মেয়েকে অপহরণ করে আটকে রাখে। এ ব্যাপারে ছাত্রীর বাবা থানায় বুধবার একটি মামলা দায়ের করেন।

মাধবপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. আমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে।

প্রেমের ফাঁদে ফেলে কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণ

 মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৭:৫৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

হবিগঞ্জের মাধবপুরে প্রেমের ফাঁদে ফেলে এক কলেজছাত্রীকে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগে থানায় মামলা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ওই ভুক্তভোগীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। 

অভিযোগে জানা যায়, সম্প্রতি বিয়ের দাবি নিয়ে ওই ছাত্রী প্রেমিকের বাড়ি উপজেলার শাহজাহানপুর গ্রামে অবস্থান নেয়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বাবার জিম্মায় দেয়।

শাহজাহানপুর গ্রামের মহব্বত আলী খানের ছেলে রকিব উদ্দিন খান সুজনের সঙ্গে ওই ছাত্রীর পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের প্রেমের সম্পর্ক হয়। প্রেমের ফাঁদে ফেলে বিয়ের আশ্বাস দিয়ে তাকে দফায় দফায় ধর্ষণ করে প্রেমিক। পরে বিয়ে করতে টালবাহানা শুরু করে। সম্প্রতি ছাত্রীটি বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে কয়েক দিন অবস্থান নেয়। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে বাবার জিম্মায় দেয়।

তবে ছাত্রীর বাবা অভিযোগ করেন, তার মেয়েকে অপহরণ করে আটকে রাখে। এ ব্যাপারে ছাত্রীর বাবা থানায় বুধবার একটি মামলা দায়ের করেন। 

মাধবপুর থানার পরিদর্শক তদন্ত মো. আমিনুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চত করে বলেন, ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ তৎপর রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন