ডামুড্যায় সহিংসতার আশঙ্কায় সরে দাঁড়ালেন নৌকার মেয়র প্রার্থী
jugantor
ডামুড্যায় সহিংসতার আশঙ্কায় সরে দাঁড়ালেন নৌকার মেয়র প্রার্থী

  ডামুড্যা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি  

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৯:৪০:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ।

শরীয়তপুরের ডামুড্যা পৌরসভার স্থগিত দুই ভোটকেন্দ্রে সহিংসতার আশঙ্কায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার মেয়রপ্রার্থী মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ।

তিনি শনিবার রাতে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান।

এ সময় তিনি বলেন, রক্তের পথে হেঁটে গিয়ে আমি এই মেয়রের চেয়ারে বসতে চাই না। আমি বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্যে জানতে পারি, দুটি স্থগিত কেন্দ্রে নির্বাচনের দিন বড় ধরনের সহিংসতা ঘটতে পারে জামায়াত-বিএনপি সঙ্গে আমাদের সংগঠনের কিছু নেতার। তাই নির্বাচনে যেন সহিংসতা না হয় সেই লক্ষ্যে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

আমি কেন্দ্র নেতা, জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে কথা বলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, দলের নেতারা আমাকে কোনোভাবেই সহযোগিতা করেনি। দলের উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ূন কবির বাচ্চু ছৈয়াল ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বাবলু শিকদার আমার পক্ষে কাজ করেননি।

তারা প্রকাশ্যে বা গোপনে নির্বাচনে আমার মনোনয়নের বিরোধিতা করতে থাকেন।

তারা বলেন, এই মনোনয়ন প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন কিন্তু সংসদ সদস্য অবগত নয়। নির্বাচনি কার্যক্রম করার জন্য নিয়মিত খরচ নিতেন। কিন্তু আমার পক্ষে কাজ না করে করত বিপরীতে।

উল্লেখ্য, রোববার দুই স্থগিত কেন্দ্রের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর আগে নির্বাচনের পরিস্থিতি অনুকূলে না বলে নির্বাচন বন্ধ করে দেন কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগ প্রতীকে রেজাউল করিম রাজা, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী নাজমুল হোসেন সবুজ, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আলমগীর হোসেন মাদবর।

ডামুড্যায় সহিংসতার আশঙ্কায় সরে দাঁড়ালেন নৌকার মেয়র প্রার্থী

 ডামুড্যা (শরীয়তপুর) প্রতিনিধি 
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ০৯:৪০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ।
মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ। ছবি: যুগান্তর

শরীয়তপুরের ডামুড্যা পৌরসভার স্থগিত দুই ভোটকেন্দ্রে সহিংসতার আশঙ্কায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা মার্কার মেয়রপ্রার্থী মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ।

তিনি শনিবার রাতে নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানান।

এ সময় তিনি বলেন, রক্তের পথে হেঁটে গিয়ে আমি এই মেয়রের চেয়ারে বসতে চাই না। আমি বিভিন্ন মাধ্যম থেকে পাওয়া তথ্যে জানতে পারি, দুটি স্থগিত কেন্দ্রে নির্বাচনের দিন বড় ধরনের সহিংসতা ঘটতে পারে জামায়াত-বিএনপি সঙ্গে আমাদের সংগঠনের কিছু নেতার। তাই নির্বাচনে যেন সহিংসতা না হয় সেই লক্ষ্যে আমি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

আমি কেন্দ্র নেতা, জেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে কথা বলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

এ সময় সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, দলের নেতারা আমাকে কোনোভাবেই সহযোগিতা করেনি। দলের উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ূন কবির বাচ্চু ছৈয়াল ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বাবলু শিকদার আমার পক্ষে কাজ করেননি।

তারা প্রকাশ্যে বা গোপনে নির্বাচনে আমার মনোনয়নের বিরোধিতা করতে থাকেন।

তারা বলেন, এই মনোনয়ন প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন কিন্তু সংসদ সদস্য অবগত নয়। নির্বাচনি কার্যক্রম করার জন্য নিয়মিত খরচ নিতেন। কিন্তু আমার পক্ষে কাজ না করে করত বিপরীতে।

উল্লেখ্য, রোববার দুই স্থগিত কেন্দ্রের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর আগে নির্বাচনের পরিস্থিতি অনুকূলে না বলে নির্বাচন বন্ধ করে দেন কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা।

নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী মো. কামাল উদ্দিন আহমেদ, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগ প্রতীকে রেজাউল করিম রাজা, বিএনপির মনোনীত প্রার্থী নাজমুল হোসেন সবুজ, বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী আলমগীর হোসেন মাদবর।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন