সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত নগরকান্দা পৌরমেয়র 
jugantor
সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত নগরকান্দা পৌরমেয়র 

  ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি   

০৪ মার্চ ২০২১, ০০:১০:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় নগরকান্দা পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র নিমাই চন্দ্র সরকার গুরুতর আহত হয়েছেন। তবে তার স্ত্রী সচিন্তা চন্দ্র সরকার (৪৫) ও ছেলে গোবিন্দ্র চন্দ্র সরকার নিহত হয়েছেন।

দুর্ঘটনায় কামাল হোসেন (২৭) নামের আরও ব্যক্তি মারা গেছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন।

তবে মেয়রের অবস্থা গুরুতর। তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা পাঠানো হচ্ছে।

বুধবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার কালিয়ার মোড় এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ওসি ওমর ফারুক দুর্ঘটনার সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাত ৯টার সময় চট্টগ্রামগামী জিএস পরিবহনের সঙ্গে মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সংবাদ পেয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে হতাহতদের উদ্ধার করেন।

জানা গেছে, মেয়র নিমাই চন্দ্র সরকার পরিবারের সদস্যসহ আরও লোকজন নিয়ে ঐতিহ্যবাহী ভাঙ্গার মিষ্টির দোকানে মিষ্টি খেতে এসেছিলেন। সেখান থেকে নগরকান্দায় ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন।

নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে। আহতদের মধ্যে রাসেল, শাওন, আরিফ, সোহেলসহ অজ্ঞাত আরও চারজন ভাঙ্গা হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। বাকিদের ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে মেয়রের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকায় পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।

ফরিদপুর জেলা গোয়েন্দা শাখার এএসআই নাসির হোসের যুগান্তরকে বলেন, মুমূর্ষু অবস্থায় মেয়রকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে।

ওসি ওমর ফারুক জানান, দুর্ঘটনায় এ পর্যন্ত মেয়রের স্ত্রী ও পুত্রসহ তিন জন মারা গেছেন। মেয়রসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ জন। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত নগরকান্দা পৌরমেয়র 

 ভাঙ্গা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি  
০৪ মার্চ ২০২১, ১২:১০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় সড়ক দুর্ঘটনায় নগরকান্দা পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র নিমাই চন্দ্র সরকার গুরুতর আহত হয়েছেন। তবে তার স্ত্রী সচিন্তা চন্দ্র সরকার (৪৫) ও ছেলে গোবিন্দ্র চন্দ্র সরকার নিহত হয়েছেন। 

দুর্ঘটনায় কামাল হোসেন (২৭) নামের আরও ব্যক্তি মারা গেছেন। এছাড়া আহত হয়েছেন অন্তত ১৫ জন।

তবে মেয়রের অবস্থা গুরুতর। তাকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঢাকা পাঠানো হচ্ছে।

বুধবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার কালিয়ার মোড় এলাকায় ঢাকা-খুলনা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ওসি ওমর ফারুক দুর্ঘটনার সত্যতা যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাত ৯টার সময় চট্টগ্রামগামী জিএস পরিবহনের সঙ্গে মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সংবাদ পেয়ে ভাঙ্গা হাইওয়ে ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে হতাহতদের উদ্ধার করেন।
 
জানা গেছে, মেয়র নিমাই চন্দ্র সরকার পরিবারের সদস্যসহ আরও লোকজন নিয়ে ঐতিহ্যবাহী ভাঙ্গার মিষ্টির দোকানে মিষ্টি খেতে এসেছিলেন। সেখান থেকে নগরকান্দায় ফেরার পথে দুর্ঘটনার শিকার হন। 

নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে। আহতদের মধ্যে রাসেল, শাওন, আরিফ, সোহেলসহ অজ্ঞাত আরও চারজন ভাঙ্গা হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। বাকিদের ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে মেয়রের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ঢাকায় পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। 

ফরিদপুর জেলা গোয়েন্দা শাখার এএসআই নাসির হোসের যুগান্তরকে বলেন, মুমূর্ষু অবস্থায় মেয়রকে হেলিকপ্টারে করে ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে।   

ওসি ওমর ফারুক জানান, দুর্ঘটনায় এ পর্যন্ত মেয়রের স্ত্রী ও পুত্রসহ তিন জন মারা গেছেন। মেয়রসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে ১৫ জন। নিহতদের লাশ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে। দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন