খেলতে গিয়ে নিখোঁজ, পুকুরে মিলল ভাই-বোনের লাশ
jugantor
খেলতে গিয়ে নিখোঁজ, পুকুরে মিলল ভাই-বোনের লাশ

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

০৬ মার্চ ২০২১, ০৮:২২:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু

নরসিংদীর বেলাবো উপজেলায় পুকুরে ডুবে ভাই ও বোনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে সিমান্তবর্তী এলাকা বেলাবো উপজেলার বাজনাব ইউনিয়নের বীরবাঘবের গ্রামের টানপাড়া এলাকার ওই পুকুর থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

উপজেলার বীরবাঘবের গ্রামের টানপাড়া এলাকায় শাহাদত হোসেনের ছেলে শামিউল ইসলাম (৪) ও একই গ্রামের মনির হোসেনের মেয়ে লিজা আক্তার (৩)। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই-বোন।

পরিবারিক সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে শিশু শামিউল ও লিজা একসঙ্গে খেলতে বাড়ি থেকে বের হয়। খেলতে খেলতে তার বাড়ির অদূরে পুকুরের দিকে চলে যায়। একপর্যায়ে তারা পুকুরে ডুবে যায়।

দীর্ঘ সময় ধরে তাদের খুঁজে পাচ্ছিলেন না পরিবারের লোকজন। পরে এদিক-সেদিক খোঁজাখুঁজির পর দুপুরে বাড়ির পাশের একটি পুকুরপাড়ে লিজার জুতা পড়ে থাকতে দেখেন তারা। বিকালে পুকুরের লিজার মৃতদেহ ভেসে ওঠে। এর কিছুক্ষণ পর শামিউলের মরদেহ পুকুরের পানিতে ভেসে ওঠে।

খবর পেয়ে পরিবার ও স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে বেলাবো উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুই শিশুকেই মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শামিউল ইসলামের বাবা শাহাদত হোসেন যুগান্তরকে বলেন, তারা বাড়িতেই খেলছিল। খেলতে খেলতে বাড়ির বাইরে যায়। পরে বিকালে পুকুরে তাদের মৃতদেহ ভেসে আসার খবর পাই।

বাজনাব ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান খন্দকার মোখলেছুর রহমান বলেন, বিকালে শিশু দুটির মরদেহ বাড়িতে আনা হয়। পরে সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

খেলতে গিয়ে নিখোঁজ, পুকুরে মিলল ভাই-বোনের লাশ

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
০৬ মার্চ ২০২১, ০৮:২২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
ফাইল ছবি

নরসিংদীর বেলাবো উপজেলায় পুকুরে ডুবে ভাই ও বোনের মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার বিকালে সিমান্তবর্তী এলাকা বেলাবো উপজেলার বাজনাব ইউনিয়নের বীরবাঘবের গ্রামের টানপাড়া এলাকার ওই পুকুর থেকে দুই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

উপজেলার বীরবাঘবের গ্রামের টানপাড়া এলাকায় শাহাদত হোসেনের ছেলে শামিউল ইসলাম (৪) ও একই গ্রামের মনির হোসেনের মেয়ে লিজা আক্তার (৩)। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই-বোন।

পরিবারিক সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে শিশু শামিউল ও লিজা একসঙ্গে খেলতে বাড়ি থেকে বের হয়। খেলতে খেলতে তার বাড়ির অদূরে পুকুরের দিকে চলে যায়। একপর্যায়ে তারা পুকুরে ডুবে যায়।

দীর্ঘ সময় ধরে তাদের খুঁজে পাচ্ছিলেন না পরিবারের লোকজন। পরে এদিক-সেদিক খোঁজাখুঁজির পর দুপুরে বাড়ির পাশের একটি পুকুরপাড়ে লিজার জুতা পড়ে থাকতে দেখেন তারা।  বিকালে পুকুরের লিজার মৃতদেহ  ভেসে ওঠে। এর কিছুক্ষণ পর শামিউলের মরদেহ পুকুরের পানিতে ভেসে ওঠে।

খবর পেয়ে পরিবার ও স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে বেলাবো উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুই শিশুকেই মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শামিউল ইসলামের বাবা শাহাদত হোসেন যুগান্তরকে বলেন, তারা বাড়িতেই খেলছিল। খেলতে খেলতে বাড়ির বাইরে যায়। পরে বিকালে পুকুরে তাদের মৃতদেহ ভেসে আসার খবর পাই।

বাজনাব ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান খন্দকার মোখলেছুর রহমান বলেন, বিকালে শিশু দুটির মরদেহ বাড়িতে আনা হয়। পরে সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন