নির্মাণ শেষ না হতেই মডেল মসজিদে ফাটল
jugantor
নির্মাণ শেষ না হতেই মডেল মসজিদে ফাটল

  রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি  

০৬ মার্চ ২০২১, ২০:০৯:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

মডেল মসজিদ

ঝালকাঠির রাজাপুরে নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে ফাটল দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলা সদরের খাদ্যগুদাম সংলগ্ন নির্মাণাধীন মডেল মসজিদে এ ঘটনা ঘটেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে গণপূর্ত অধিদপ্তরের অধীন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বাস্তবায়নে মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। আর এ ভবনের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ১৩ কোটি টাকা। নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পায় বরিশালের মেসার্স খান বিল্ডার্স নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

স্থানীয় মনির হোসেন, কামরুল ইসলাম দুলাল, খোকন তালুকদার জানান, কাজ শুরুর কিছুদিন পরে নিম্নমানের কাজের অভিযোগে স্থানীয়দের প্রতিরোধে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সঠিকভাবে কাজ করার শর্তে পুনরায় কাজ শুরু করে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে মসজিদের কাজ প্রায় শেষ।

সিমেন্ট দিয়ে ফাটল ঢাকার চেষ্টা

এর মধ্যে মসজিদের উত্তর ও দক্ষিণ দেয়ালের ভেতর ও বাহিরের অংশে দেখা দিয়েছে ফাটল। দেয়ালের ওই ফাটল মেরামতের চেষ্টা চলছে।

তারা আরও জানান, মসজিদের মূল অংশের পাইলিং ঠিক থাকলেও পেছনের অংশে ঠিকভাবে পাইলিং না করার কারণে দেওয়াল দেবে গিয়ে ফাটল দেখা দিয়েছে। অভিযোগ রয়েছে নির্মাণ কাজের তদারকির দায়িত্বে থাকা ইঞ্জিনিয়ারের অবহেলার কারণেই মসজিদের নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই ফাটল দেখা দিয়েছে।

এ ব্যাপারে মসজিদের সাইট ইঞ্জিনিয়ার আবুল বাশার লিটন বলেন, অ্যাংকর সিমেন্ট একটু বেশি কড়া। তাই পর্যাপ্ত পানির অভাবে দেয়ালের প্লাস্টারে ফাটল দেখা দিয়েছিল তা ইতোমধ্যে ঠিক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে ঝালকাঠি গণপূর্ত বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী বাদল কুমার মণ্ডল বলেন, দুই দিন আগেও কাজের সাইট থেকে ঘুরে এসেছি মসজিদের দেয়ালে ফাটলের কোনো ঘটনা চোখে পড়েনি।

নির্মাণ শেষ না হতেই মডেল মসজিদে ফাটল

 রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি 
০৬ মার্চ ২০২১, ০৮:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মডেল মসজিদ
মডেল মসজিদ। ছবি: যুগান্তর

ঝালকাঠির রাজাপুরে নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে ফাটল দেখা দিয়েছে। এ নিয়ে জনমনে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। উপজেলা সদরের খাদ্যগুদাম সংলগ্ন নির্মাণাধীন মডেল মসজিদে এ ঘটনা ঘটেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের শেষের দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে গণপূর্ত অধিদপ্তরের অধীন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বাস্তবায়নে মসজিদের নির্মাণ কাজ শুরু হয়। আর এ ভবনের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয় ১৩ কোটি টাকা। নির্মাণ কাজের দায়িত্ব পায় বরিশালের মেসার্স খান বিল্ডার্স নামে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান।

স্থানীয় মনির হোসেন, কামরুল ইসলাম দুলাল, খোকন তালুকদার জানান, কাজ শুরুর কিছুদিন পরে নিম্নমানের কাজের অভিযোগে স্থানীয়দের প্রতিরোধে কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সঠিকভাবে কাজ করার শর্তে পুনরায় কাজ শুরু করে ওই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। বর্তমানে মসজিদের কাজ প্রায় শেষ। 

সিমেন্ট দিয়ে ফাটল ঢাকার চেষ্টা

এর মধ্যে মসজিদের উত্তর ও দক্ষিণ দেয়ালের ভেতর ও বাহিরের অংশে দেখা দিয়েছে ফাটল। দেয়ালের ওই ফাটল মেরামতের চেষ্টা চলছে। 

তারা আরও জানান, মসজিদের মূল অংশের পাইলিং ঠিক থাকলেও পেছনের অংশে ঠিকভাবে পাইলিং না করার কারণে দেওয়াল দেবে গিয়ে ফাটল দেখা দিয়েছে। অভিযোগ রয়েছে নির্মাণ কাজের তদারকির দায়িত্বে থাকা ইঞ্জিনিয়ারের অবহেলার কারণেই মসজিদের নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই ফাটল দেখা দিয়েছে।

এ ব্যাপারে মসজিদের সাইট ইঞ্জিনিয়ার আবুল বাশার লিটন বলেন, অ্যাংকর সিমেন্ট একটু বেশি কড়া। তাই পর্যাপ্ত পানির অভাবে দেয়ালের প্লাস্টারে ফাটল দেখা দিয়েছিল তা ইতোমধ্যে ঠিক করা হয়েছে। 

এ ব্যাপারে ঝালকাঠি গণপূর্ত বিভাগের উপবিভাগীয় প্রকৌশলী বাদল কুমার মণ্ডল বলেন, দুই দিন আগেও কাজের সাইট থেকে ঘুরে এসেছি মসজিদের দেয়ালে ফাটলের কোনো ঘটনা চোখে পড়েনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন