বিদেশি মদ আটক করে বিক্রি, পুলিশের দুই এসআই ক্লোজড
jugantor
বিদেশি মদ আটক করে বিক্রি, পুলিশের দুই এসআই ক্লোজড

  যুগান্তর প্রতিবেদন, তাহিরপুর  

০৮ মার্চ ২০২১, ০২:৪০:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিদেশি মদ আটক করে বিক্রি, পুলিশের দুই এসআই ক্লোজড

বিদেশি মদ বিক্রির অভিযোগে সুনামগঞ্জে পুলিশের দুই এসআইকে ক্লোজড করা হয়েছে। তাদেরকে পুলিশ লাইনসে নেয়া হয়েছে।রোববার রাতে বিষয়টি যুগান্তরকে নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, শুধু প্রত্যাহারই শেষ কথা নয়; এদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়েছে।তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

প্রত্যাহারকৃত পুলিশ কর্মকর্তারা হলেন, সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থানার এসআই নোবেল সরকার ও এসআই অপূর্ব সাহা।

সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সীমান্তবর্তী দোয়ারাবাজার থানা এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান চলাকালে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাবাজার ইউনিয়নের দুই মাদক কারবারিকে চার কার্টুন বিদেশি মদসহ আটক করেন এসআই নোবেল ও অপূর্বসহ তাদের সঙ্গীয় ফোর্স।এক কার্টুন মদ জব্দ দেখিয়ে মামলা দায়েরের পর কৌশলে অবশিষ্ট তিন কার্টুন মদ বাংলাবাজার এলাকার পূর্ব পরিচিত তানিয়েল নামের অপর এক মাদক কারবারির কাছে বিক্রি করে দেন থানার ওই দুই এসআই।

পরবর্তীতে সুনামগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অপর একটি টিম দোয়ারাবাজারের বাংলাবাজারে ফের ২ মার্চ মাদকবিরোধী অভিযানে গিয়ে বাজারে থাকা তানিয়েলের সহোদর তানভিরের দোকান থেকে ৩ কার্টুন বিদেশি মদ জব্দ করে।জিজ্ঞাসাবাদে তানভির জানান, থানার দুই এসআই নোবেল সরকার ও অপূর্ব কুমার সাহা এসব মদ তার ভাইয়ের কাছে বিক্রি করে গেছেন।

গোয়েন্দা পুলিশের টিম তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি জেলা পুলিশ সুপারকে অবহিত করলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান প্রাথমিকভাবে দুই এসআইয়ের মদ বিক্রির সত্যতা নিশ্চিত হন।

রোববার রাতে দোয়ারাবাজার থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিন জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশে বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত থানার দুই এসআইকে পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে।

বিদেশি মদ আটক করে বিক্রি, পুলিশের দুই এসআই ক্লোজড

 যুগান্তর প্রতিবেদন, তাহিরপুর 
০৮ মার্চ ২০২১, ০২:৪০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বিদেশি মদ আটক করে বিক্রি, পুলিশের দুই এসআই ক্লোজড
এসআই নোবেল সরকার ও এসআই অপূর্ব সাহা। ফাইল ছবি

বিদেশি মদ বিক্রির অভিযোগে সুনামগঞ্জে পুলিশের দুই এসআইকে ক্লোজড করা হয়েছে। তাদেরকে পুলিশ লাইনসে নেয়া হয়েছে।রোববার রাতে বিষয়টি যুগান্তরকে নিশ্চিত করে পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান বলেন, শুধু প্রত্যাহারই শেষ কথা নয়; এদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়েছে।তদন্ত শেষে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থাও নেয়া হবে।

প্রত্যাহারকৃত পুলিশ কর্মকর্তারা হলেন, সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার থানার এসআই নোবেল সরকার ও এসআই অপূর্ব সাহা।

সুনামগঞ্জ জেলা পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, সীমান্তবর্তী দোয়ারাবাজার থানা এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান চলাকালে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি বাংলাবাজার ইউনিয়নের দুই মাদক কারবারিকে চার কার্টুন বিদেশি মদসহ আটক করেন এসআই নোবেল ও অপূর্বসহ তাদের সঙ্গীয় ফোর্স। এক কার্টুন মদ জব্দ দেখিয়ে মামলা দায়েরের পর কৌশলে অবশিষ্ট তিন কার্টুন মদ বাংলাবাজার এলাকার পূর্ব পরিচিত তানিয়েল নামের অপর এক মাদক কারবারির কাছে বিক্রি করে দেন থানার ওই দুই এসআই।

পরবর্তীতে সুনামগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা পুলিশের অপর একটি টিম দোয়ারাবাজারের বাংলাবাজারে ফের ২ মার্চ মাদকবিরোধী অভিযানে গিয়ে বাজারে থাকা তানিয়েলের সহোদর তানভিরের দোকান থেকে ৩ কার্টুন বিদেশি মদ জব্দ করে।জিজ্ঞাসাবাদে তানভির জানান, থানার দুই এসআই নোবেল সরকার ও অপূর্ব কুমার সাহা এসব মদ তার ভাইয়ের কাছে বিক্রি করে গেছেন। 

গোয়েন্দা পুলিশের টিম তাৎক্ষণিকভাবে বিষয়টি জেলা পুলিশ সুপারকে অবহিত করলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাহেব আলী পাঠান প্রাথমিকভাবে দুই এসআইয়ের মদ বিক্রির সত্যতা নিশ্চিত হন।

রোববার রাতে দোয়ারাবাজার থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিন জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশে বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত থানার দুই এসআইকে পুলিশ লাইনসে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন