ছাত্রকে নির্যাতন, মাদ্রাসাশিক্ষকের সাত দিনের জেল
jugantor
ছাত্রকে নির্যাতন, মাদ্রাসাশিক্ষকের সাত দিনের জেল

  নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

১০ মার্চ ২০২১, ২২:৪৭:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌর সদরের এক কওমি মাদ্রাসাছাত্রকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগে শিক্ষককে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে এ সাজা প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. এরশাদ উদ্দিন।

জানা গেছে, পৌর সদরের বালিয়াপাড়া মহল্লার আমেনা মফিজ নুরুল কুরআন নূরানি ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার নূরানি বিভাগের ছাত্র সাব্বির হোসেন। সে পৌর সদরের কাটলিপাড়া গ্রামের জুয়েল মিয়ার পুত্র। বুধবার সকালে পড়া ভুল হওয়ার কারণে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বেত দিয়ে সাব্বিরকে নির্যাতন করেন।

পরে ছাত্রের বাবা ইউএনওকে বিষয়টি জানালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে উক্ত শিক্ষককে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

এ বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এরশাদ উদ্দীন জানান, শিক্ষক শিশুটিকে শারীরিকভাবে নির্মম নির্যাতন করেছেন। আমি তাকে বেতসহ আটক করেছি। মারধরের বিষয়টি কোনোভাবেই কাম্য নয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রোকনউদ্দীন আহামেদ, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলী ছিদ্দিক।

ছাত্রকে নির্যাতন, মাদ্রাসাশিক্ষকের সাত দিনের জেল

 নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
১০ মার্চ ২০২১, ১০:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌর সদরের এক কওমি মাদ্রাসাছাত্রকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগে শিক্ষককে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাত দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।

বুধবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে এ সাজা প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. এরশাদ উদ্দিন।

জানা গেছে, পৌর সদরের বালিয়াপাড়া মহল্লার আমেনা মফিজ নুরুল কুরআন নূরানি ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার নূরানি বিভাগের ছাত্র সাব্বির হোসেন। সে পৌর সদরের কাটলিপাড়া গ্রামের জুয়েল মিয়ার পুত্র। বুধবার সকালে পড়া ভুল হওয়ার কারণে ওই মাদ্রাসার শিক্ষক শফিকুল ইসলাম বেত দিয়ে সাব্বিরকে নির্যাতন করেন।

পরে ছাত্রের বাবা ইউএনওকে বিষয়টি জানালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে উক্ত শিক্ষককে কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

এ বিষয়ে নান্দাইল উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এরশাদ উদ্দীন জানান, শিক্ষক শিশুটিকে শারীরিকভাবে নির্মম নির্যাতন করেছেন। আমি তাকে বেতসহ আটক করেছি। মারধরের বিষয়টি কোনোভাবেই কাম্য নয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রোকনউদ্দীন আহামেদ, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আলী ছিদ্দিক।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন